রবিবার-২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং-১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: ভোর ৫:৫২, English Version
এবার রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ করোনায় আক্রান্ত সৈয়দপুরে পৌরসভার উদ্যোগে জীবাণুনাশক দিয়ে শহর পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম অব্যাহত  করোনায় নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি, আরও ৪ জন সুস্থ গুজব সম্পর্কে সতর্ক থাকার আহ্বান ফকিরহাটে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা শিবগঞ্জে করোনা ভাইরাস সন্দেহে এক জনের মৃত্যু ১৫ বাড়ী লক ডাউন গাইবান্ধায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ২২৫ ॥ নতুন ২ জনসহ আক্রান্ত ৪ ॥ বাড়ি ফিরে গেছে ১৩ জন

আগামী বছর থেকে স্থানীয়ভাবে প্রশ্ন ছাপিয়ে পরীক্ষা : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ: রবিবার, ২ এপ্রিল, ২০১৭ , ৮:১৬ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : শিক্ষা,

মুক্তিনিউজ24.কম ডেস্ক: প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে আগামী বছরের এসএসসি পরীক্ষা থেকে ডিজিটাল ব্যবস্থায় প্রশ্ন প্রণয়ন করে তা স্থানীয় প্রশাসনের অধীনে ছাপিয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

আজ রবিবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার প্রথম দিনে রাজধানীর ঢাকা কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শন শেষ সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা এড়াতে শিক্ষাবিদ ও শিক্ষকরা ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র তৈরির সুপারিশ করেন। সেই সুপারিশ বিবেচনায় নিয়েই সরকার স্থানীয়ভাবে প্রশ্নপত্র ছাপানোর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে কম্পিউটার থেকে প্রশ্ন বের করে ছাপিয়ে বিতরণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। আগামী বছর থেকেই এই ব্যবস্থা চালু করব।’
প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে অভিভাবকদের সহযোগিতা চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শুধু শিক্ষকরা নয়, কলেজের প্রিন্সিপাল পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকে। এমন হলে কীভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাব? আপনারা যারা অভিভাবক রয়েছেন তারা আবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে সহযোগিতা করেন না।’
তিনি বলেন, ‘বিজি প্রেস থেকে অনেক কষ্টে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা বন্ধ করেছি। কিন্তু শিক্ষকরা টাকার জন্য এমসিকিউর উত্তর বলে দেন। তারাই প্রশ্নপত্র ফাঁস করার পথে পা বাড়িয়েছে। অসাধু শিক্ষকদের চিহ্নিত করার প্রচেষ্টা চলছে।’
প্রশ্নপত্র ফাঁসকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন নাহিদ।
আজ রবিবার সকাল ১০টায় সারাদেশে একযোগে শুরু হচ্ছে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা। ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডসহ ১০টি শিক্ষা বোর্ডের আওতায় (বিআইডিএসসহ) এবার মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা মোট ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৩৫ হাজার ৬৯৭ এবং ছাত্রী ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৯৮৯ জন। গত বছরের চেয়ে এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৩৪ হাজার ৯৪২ জন।
৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের আওতায় এইচএসসি তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে ১৫ মে। তত্ত্বীয় পরীক্ষার পর ১৬ থেকে ২৫ মে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে আলীম পরীক্ষা শেষ হবে ৩ মে। তত্ত্বীয় পরীক্ষার পর ১১ মে’র মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ করতে হবে। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি (ভোকেশনাল) তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে ১৭ এপ্রিল। ব্যবহারিক পরীক্ষা ১৮ থেকে ২৬ এপ্রিলের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। এইচএসসি (ব্যবসায় ব্যব্স্থাপনা) তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে ২৯ এপ্রিল। পরীক্ষার পর ১১ থেকে ১৮ মে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ডিপ্লোমা-ইন কমার্স তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে ১৯ এপ্রিল। ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ৩ থেকে ১১ মে।
আপনার মতামত লিখুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ