রবিবার-৫ই এপ্রিল, ২০২০ ইং-২২শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সন্ধ্যা ৬:১২, English Version
দেশে করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮ ছুটি বাড়ল ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত অঘোষিত লক ডাউন চলছে তারি মধ্যে দিয়ে বাড়ি বাড়ি খাদ্য পৌছিয়ে দিলেন এমপি জেসী বাংলাদেশে যেসব ল্যাবে করোনা ভাইরাস শনাক্তকরণে কাজ চালু রয়েছে ও মোবাইল নম্বরসহ পার্বতীপুরে ২০ লাখ টাকার নকল বালাইনাশক উদ্ধার নভেল করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে ক্রেডিট কার্ডের বিল বিলম্বে পরিশোধ করা যাবে গাইবান্ধাসহ ৮ জেলায় পিপিই দিলো ওয়ালটন

বোরো চাষে ব্যস্ত সময়ে গাইবান্ধার কৃষকরা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা প্রতিনিধি ঃ জেলার অন্যান্য উপজেলার ন্যায় গাইবান্ধা সদর উপজেলায় শুরু হয়েছে বোরো চাষাবাদ। চাষাবাদের জন্য জমি প্রস্তুত ও চারা রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন স্থানীয় কৃষকেরা।

এসব কৃষকরা জানায়, শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকুলে এবং বিদ্যুৎ সরবরাহ ঠিকমতো থাকলে সুষ্ঠুভাবে ফসল ঘরে তুলতে পারবেন। ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মাঠে মাঠে চলছে পানি সেচ, জমি প্রস্তুত ও চারা রোপনের ব্যস্ততা।

কৃষকদের নিকট হতে জানা যায় জমিতে বোরো ধান চাষে কাজ চলছে। গভীর নলকুপ দিয়ে আমাদের চাষাবাদ করতে হয়। সবাই একসাথে জমি তৈরী করতে নলকুপের উপর কিছুটা চাপ পড়ছে।

সাধারণ কৃষকরা আলো জানান, জমি চাষ ও রোপন, পানি সেচ এবং কাটা- মাড়াইসহ প্রায় ৯ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা বিঘা প্রতি খরচ হয়ে থাকে। বিঘা প্রতি ফলন হয় ২৫-৩০ মন। বর্তমান বাজারে ধানের দাম সর্বোচ্চ ৪৫০ টাকা করে। যাদের নিজস্ব জমি তাদের কিছু থাকে। কিন্তু যারা বর্গাচাষী তাদের কিছুই থাকেনা। এতে করে প্রতিবছর আমাদের লোকসান গুনতে হয়। সরকার যদি সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনে তাহলে ন্যায্য দাম পাওয়া যাবে। উপজেলায় চলতি মৌসুমে চাষিদের মধ্যে বোরো চাষের ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা পরিলক্ষিত হচ্ছে। শীতের প্রকোপ কিছুটা কম থাকায় কৃষকরা কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে।

সদর উপজেলা কৃষি সূত্রে জানা যায় যে চলতি বোরো মৌসুমে সদর উপজেলায় এবার ১৮ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে ৫শ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের উৎপাদন বেশি হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন

কৃষি,রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ