শুক্রবার-১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং-২৭শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সন্ধ্যা ৬:১০, English Version
সংবাদপত্র ছুটির আওতামুক্ত থাকছে ফকিরহাটে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিতকরণে অভিযান ব্যস্ততা সত্ত্বেও শিক্ষকতা অব্যাহত রেখেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ  কোভিড-১৯ সৃষ্ট পরিস্থিতিতে আইনি সেবার হেল্পলাইন ১৬৪৩০ সত্যতা যাচাই না করে সংবাদমাধ্যমে তালিকাপ্রকাশ কোনোভাবেই সমীচীন নয় পার্বতীপুরে কাঁচা মরিচ ও টমেটোর দাম কমে গেছে রাজারহাটে ঘড়ে খাবার নেই রেজিয়ার   

করোনা-যুদ্ধে এগিয়ে আসলেন আফ্রিদি

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ, ২০২০ , ১:২৪ অপরাহ্ণ , বিভাগ : খেলাধুলা,

এমএন২৪.কম ডেস্ক :  পুরো বিশ্বই এখন করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে জর্জরিত। স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। বাধ্য হয়েই স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টিনে যেতে হচ্ছে মানুষকে। এ সময় অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন ক্রীড়া তারকাসহ অনেকেই। পাকিস্তানের সাবেক অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি বেশ কয়েকদিন আগে ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় জানিয়েছিলেন, করোনা আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানোর কথা। তারই ধারাবাহিকতা নিজ দেশে দুই হাজার পরিবারের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। নিজ হাতে গড়ে তোলা ‘শহীদ আফ্রিদি ফাউন্ডেশন’ এর পক্ষ থেকে আফ্রিদি নিজে এবং তার কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে এই সামগ্রী পৌঁছে দেন।

এছাড়া আফ্রিদি তার দেশের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাফর মির্জা ও জাতিসংঘের অঙ্গ সংস্থা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে থেলাসিমিয়া রোগীদের পাশে এসে দাঁড়ানোর জন্য তাগিদ দেন। কারণ আফ্রিদির ধারণা থেলাসিমিয়া রোগীরাই এই করোনা ভাইরাসে কারণে বেশি শঙ্কার মুখে থাকবেন। এনিয়ে আফ্রিদি একটি টুইটবার্তাও দেন।

এর আগে নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় আফ্রিদি বলেন, ‘করোনার ভয়াবহতা এবং বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে আপনারা সবাই জানেন। পুরো বিশ্বের পাশাপাশি পাকিস্তানেও করোনার প্রভাব পড়েছে। এই সময়ে আমাদের সকলের দায়িত্ব একে অপরকে সাহায্য করা। এ সময় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নিজের খেয়াল রাখা। হাত ধোঁয়া, পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা, হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময় টিস্যু পেপার ব্যবহার করা। সবাইকে এ সময় সাবধানে থাকা উচিত।’

আফ্রিদি আরও বলেন, ‘এ সময় আমাদের আল্লাহর দেখানো পথে চলা উচিত। সামনে রমজান মাস আসছে। এখন আবার করোনার প্রভাবে দেশের পরিস্থিতি ভালো না। সমাজের বিত্তবান লোকেরা বেশি বেশি জিনিসপত্র কিনে নিজেদের দখলে রেখেছে। ফলে গরিব মানুষরা কিছুই পাচ্ছে না। দোকানে গেলে হ্যান্ড স্যানিটাইজার পাওয়া যাচ্ছে না। মাস্ক পাওয়া যাচ্ছে না কারণ বিত্তবানরা সবাই সব কিছু নিজেদের দখলে রেখেছে। বাজারে পাওয়া গেলেও তার দাম এত বেশি যে গরিবরা তা কিনতে পারছে না।’

আপনার মতামত লিখুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ