শুক্রবার-১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং-২৭শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:১৭, English Version
যে কারণে দেশে ফেরার ঝুঁকি নেন খুনি মাজেদ করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে মাথা ন্যাড়া করার হিড়িক! ৯বছরের শিশুকে ধর্ষনে অভিযোগে রক্তাক্ত অবস্থায় থানায় মায়ের আহাজারি করোনা ভাইরাস এর কারনে পার্বতীপুরের কাচা বাজার কয়েকটি মাঠে বসার প্রস্তাব। সৈয়দপুরে এক যুবক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হাকিমপুরে অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে আটা বিতরণ পবিত্র শবে বরাতে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা

ডোমারে কৃষকের গরু বিক্রি করলেন ইউপি চেয়ারম্যান।

প্রকাশ: রবিবার, ৮ মার্চ, ২০২০ , ৩:৩১ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

রবিউল হক রতন, ডোমার (নীলফামারী)সংবাদদাতা :
ডোমারে এক বৃদ্ধকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে তার বাড়ী থেকে গরু এনে বিক্রি করে দিলেন ভোগডাবুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান একরামুল হক, এ নিয়ে এলাকায় চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।
ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ভোগডাবুড়ী ইউনিয়ন গোসাই গঞ্জের ডাঙ্গা পাড়া গ্রামে। ঐ এলাকার হত দরিদ্র বাচ্চাউ তার স্ত্রী রমিছা বেগম(৫৫) ও কন্যা সন্তানকে রেখে জীবিকার তাগিদে ঢাকায় গিয়ে রিক্সা চালায়। রমিছার পাতানো ভাই ডাঙ্গাপাড়া আদর্শ গ্রামের মৃত আব্দুলের ছেলে ইব্রাহীম(৭০) তাদের শুখ-দুঃখের সাথি হয়ে দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে তাদের দেখাশোনা করে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার(৪মার্চ) আনুমানিক রাত ৯টায় রমিছার বাসায় গিয়ে কিছু খরচ দিয়ে ফেরার পথে এলাকার বখাটেরা ইব্রাহিমকে আটক করে।
রমিছার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অসামাজিক কাজে লিপ্ত ছিলাম এমন গুজব ছড়িয়ে মুক্তিপন বাবদ ১লক্ষ ২০ হাজার টাকা দাবি করে এলাকার বখাটেরা । এ সময় ভোগডাবুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান একরামুল হক ঘটনাস্থলে এসে কোন কিছু না শুনে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ, এলোপাথারী মারপিট করে, আমাকে দিয়ে থুথু চাটিয়ে আমাদের দুই জনের কাছে জোর করে ফাঁকা স্টাম্পে সই করিয়ে নেয় । এ বিষয়ে ইব্রাহিম জানান রমিছার মেয়ে ঢাকা থেকে ২শত টাকা আমার মোবাইলে বিকাশের মাধ্যমে পাঠায়, আমি রমিছাকে টাকার কথা জানালে সে কিছু খরচের কথা বলে,আমি সেই খরচ তার বসায় দিয়ে ফেরার পথে আমাকে কিছু ছেলে ধরে আটকে রাখে, চেয়ারম্যান একরামুল আমাকে দোসি সাবস্ত করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দাবি করে, আমি দোসি না থাকায় টাকা দিতে অস্বিকার করি, ঐ রাতেই চেয়ারম্যান চৌকিদার দিয়ে আমার বাড়ী থেকে ৫৫ থেকে ৬০হাজার টাকা মুল্যের একটি গরু নিয়ে আসে। পরে শুনতে পাই গরু বিক্রি করে দিয়েছে।
এবিষয়ে চেয়ারম্যান একরামুলের কাছে ঘটনার বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি রমিছাকে কান ধরিয়েছি, গরু নিয়ে এসেছি, গরু বিক্রি বাবদ ২০ হাজার টাকা আমার কাছে আছে। অসুস্থ্য রমিছা ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ