রবিবার-২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং-১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৩:১৬, English Version
জলঢাকায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-০১ আহত-৩ ছাতকে ইসকপ আলীগঞ্জের ২২তম তাফসির মাহফিল সম্পন্ন নির্ভীক সাংবাদিকতার মাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করতে হবে -রমেশ চন্দ্র সেন বিপ্লব সভাপতি আজাদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত শিবগঞ্জে কলাবাগান থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার পার্বতীপুরে আওয়ামী যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন- বিপ্লব সভাপতি,আজাদ সাধারণ সম্পাদক জনতা ব্যাংকের উদ্যোগে কম্বল বিতরণ

“গভীর সমুদ্রে আট ঘন্টা পরিশ্রম করে চার জেলে পেল দেড় কেজি ইলিশ”

প্রকাশ: শুক্রবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ , ৭:০০ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : চট্রগ্রাম,সারাদেশ,

মিলন কর্মকার রাজু , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)।।
গভীর সমুদ্রে দিনভর আট ঘন্টা পরিশ্রম করে চার জেলে পেল দেড় কেজি ওজনের দুটি ইলিশ ও আড়াই কেজি ছোট মাছ। পটুয়াখালীর কুয়াকাটার পাঞ্জুপাড়া সৈকতে এসে তাই হতাশ এই জেলেরা বসে পড়ে বালুতটেই। সবার চোখে মুখে হতাশা ও কষ্টের ছাপ। দুশ্চিন্তা ও কষ্টে সবার চোখ লাল হয়ে গেছে। এ জেলেদের মতো গত কয়েকদিন ধরে উপকূলীয় কয়েক হাজার খুঁটা জেলে এক বুক আশা নিয়ে সাগরে মাছ শিকারে যাত্রা করলেও মাছ না পেয়ে ফিরছে হতাশ হয়ে।
সাগর উপকূল ও জেলে পল্লী ঘুরে দেখা যায়, হঠাৎ করে সাগরে খুঁটা জেলেদের জালে মাছ ধরা পড়ছে না। সাগরের এক-দেড় কিলোমিটারের মধ্যে এই খুঁটা জেলেরা মাছ শিকার করতো। কিন্তু গত পূর্ণিমার জো’র পর থেকে সাগর উপকূলে হঠাৎ করে ইলিশের বিচরন কমে যাওয়ায় হতাশ খুঁটা জেলেরা।
সাগরে আট ঘন্টা কাটিয়ে উপকূলে ফিরে আসা জেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৩৮) বলেন, এইডারে কয় ভাগ্য। চাইরডা মানুষ খাডলাম। মাছ পাইলাম দুইডা। এইয়া বেচমু কি, আর মোরাই বা খামু কি।
এই ট্রলারের অপর জেলে মতি মিয়া(৪৩) হিসেব করে বললেন, তৈল গ্যাছে ১২’শ টাহা। জাল ভাড়া দেওয়া লাগবে দেড় হাজার টাহা। খাবার কিনছি চাইরশ টাহা। অথচ পাঁচশ টাহারও মাছ পাই নাই। এ্যাহনতো আমাগো গায় ২৬’শ টাহা। এই চাইরডা মানুষ যদি মাছ না ধইর‌্যা বদলা দেতাম হ্যালে পাঁচশ টাহা কইর‌্যা দুই হাজার টাহা পাইতাম। এই দুই জেলে মাছ না পাওয়ার হতাশার কথা বলার সময় পাশে বসা জেলে ইব্রাহিম(৩০)শুধু বারবার দীর্ঘশ্বাস ফেলছিলো। তার ভাষায়,“ বেইন্নাকালে (ভোরে) বাসা দিয়া আওয়ার সময় বউরে কইছি আইজ হগল বাজার কইর‌্যা দিমু। ছোড মাইডারে একটা গেঞ্জি জামা ও পোলার স্কুলের খাতা-কলম কিনমু। কিন্তু এ্যাহনতো চাউল কেনার টাহাও পামু না। বাড়তে যাইয়া কি কমু। একইভাবে হতাশ অপর জেলে কালা মিয়া।
গঙ্গামতি গ্রামের এই চার জেলের মতো গত কয়েক দিনে খুঁটা জেলেদের ট্রলারে মাছ ধরা না পড়ায় লাখ লাখ টাকা দেনাগ্রস্থ্য হয়ে পড়ছে জেলেরা। আর ১০দিন পর (৮ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর) ইলিশ মাছের প্রজনন সময় হওয়ায় সাগরে মাছ শিকার বন্ধ। এখন যদি মাছ শিকার করতে না পারেন জেলেরা তাহলে মাছ ধরা বন্ধকালীন সময়ে এই ক্ষুদ্র জেলেরা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়বে বলে মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান।
পটুয়াখালী সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম বলেন, ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ডিম ছাড়ার জন্য মা ইলিশ উপকূলের কাছাকাছি এসে ডিম ছাড়ে। তবে সাগর ও নদীর বিভিন্ন মোহনায় একাধিক চর জেগে ওঠায় পানির গতিপথ ও ¯্রােতের প্রচন্ডতা হ্রাস পাওয়ায় ইলিশ মাছও গতিপথ পরিবর্তন করে। এ কারনে হয়তো আগে যেখানে জাল ফেললে খুটা জেলেরা মাছ পেতো এখন সেই স্থানে মাছ ধরা পড়ছে না। তবে আগের চেয়ে ইলিশের উৎপাদন অনেক বেড়ে বলে তিনি জানান।

আপনার মতামত লিখুন

চট্রগ্রাম,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ