সোমবার-৩০শে মার্চ, ২০২০ ইং-১৬ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৪:২০, English Version
উমাদিনী ত্রিপুরার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক ডোমার পৌর শহরে চলছে জীবাণু নাশক ছিটানো কার্যক্রম। লালপুরে দুস্থদের মাঝে নিজ উদ্যোগে খাবার সামগ্রী বিতরণ পার্বতীপুরে করোনা ঠেকাতে আদা, লং, কালিজিরার চা খাওয়ার গুজব! চাঁপাইনবাবগঞ্জে খেটে খাওয়া গরীব দুঃখি মানুষের মাঝে চাল বিতরণ শুরু ‘করোনা চিকিৎসায় ২৫০ ভেন্টিলেটর প্রস্তুত’ সংবাদপত্র সংক্রান্ত সকল ধরনের কাজ পরিচালনায় কোনো বাধা নেই

চার বছর হতে দু’জন শিক্ষক দিয়ে চলছে পার্বতীপুরের মৌলভীর ডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশ: রবিবার, ১৫ মার্চ, ২০২০ , ৫:৩৩ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

বিশেষ প্রতিনিধি॥ দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার মৌলভীর ডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলমান শিক্ষক নিয়োগ ও পদায়নে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিম্নতম ৩ জন শিক্ষক শুন্য পদে নিয়োগ দিয়ে শিক্ষক সংকট নিরশনে দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের হস্তক্ষেপ দাবী করেছেন সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় এলাকার অভিভাবক গন। কারন চার বছর হতে দু’জন শিক্ষক দিয়েই চলছে ৬টি শ্রেণির ২৫১ জন শিক্ষার্থীর পাঠদান। এতে করে চরম ভাবে ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক পাঠদান প্রক্রিয়া। শিক্ষা বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদেরকে বিষয়টি বারংবার অবহতি করা সত্বওে তাদের উদাসিনতা ও দায়িত্বহীনতার কারণে মেটেনি শিক্ষক সংকট। বিদ্যালয় সূত্রে সরেজমিনে জানা গেছে, ৫ পদের এই বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক এবং এক জন সহকারী শিক্ষক কর্মরত আছেন। ইতিপূর্বে ৪ জন শিক্ষক কর্মরত থাকলেও দায়িত্বে অবহেলা স্বেচ্ছাচারিতা ও অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ায় এবং তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বর্গিত ১৬ মার্চ/১৭ইং তাদেরকে প্রশাসনিক বদলি করা হয়। দু’জন শিক্ষক দিয়ে ২৫১ জন শিক্ষার্থীর প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি হতে পঞ্চম শ্রেণির পাঠদান চলমান আছে। প্রধান শিক্ষককে প্রায় সময় প্রশাসনিক কাজে উপজেলা সদরে গমন, বিভিন্ন প্রশিক্ষন গ্রহনের ফলে একজন শিক্ষককে গোটা বিদ্যালয় সামলাতে হয়। প্রধান শিক্ষক খন্দকার হাবিবুর রহমান বলেন, প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে শিক্ষক স্বল্পতা যা ইতি মধ্যে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বারংবার অবহিত করা হয়েছে কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। পাশ্ববতী যেসব বিদ্যালয় শিক্ষার্থীর অনুপাতে শিক্ষক বেশী সংখ্যক হতে শিক্ষক সমন্বয় করার অনুরোধও  কাজে আসেনি। অফিসিয়াল কাজ, উপবৃত্তি, শিশু জরিপ, স্কুল ফিডিং কর্মসূচীর বিস্কুটের হিসাব প্রতিদিন হালফিল, সমন্বয় সভা সহ ৬ টি শ্রেণির পাঠদান সামলানো খুব কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। সহকারী শিক্ষা অফিসার আল-সিরাজ জানান, বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থী সংখ্যা অনেক মাত্র দু’জন শিক্ষক দিয়ে বিদ্যালয় চালানো অসম্ভব। শিক্ষক সংকট নিরসনে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ প্রয়োজন। দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার স্বপন কুমার রায় চীেধুরী জানান, বিদ্যালয়টিতে শিক্ষক স্বল্পতা কর্তৃপক্ষের নজরে আছে। পার্বতীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ মোস্তাফজিুর রহমান ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটরে কথা স্বীকার করে বলেন, ইচ্ছা থাকা সত্বওে নিরুপায় তবে যেহেতু পার্বতীপুরে ১২৭ জন নতুন শিক্ষক নিয়োগ হয়েছে এবং শূন্য পদের তালিকায় সর্বাঙ্গে বিদ্যালয়টির নাম পাঠানো হয়েছে, আমি দৃঢ় আশাবাদী ২/১ দিনের মধ্যে শিক্ষক পদায়ন হলে জেলা শিক্ষা অফিসার গুরুত্ব সহকারে বিষয়টি আমলে নিবেন। বিদ্যালয়ের সভাপতি ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ মাসুদুর রহমান শাহ্ মাসুদ বলনে শিক্ষক সংকট নিয়ে ৪ বছর হতে বিদ্যালয়টি যেভাবে এগিয়ে চলছে এজন্য উদ্ধতন র্কমর্কতা গনের উদাসীনতাই দায়ী।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ