শুক্রবার-২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং-৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৩:২২, English Version
বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট ম্যাচ দেখতে কাল কলকাতা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিকে বড় সুখবর আসছে ছাতকে ক্যান্সার আক্রাকে মাকে বাঁচাতে মেয়ের আকুতি চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশ লাইন্স মিলনায়তনে জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত গোবিন্দগঞ্জ প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরন সৈয়দপুরে ইউএনও কে পৌর পরিষদের বিদায়ী সংবর্ধনা চাঁপাইনবাবগঞ্জে দিনব্যাপী বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

সাকিব ছাড়া কী হবে বাংলাদেশের?

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০১৯ , ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : খেলাধুলা,

এমএন২৪.কম ডেস্ক: শাস্তি না কমলে আগামী এক বছর সাকিবকে পাবে না বাংলাদেশ দল৷ তাই বলে কি ‘সাকিব নেই! সাকিব নেই!’ আহাজারি করে আগেই হেরে বসতে হবে? মোটেও না৷ বরং ভারত সফর থেকেই শুরু করতে হবে নতুন লড়াই৷ সেই লড়াইয়ে জয় পাওয়া খুব সম্ভব৷ টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ ভারতকে হারিয়ে দিলে খুব অবাক হবো না আমি৷ অবাক হবো না, কারণ, আমি জানি, টি-টোয়েন্টিতে ভারত সেরা দল নয়৷গত পরশুই টি-টোয়েন্টির ব়্যাঙ্কিং প্রকাশ করেছে আইসিসি৷ সেখানে সবার ওপরে কোন দেশের নাম লেখা দেখেছেন নিশ্চয়ই? পাকিস্তান৷ ভারতের নাম আছে পাঁচ নাম্বারে৷ বাংলাদেশ অবশ্য আরো পেছনে— নয় নাম্বারে৷ তা নয় নাম্বার দল কি পাঁচ নাম্বারকে হারাতে পারে না? খুব পারে৷

বেশি দূরে যেতে হবে না৷ ব়্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দল পাকিস্তানের সবশেষ সিরিজটার কথাই ভাবুন না! তিন ম্যাচের সিরিজটি নিজের দেশেই খেলেছে সরফরাজের দল৷ প্রতিপক্ষ ছিল শ্রীলঙ্কা৷ নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা থাকায় তাদের প্রথম একাদশের অনেক খেলোয়াড়ই পাকিস্তানে যাননি৷ ফলে দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে মাঠে নেমেছিল শ্রীলঙ্কা৷ তারপর? সবাই ভেবেছিলেন, দুর্বল প্রতিপক্ষকে নিজের মাঠে নাস্তানাবুদ করে ছাড়বে পাকিস্তান৷ কিন্তু ফল হয়েছে উল্টো৷ পাকিস্তানকেই ৩-০ তে উড়িয়ে হাসিমুখে দেশে ফিরেছেন ভানিদু হাসারাঙ্গারা৷ এত খেলোয়াড় থাকতে শুধু ভানিদু হাসারাঙ্গার নামটা কেন বললাম? বলেছি, কারণ, পাকিস্তান-বধে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে এই ভানুদিই হয়েছেন ম্যান অব দ্য সিরিজ৷ মনে রাখতে হবে, পাকিস্তান সিরিজের তিনটিসহ এ পর্যন্ত মাত্র সাতটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্ট খেলেছেন ভানুদি৷ আরো মনে রাখতে হবে, ‘‘দলে মালিঙ্গা নেই, অমুক নেই, তমুক নেই” আহাজারি করে করে কিন্তু সময় পার করেনি শ্রীলঙ্কা৷ অনেকের না থাকাটাকেই সবাই দেখেছে খুব বড় সুযোগ হিসেবে৷ তার ফলাফলটা দেখুন৷ প্রথম ম্যাচে ৩৮ বলে ৫৭ রান করে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেয়েছেন ক্যারিয়ারের ১৮তম ম্যাচ খেলা দানুশকা গুনাতিলাকা৷ তৃতীয় ম্যাচে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৮ রানের (অপরাজিত) ইনিংস খেলেছেন মাত্র দুটি টি-টোয়েন্টি খেলা ওশাদা ফার্নান্দো৷ আর প্লেয়ার অব দ্য হয়েছেন মাত্র চার ম্যাচের অভিজ্ঞতা নিয়ে সিরিজ শুরু করা ভানুদি৷ প্রতিষ্ঠিতরা নেই বলে শ্রীলঙ্কার কিন্তু বিশ্বসেরা পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করতেও কোনো অসুবিধা হয়নি৷ তাহলে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ কেন পারবে না? না পারার কোনো কারণ নেই৷ ম্যাচের আগে মনের বাঘে খেয়ে ফেললেই শুধু সমস্যা৷ ভারতের বিপক্ষে অনেকবারই তীরে গিয়ে তরী ডুবেছে বাংলাদেশের৷ এবার সেই গেরোটা খুলতে হবে৷ সাকিব, তামিমের অভাব পূরণ করতে হবে সামষ্টিক পারফর্ম্যান্সে৷নিজেদের শক্তি, সামর্থ্যের ওপর আস্থা রেখে মাঠে খেলতে হবে পজিটিভ ক্রিকেট৷ টেস্ট ক্রিকেটে বরাবরই বাংলাদেশ একটু দুর্বল৷ এতদিন দেশের মাটিতে দুর্বলতাটা ঢাকা যেতো৷ আফগানিস্তানের বিপক্ষে সবশেষ ম্যাচে তা-ও সম্ভব হয়নি৷ সাকিবের উপস্থিতিও পারেনি রশিদ খানদের জয় ঠেকাতে৷ সুতরাং ভারতের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে খুব ভালো করা একটু কঠিন৷ তবে ব্যাটসম্যানরা খেলাটা যে পাঁচদিনের, সেটা মনে রেখে সেশন ধরে ধরে ব্যাট করলে সেখানেও কিছু অর্জনের আশা থাকবেই৷ ভালো একটা স্কোর পেলে বোলাররাও কিছু একটা করে দেখার প্রেরণা পাবেন৷ হোক না, টেস্ট ক্রিকেটে এ মুহূর্তে এক নাম্বার দল ভারত৷ মাশরাফির ‘ধরে দেবানে’ মানসিকতা নিয়ে খেললে ভারত থেকে অন্তত মাথা নীচু করে ফিরবে না মাহমুদুল্লাহ আর মুমিনুলের দল৷

আপনার মতামত লিখুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ