বৃহস্পতিবার-১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং-২রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৩:৫৯
“জলঢাকায় তথ্য আপার সেবা বিষয়ক উঠান বৈঠক” গাইবান্ধায় বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত গাইবান্ধায় বন্যার্তদের আর্থিক সহায়তা প্রদান প্রক্রিয়াজাত খাদ্য উৎপাদনে নারী উদ্যোক্তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে — মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বিএসটিআই’র অভিযান- ছাতকে দু’ফিলিং ষ্টেশনে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাজু’র খেলোয়াদের হাতে ফুটবল বিতরন কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট-রংপুরে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্স।

সিরাজগঞ্জে ক্রমে ভয়াল হচ্ছে বন্যা, ডুবে শিশুর মৃত্যু

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭ , ৫:৩৮ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : রাজশাহী,সারাদেশ,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে ভয়াবহ বন্যায় গবাদি পশু ও শিশুদের নিয়ে টিনের চাল ঠাঁই নিয়েছে একাধিক পরিবার। ছবি : এনটিভি

পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি ছয় সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ১৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ভয়াবহ এই বন্যার পানিতে ডুবে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় উল্লাপাড়া উপজেলার বাখুয়া গ্রামের আল-আমিন হোসেনের ছেলেশিশু ফাহিম হোসেন (২) মারা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বন্যাকবলিতদের এরই মধ্যে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। হাত-পায়ে দেখা দিয়েছে ঘা। আর চরাঞ্চলগুলো একেবারে তলিয়ে যাওয়ায় উঁচু জায়গার অভাবে অনেকে ঘরের চালে বা নৌকায় আশ্রয় নিয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে চাল ও টাকা বিতরণ করা হলেও চরাঞ্চলে এখনো অনেক স্থানে তা পৌঁছেনি।

পাহাড়ি ঢলের কারণে ছয় দিন ধরে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বর্তমানে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, যা অতীতের ২৮ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। এতে জেলার পাঁচ উপজেলার তিন লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। বিশেষ করে সদরের কাওয়াকোলা ইউনিয়নের ২০টি গ্রাম সম্পূর্ণ তলিয়ে গেছে। একটুকরো উঁচু জায়গাও নেই মানুষের আশ্রয় নেওয়ার মতো। বাধ্য হয়ে কেউ বা নৌকায়, কেউ বা ঘরের চালে, কেউ বা চৌকি উঁচু করে রান্নাবান্না করে কোনোরকমে দিন পার করছেন। টিউবওয়েল তলিয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। সার্বক্ষণিক পানিতে থাকায় হাত-পায়ে ঘা দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া অনেক পানিবন্দি মানুষ ওয়াপদা বাঁধে আশ্রয় নিযে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

জেলার এনায়েতপুরে গোপালপুর-পাঁচিল বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ১০০ মিটার এলাকা বুধবার ভোরে ভেঙে গেছে। এতে প্রবল বেগে বাঁধের ভেতর পানি প্রবেশ করছে। পানি প্রবেশের ফলে এনায়েতপুর থানার জালালপুর, খুকনী ও শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ও বেলতৈল ইউনিয়নের অন্তত এক থেকে দেড় হাজার হেক্টর আমন ধান তলিয়ে গেছে। এরই মধ্যে কিছু ঘরবাড়ি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও পানি উঠতে শুরু করেছে। বাঁধটি শাহজাদপুর উপজেলা সদরের সঙ্গে এনায়েতপুরের দুটি ইউনিয়নের মানুষের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা হওয়ায় যাত্রাপথে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

কাওয়াকোলা ইউনিয়নের দোরতা গ্রামের আবদুস সাত্তার ও তারা মিয়া জানান, ইউনিয়নে উঁচু জায়গা নেই, যেখানে আশ্রয় নেওয়া যায়। সবখানেই পানি আর পানি। টিউবওয়েল তলিয়ে গেছে। বন্যার পানি দিয়ে রান্নার কাজ করা হচ্ছে। গ্রামে দু-একটি টিউবওয়েলে পানি উঠছে। সেখান সাঁতরিয়ে গিয়ে পানি আনতে হচ্ছে।

কাওয়াকোলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান টি এম শাহাদত হোসেন ঠান্ডু জানান, ইউনিয়নের ২০টি গ্রাম সম্পূর্ণ পানিতে তলিয়ে গেছে। মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে জীবনযাপন করছে। দেখা দিয়েছে খাদ্য ও পানির সংকট।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আবদুর রহিম জানান, মাত্র ছয় দিনের বন্যায় জেলার ৩৪টি ইউনিয়নের ৩১১টি গ্রাম বন্যাকবলিত হয়ে তিন লাখ ৪০ হাজার ৭৬০ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ১৫৬টি আশ্রয়কেন্দ্রে ছয় হাজার ৬২৩ জন আশ্রয় গ্রহণ করেছে। ২৪৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। পাঁটি উপজেলায় সরকারিভাবে এরই মধ্যে ৩৩৫ টন চাল ও ১২ লাখ ৪০ হাজার টাকা বিতরণের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যা এরই মধ্যে বিতরণ শুরু হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ হাসান ইমাম পেইঞ্জ জানান, পানি বিপৎসীমার ১৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পানি বৃদ্ধি স্থিতিশীল হতে পারে। আর এনায়েতপুরে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নয়, সংযোগ সড়ক ভেঙে গেছে। এতে গ্রামের ভেতর পানি ঢুকছে। শুষ্ক মৌসুমে এটি মেরামত করে দেওয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

রাজশাহী,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ