শুক্রবার-২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং-১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১১:০৬, English Version
ঘুমানোর আগে দুধ খেলে কী উপকার পাবেন তওবা করে ইসলাম গ্রহণ করলেন ২১ কাদিয়ানি (ভিডিও) মুজিববর্ষে ৪০ হাজার তরুণকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে: পলক পাপিয়া-সম্রাটদের সাম্রাজ্য এবং নানা প্রশ্ন পাপিয়ার মোবাইল কললিস্টে ১১ এমপির নাম ২০৪৬ অফিসার নেবে ৯ ব্যাংক চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাদক সেবন করার অপরাধে -১৩জন মাদক সেবনকারী গ্রেপ্তার

মুক্তিযোদ্ধা রউফকে বাড়ি দিলেন জেলা প্রশাসক

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ১১:০২ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : মুক্তিযুদ্ধ,

এমএন২৪.কম ডেস্ক : কালের কণ্ঠের দশম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গত ১০ জানুয়ারি গাজীপুরে সম্মাননা দেওয়া হয়েছিল বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে। অস্বচ্ছল ওই মুক্তিযোদ্ধার জায়গা-জমি বা বাড়ি নেই জেনে তাঁকে দ্রুত জমি ও ঘর দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম। গতকাল সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসক আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরের চাবি বুঝিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধা রউফকে। মাথার ওপর ছাদ পেয়ে বেজায় খুশি আবদুর রউফ।

এ উপলক্ষে গতকাল বিকেলে শ্রীপুরের রাজাবাড়ি এলকায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক ছাড়াও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামছুল আরেফিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এমডি শামসুল আরিফীন, স্থানীয় ইউনয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফারুক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গৃহহীন মানুষের জন্য নানা প্রকল্প নিয়েছেন। ওই প্রকল্পের আওতায় রাজাবাড়ি গুচ্ছগ্রাম ২য় প্রকল্পের আওতায় ১০টি বাড়ি নির্মাণ করা হয়। ওই ১০টির মধ্যে একটি বাড়ি মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ৫ শতক জমিসহ বাড়িতে টয়লেট ও পানির টিউবওয়েল করে দেওয়া হয়েছে। শিগগিরই বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগও দেওয়া হবে। আবদুর রউফের মতো সাহসী মানুষরাই ১৯৭১ সালে অস্ত্র হাতে নিয়ে শত্রুর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন বলেই দেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা মাথা উঁচু করে বাস করছি। কালের কণ্ঠের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে না গেলে তিনি জানতেন না একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও আবদুর রউফ অতটা অস্বচ্ছল। চা বিক্রি করে তিনি দুই মেয়েকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। তাঁর দুই মেয়ের চাকরির ব্যবস্থারও আশ্বাস দেন জেলা প্রশাসক।

বাড়ি পেয়ে অনুভূতি জানাতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফ বলেন, ‘যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করছিলাম। বিনিময়ে কিছু পাব চিন্তা করিনি। বহু চেষ্টা করেও একটু জমি কিনতে পারেননি। আজ জমি ও বাড়ি পেলাম। এটি আমার কাছে স্বপ্নের মতো লাগছে। জেলা প্রশাসক ও কালের কণ্ঠের কাছে আমি কৃতজ্ঞ’।

মুক্তিযোদ্ধা রউফের আদি বাড়ি সিলেটের জৈয়ান্তাপুর উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামে। বাবার নাম মোহাব্বত আলী। দেশ স্বাধীন হলে ভিটেমাটিহীন আব্দুর রউফ কিছুদিন গ্রামে পাথর তোলা ও দিনমজুরির কাজ করেন। পরে কাজের সন্ধানে চলে আসেন গাজীপুরে। তারপর থেকে গাজীপুরেই আছেন। জুতা বিক্রি, দর্জির কাজ করে এখন তিনি শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় ছোট একটা দোকান ভাড়া নিয়ে চা বিক্রি করেন।

আপনার মতামত লিখুন

মুক্তিযুদ্ধ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ