রবিবার-২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং-১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:৫৬, English Version
এবার রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ করোনায় আক্রান্ত সৈয়দপুরে পৌরসভার উদ্যোগে জীবাণুনাশক দিয়ে শহর পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম অব্যাহত  করোনায় নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি, আরও ৪ জন সুস্থ গুজব সম্পর্কে সতর্ক থাকার আহ্বান ফকিরহাটে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা শিবগঞ্জে করোনা ভাইরাস সন্দেহে এক জনের মৃত্যু ১৫ বাড়ী লক ডাউন গাইবান্ধায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ২২৫ ॥ নতুন ২ জনসহ আক্রান্ত ৪ ॥ বাড়ি ফিরে গেছে ১৩ জন

চট্টগ্রাম ও বেনাপোল বন্দর সপ্তাহের ৭দিনে ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই, ২০১৭ , ৫:৪৫ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : অর্থনীতি,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: চট্টগ্রাম সমুদ্র ও বেনাপোল স্থল বন্দর সপ্তাহের ৭ দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা হবে।

দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম সহজ ও উন্নত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ১ আগস্ট বন্দর দু’টির ২৪ ঘণ্টা চালু রাখার কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করার কথা রয়েছে।

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত বেনাপোল-পেট্টাপোল স্থল বন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা এবং পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশের সীমান্তে অবস্থিত অন্যান্য স্থলবন্দরের মাধ্যমে আরো বেশী আমদানি-রফতানির সুযোগ সৃষ্টি সংক্রান্ত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এসব কথা জানান।

বৈঠকে জানানো হয়, বেনাপোল বন্দরে এ ব্যবস্থা কার্যক্রম করার জন্য কাস্টমস বিভাগের পাশাপাশি ইমিগ্রেশন, ব্যাংক, বিজিবি, এবং ভারতের পেট্টাপোলের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কার্যক্রম সপ্তাহের সাত দিন ২৪ ঘণ্টা চালু রাখা প্রয়োজন। পেট্টাপোল স্থল বন্দর ২৪ ঘণ্টা চালু রাখার বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে লিখিতভাবে জানাবে।

ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ২০০১ সালের ১৪ জুন বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম পর্যায়ে বেনাপোলসহ মোট ১২টি শুল্ক স্টেশনকে স্থল বন্দর হিসাবে ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে দেশে ২৩টি স্থল বন্দর রয়েছে। এগুলোর মধ্যে বিরল, বাংলাবন্ধ, সোনামসজিদ, হিলি, টেকনাফ ও বিবিরবাজার স্থল বন্দর বেসরকারি পোর্ট অপারেটর এবং বেনাপোল, বুড়িমারী, আখাউড়া, ভোমরা এবং নাকুগাঁও সরাসরি সরকারি নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হচ্ছে। বাকী ১২টি স্থলবন্দরের উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

২৩টি স্থল বন্দরের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ সীমান্তে অবস্থিত বেনাপোল বন্দর ব্যতিত ভোমরা, সোনামসজিদ, হিলি, বুড়িমারী বন্দর উল্লেখযোগ্য। এসব বন্দরের অবকাঠামো বেশ উন্নত। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক এসব বন্দরে অধিকসংখ্যক পণ্য আমদানি-রপ্তানি অনুমোদন পাওয়া গেলে বন্দরগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং বেনাপোল বন্দরের ওপর চাপ অনেকটা কমে আসবে। সেক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গের সংশ্লিষ্ট বন্দরগুলো দিয়ে অধিকতর পণ্য আমদানি-রপ্তানির জন্য এগিয়ে আসতে হবে।

বৈঠকে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোক মাধব রায়, বাংলাদেশ স্থল বন্দরের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্ত্তী, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মো. লুৎফর রহমান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (দক্ষিণ এশিয়া) মো. মনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচালক (নিরাপত্তা) লে. কর্ণেল মো. আব্দুল গাফফার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ নায়েব আলী, বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম-পরিচালক মুহাম্মদ আনিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ