বুধবার-১লা এপ্রিল, ২০২০ ইং-১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ২:৪৭, English Version
মশার গান আর শুনতে চাই না : মেয়রদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন গাইবান্ধায় শ্রমজীবী মানুষ গুলো ব্যাপকভাবে বিপাকে সাধারণ ছুটি ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ল চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে খাবার তুলে দিলেন লেনিন প্রামাণিক চাঁপাইনবাবগঞ্জে সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ পার্বতীপুরের পত্রিকা বিক্রেতাদের হাতে তুলেন দিলেন খাদ্য সামগ্রী- উপজেলা সমাজসেবা অফিসার

পাঁচবিবিতে মাঠে মাঠে দোলা দিচ্ছে কৃষকের স্বপ্নের ইরি বোরো ধানের ক্ষেত

প্রকাশ: রবিবার, ৮ মার্চ, ২০২০ , ৪:২৬ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রাজশাহী,সারাদেশ,

মোস্তাকিম হোসেন,পাঁচবিবি (জয়পুরহাট)সংবাদদাতা:
জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে মাঠে মাঠে বসন্তের হাওয়ায় দোল খাচ্ছে কৃষকের স্বপ্নের ইরি বোরো ধানের ক্ষেত। চলতি মৌসুমের ইরি-বোরো রোপণ শেষ পর্যায়ে। এখন জমিতে চলছে সার ,কীটনাশক প্রয়োগ আর পরিচর্যার কাজ। ইরি বোরো ধানের বাম্পার ফলনের মাধ্যমে গত আমন মৌসুমের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চেষ্টা করছেন কৃষকেরা। কৃষকরা জানায়, প্রতিকূল আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ না ঘটলে এবং বাজারে ধানের ন্যয্য মূল্য পেলে অধিক লাভের আশা করেছেন তারা।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এবার উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়নে এবার ১৯ হাজার ৯শ ২৫ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো চারা রোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিট জাতের চারা রোপণ ১ হাজার ৮শ হেক্টর এবং উফসি জাতের চারা রোপণ ১৮ হাজার ১শ ২৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে হাইব্রিট জাতের ৯হাজার ৪শ ৬৬ মেঃটন চাল এবং উফসি জাতের ৮২ হাজার ১শ ৬ মেঃটন চাল।
উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বহরমপুর গ্রামের মাসুদ রানা জানান, তিনি ৬ একর জমিতে বোরো ধান রোপণ করেছেন। এরই মধ্যে প্রতি বিঘা জমিতে খরচ হয়েছে ধানের চারা বাবদ ৫/৬শ টাকা, জমি চাষ করা বাবদ ৮শ টাকা, দিনমজুর বাবদ ১ হাজার টাকা, সার কেনা বাবদ ১ হাজার ৩শ টাকা। এছাড়া ৩ মাস পানি সেচ বাবদ ১ হাজার ৩শ টাকা, নিড়ানী ও কিটনাশকসহ নানা ওষুধ বাবদ আরও প্রায় ২ হাজার টাকাসহ ধান কাটা-মাড়াইসহ আরও প্রয়োজন ৪ হাজার টাকা। এ নিয়ে প্রতি বিঘা জমিতে চাষাবাদ বাবদ সর্বমোট খরচ হচ্ছে ১০ হাজার থেকে ১১ হাজার টাকা। ফলন ভালো হওয়াসহ দাম ভালো পাওয়া গেলে এই খরচ আর পরিশ্রম দুই সার্থক হবে। কৃষক মাসুদ রানার মত একই কথা বলেন জেলার অন্যান্য কৃষকরাও।
উপজেলার কুটাহারা গ্রামের কৃষক সাখাওয়াত হোসেন ও ধরঞ্জি ইউনিয়নের কৃষক সোহান জানায়, এবার জমিতে ইরি বোরো ধান চাষ করেছি, বৈরি আবহাওয়া ও পোকামাকড় ও ইঁদুরের আক্রমন না হলে ধানের অধিক ফলনে আশাবাদী।
পাঁচবিবি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফর রহমান জানান, উপজেলায় ইরি রোরো চারা রোপন শেষের দিকে প্রায় । প্রাকৃতিক কোন দূর্যোগ না দেখা দিলে এবার উপজেলায় ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

রাজশাহী,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ