শুক্রবার-১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং-২৭শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৩:১০, English Version
যে কারণে দেশে ফেরার ঝুঁকি নেন খুনি মাজেদ করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে মাথা ন্যাড়া করার হিড়িক! ৯বছরের শিশুকে ধর্ষনে অভিযোগে রক্তাক্ত অবস্থায় থানায় মায়ের আহাজারি করোনা ভাইরাস এর কারনে পার্বতীপুরের কাচা বাজার কয়েকটি মাঠে বসার প্রস্তাব। সৈয়দপুরে এক যুবক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হাকিমপুরে অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে আটা বিতরণ পবিত্র শবে বরাতে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা

জলঢাকায় কৃষি কাজে এখন কদর বেড়েছে নারী শ্রমিকদের   

প্রকাশ: বুধবার, ১১ মার্চ, ২০২০ , ৩:৪৮ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,
এরশাদ আলম,জলঢাকা(নীলফামারী) সংবাদদাতা :
কৃষি কাজে পুরুষ দিনমজুরের চেয়ে মজুরী কম হওয়ায় কদর বেড়েছে এখন নারী শ্রমিকদের। উত্তরের জেলা নীলফামারীর জলঢাকায় বীজতলা থেকে চারা তুলে কৃষকরা তাদের জমিতে ইরি-বোরো চারা রোপণ কাজের পালা ইতিমধ্যেই শেষ করেছেন।এখন চলছে সেচ ও পরিচর্যার কাজ। এবছর জলঢাকা পৌর এলাকাসহ উপজেলার কৈমারী, শৌলমারী, ডাউয়াবাড়ী, গোলমুন্ডা, বালাগ্রাম, গোলনা, শিমুলবাড়ী, ধর্মপাল, মীরগঞ্জ, কাঠালী ও খুটামারা ১১টি ইউনিয়নে ১৪ হাজার ৫’শ হেক্টর জমিতে ইরি–বোরো আবাদের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহ মোহাম্মদ মাহফুজুল হক জানিয়েছেন,গেলো জানুয়ারি হতে শুরু হয়েছে বোরো ধান আবাদের মৌসুম। এই ফসল যেন কৃষকদের একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার ফলন ভালোই পাবে। এ অঞ্চলে কৃষকরা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন ইরি – বোরো আবাদের কাজে। উত্তরের সাথে দক্ষিনাঞ্চলেও কৃষি কাজের ভরা মৌসুম শুরু হওয়ায় এ অঞ্চলে সংকট দেখা দিয়েছে পুরুষ দিনমজুরদের। তারা বেশি মূল্য পাওয়ার আশায় কাজের সন্ধানে দক্ষিণ অঞ্চলে চলে যাওয়ায় এই সংকট দেখা দিয়েছে বলে জানান ক্ষেত পরিচর্যা কাজে নিয়োজিত রাবেয়া খাতুন নামের এক নারী শ্রমিক। পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড দুন্দিবাড়ী এলাকার মৃত কছির উদ্দিনের ছেলে রুহুল আমিন জানায়, এবার ৭ বিঘা জমিতে ইরি – বোরো চাষাবাদ করছি। সময়মতো সার ও পানি দেওয়া হলেও রোয়া নিড়ানির জন্য ৩০০ থেকে সারে ৩৫০ টাকা মজরিতেও পুরুষ দিনমজুর খুজেঁ পাওয়া যাচ্ছে না। ভাগ্যে ৭ জনের একটি নারী কৃষি শ্রমিকদের গ্রুপ পাওয়া গেছে। তাদের মজরিও পুরুষদের তুলনায় অনেক কম। আগে ১০০ টাকা মজরিতে পাওয়া যেত। এখন কৃষি শ্রমিক সংকটের ফলে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা দিতে হয়। সোমবার প্রত্যন্ত অঞ্চল ঘুরে এমন তথ্য চিত্র সামনে আসে। কথা হয় বোরো পরিচর্যার কাজে নিয়োজিত ফুলমতি রায়, জামেনি বালা, সাবেত্রি রায়, রাধা রানী ও হরপিয়ার সাথে। তারা জানায়, এখনতো সবখানে একাজ চলছে। শুনছি ঢাকা, কুমিল্লায় নাকি কামলার মূল্য বেশি, তাই পুরুষরা কাজের জন্যে বেশির ভাগ ওইদিকে চলে যায়। আর সেকারনে আমাদের এদিক পুরুষ কামলা কম।তাদের শ্রমের মুল্য জানতে চাওয়া হলে তারা জানায়,আগে এক বেলা খেয়ে আমরা ৫০/১০০মটাকাকায় কাজ করতাম। এখন পুরুষ কামলার অভাব, সেজন্যে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা পাওয়া যায়।কোন মাঠ পতিত নেই। চলছে মাঠ জুড়ে বোরো ধান আবাদের কর্মযজ্ঞ।কৃষক আকবর আলী  জানান, সময়মতো বোরো ধান রোপন ও পরিচর্যা না করলে ফলন ভালো হবে না। তাই আবাদের প্রয়োজনে পরিবার পরিজন নিয়ে মাঠে কাজ করছি। মাঠে কৃষকরা যে গতিতে ইরি – বোরো আবাদে কাজ করছেন তাতে এবার লক্ষমাত্রার চেয়েও বেশি পরিমাণ বোরো ধান ফলনের আশা করছেন।এর পাশাপাশি এবার ভুট্টার আবাদও ব্যাপকভাবে করেছেন প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের কৃষকরা।চলতি মৌসুমে ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে ভুট্টা আবাদের
লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও আবাদ হয়েছে ১৭ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে। যার ফলন ধরা হয়েছে ১৬ হাজার মেট্রিকটন।
আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ