বুধবার-১৬ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং-১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ১:১৪
জলে-স্থলে-অন্তরীক্ষে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিজয়কেতন -তথ্যমন্ত্রী ওমানের বিপক্ষে হকি সিরিজ জিতল বাংলাদেশ ঢাকায় আরো দুই মেট্রো রেল ব্যয় ৯৪ হাজার কোটি টাকা মেহেন্দীগঞ্জে বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয় বরং তারাই হতে পারে দেশের উন্নয়নের সহায়ক ফুলবাড়ীতে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ক ওরিয়েন্টেশেন সভা ॥ ঘুমন্ত তুহিনকে কোলে করে নিয়ে আসেন বাবা, খুন করেন চাচা

দিনাজপুরে বয়লার বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১২

প্রকাশ: রবিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৭ , ৪:৫৮ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

দিনাজপুর, ২৩ এপ্রিল : দিনাজপুর সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউনিয়নের উত্তর ভাবনীপুর ও আশেপাশের গ্রামগুলোতে চলছে শোকের মাতম আর আহাজারি। প্রতিদিন কোনো না কোনো বাড়িতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কুলখানী। পাশাপাশি চলছে দাফনকাজও। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দগ্ধদের মৃত্যুর তালিকা বাড়ছে প্রতিদিনই।

দিনাজপুর সদর উপজেলার গোপালগঞ্জের শেখহাটি এলাকায় গত ১৯ এপ্রিল যমুনা অটো রাইস মিলে বয়লার বিস্ফোরণে দগ্ধ ২৮ জনের মধ্যে আজ রবিবার রাত এ পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যু সংবাদ পাওয়া গেছে। এরা হলো- মকছেদ আলী (৩৫), মোঃ আরিফ (৩৪), অঞ্জলী বালা (৩৮), রুস্তম আলী (৩৫), রনজিৎ বসাক (৫৫), সফিকুল ইসলাম (৪০), উদয় চন্দ্র (২৫), দেলোয়ার হোসেন (বয়স জানা যায়নি), দুলাল চন্দ্র (৩৮), মুন্না (৩৫), রিপন (৩০) ও  মুকুল (৩৪) । এর মধ্যে মকছেদ আলী, রুস্তম আলী ও দেলোয়ার হোসেন একই পরিবারের।

আজ রবিবার সরেজমিনে সদর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, মৃত্যুবরণ করছে এমন পরিবারের সদস্যদের ভবিষ্যত নিয়ে উৎকণ্ঠায় রয়েছে তাদের স্বজনরা। পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে নির্বাক তারা। এখনো বেঁচে থাকা মানুষগুলোর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার দাবি স্বজনদের।

সদর উপজেলার যেসব গ্রামের লোকজন আহত অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে, সেসব গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, তাদের স্বজনেরা রয়েছেন উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠায়। কখন যে কার মুত্যুর খবর আসে-এ নিয়ে তারা নির্ঘুম সময় কাটাচ্ছেন। পাশাপাশি কোন বাড়িতে চলছে কুলখানি। আবার কোনো কোনো বাড়িতে চলছে লাশ দাফনের প্রস্তুতি।

এসব গ্রামে হতাহতদের বাড়িতে গিয়ে অভিযোগে জানা গেছে, মিল মালিকের প্রতি তারা বেশ ক্ষুব্ধ। যে রাইস মিলে কাজ করতে গিয়ে তাদের এমন পরিণতির শিকার হতে হয়েছে, সেই মিলের মালিক সুবল ঘোষ তাদের কোনো খোঁজ-খবরই নিচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন তারা।

দিনাজপুর জেলা চাতাল শ্রমিক ইউনিয়নের আহ্বায়ক সাইফুর রাজ চৌধুরী জানান, ত্রুটিপুর্ণ বয়লারের বিষয়ে মিল মালিকদের বার বার অভিযোগ করা হলেও তারা তাতে কর্ণপাত করেননি। এ জন্য দায়ী মিল মালিকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে তাকে গ্রেফতারের দাবি জানান এই চাতাল শ্রমিক নেতা। পাশাপাশি তিনি ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পরিবারকে ক্ষতিপুরণ বৃদ্ধির দাবি জানান।

তিনি অভিযোগ করেন, শ্রমিক হত্যাকারী সুবল ঘোষ তদন্ত কমিটির সাথে থেকে কমিটিকে প্রভাবিত করার চেষ্ঠা করছে। এতে সঠিক রিপোর্ট নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। এ জন্য বিচার বিভাগীয় তদন্তের পাশাপাশি শ্রমিক হত্যাকারী সুবল ঘোষকে অবিলম্বে আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানান তিনি।

দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানিয়েছেন, দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে গঠিত ৬ তদস্যের তদন্ত কমিটি ঘটনা তদন্তে কাজ করছে। আগামী মঙ্গলবার কমিটি রিপোর্ট দেওয়ার কথা। তদন্ত কমিটির রিপোর্টের পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, দিনাজপুর সদর উপজেলার গোপালগঞ্জের শেখহাটি এলাকায় গত ১৯ এপ্রিল যমুনা অটো রাইস মিলে বয়লার বিস্ফোরণে ৩০ জন দগ্ধ হয়। ২৮ জনকে নেয়া হয় দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। দগ্ধদের অবস্থার অবনতি ঘটলে পর্যায়ক্রমে রাতের মধ্যেই দগ্ধদের ২০ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। রোববার পর্যন্ত সেখানে চিকিৎসাধীন দগ্ধদের ১০ জনের পর্যায়ক্রমে মৃত্যু ঘটে। মৃত্যু তালিকায় রয়েছে একই পরিবারের ৩ জন। অন্যদেরও অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ