রবিবার-৫ই এপ্রিল, ২০২০ ইং-২২শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৪:৫২, English Version
করোনায় চীনে মারা গেছে ৫০ হাজার মানুষ: ওয়াশিংটন পোস্ট যাত্রীবাহী লঞ্চে হচ্ছে আইসোলেশন সেন্টার করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশকে ১০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ছড়াতে পারে করোনাভাইরাস করোনাভাইরাস : কাদের মাস্ক ব্যবহার করতে হবে আর কাদের নয় চাঁপাইনবাবগঞ্জে গরীব দুঃখি মানুষের মাঝে আর্থিক সহায়তা করলেন এমপি জেসী করোনা মোকাবেলায় কাল কর্মপরিকল্পনা ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী

লালপুরে দুর্যোগ সহনীয় নতুন বাড়ি পেল ২৮টি গৃহহীন পরিবার

প্রকাশ: সোমবার, ৯ মার্চ, ২০২০ , ৫:৫১ অপরাহ্ণ , বিভাগ : নাটোর,সারাদেশ,

 

মো. আশিকুর রহমান টুটুল, নাটোর সংবাদদাতা : নাটোরের লালপুর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রানালয়ের অধিনে দুর্যোগ সহনীয় ২৮টি পাকা বাড়ি পেলো ২৮জন গৃহহীন পরিবার। বর্তমানে ঘরগুলির নির্মাণ কাজ চলছে। খুব শিঘ্রই ঘর নির্মান শেষে উপকারভোগীদের মাঝে নতুন বাড়িগুলো হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন। ‘দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধিনে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষন (টি.আর) ও গ্রামীন অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) কর্মসূচির বিশেষ বরাদ্ধে ২০১৯-২০ অর্থবছরে লালপুর উপজেলায় মোট ২৮টি হতদরিদ্র, অস্বচ্ছল, গৃহহীন পরিবারকে দুর্যোগ সহনীয় পাকা ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন। ‘গৃহহীনদের গৃহদান’ কর্মসূচির অগ্রাধিকার প্রদান, দুর্যোগ ঝুকিহ্রাস এবং বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার ‘আমার গ্রাম, আমার শহর’ অনুযায়ী গ্রামীন এলাকায় যে সকল দারিদ্র জনগোষ্ঠীর সামন্য জমি বা ভিটা আছে কিন্তু টেকশই ঘর নেই তাদের জন্য ৮০০ বর্গফুটের জায়গায় রান্নঘর, টয়লেটসহ একটি সেমিপাকা টিনশেডের দুই কক্ষ বিশিষ্ট নতুন বাড়ি নির্মান করে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন।’
লালপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানাগেছে, ‘চলািত বছরে উপজেলার ২৮টি দুর্যোগ সহনীয় পাকা বাড়ি নির্মান করে দেওয়া হচ্ছে গৃহহীনদের। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে ব্যায় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৮শত ৬০টাকা। এতে প্রতিটি পরিবার রান্নঘর, টয়লেটসহ একটি সেমিপাকা টিনশেডের দুই কক্ষ রয়েছে। আর এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছেন সংশ্লিষ্ট উপজেলার নির্বাহী অফিসার এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার। লালপুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় ২৮ জন গৃহহীন পরিবারের জন্য ৮৩ লক্ষ ৯৬ হাজার ৮০ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।’
আরো জানাগেছে, ‘যে সকল ব্যক্তিদের ১ থেকে ১০শতাংশ পর্যন্ত জমি আছে, কিন্তু ঘর নেই বা থাকলেও তা বসবাসের অনুপযোগী এমন ব্যক্তিরাই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে সভাপতি, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সদস্য সচিব, উপজেলা প্রকৌশলী এবং সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে সদস্য করা হয়েছে।’
কমেলা বেগম নামের এক উপকারভোগী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন,‘আমার থাকার কোন ঘর ছিলোনা, বর্তমান সরকারের উদ্যোগে বিনামূল্যে মাথাগোজার জন্য এতো সুন্দর পাকা বাড়ি পাচ্ছি।আমরা সরকারের নিকট চিরোকৃতজ্ঞ।’
নির্মানাধীন ঘর পরিদর্শন করে লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উ¤মুল বানীন দ্যুতি বলেন, ‘প্রতিটি ঘর নির্মাণ বাবদ ২লাখ ৯৯ হাজার ৮শত ৬০টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আমরা নির্ধারিত বরাদ্দের মধ্যেই ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করেছি এবং ঘর গুলি খুব দ্রুত নিমান কাজ শেষে সুবিধাভোগীদের মধ্যে হস্তান্তর করা হবে বলে জানান তিনি।’

আপনার মতামত লিখুন

নাটোর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ