সোমবার-৩০শে মার্চ, ২০২০ ইং-১৬ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৬:৫৪, English Version
উমাদিনী ত্রিপুরার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক ডোমার পৌর শহরে চলছে জীবাণু নাশক ছিটানো কার্যক্রম। লালপুরে দুস্থদের মাঝে নিজ উদ্যোগে খাবার সামগ্রী বিতরণ পার্বতীপুরে করোনা ঠেকাতে আদা, লং, কালিজিরার চা খাওয়ার গুজব! চাঁপাইনবাবগঞ্জে খেটে খাওয়া গরীব দুঃখি মানুষের মাঝে চাল বিতরণ শুরু ‘করোনা চিকিৎসায় ২৫০ ভেন্টিলেটর প্রস্তুত’ সংবাদপত্র সংক্রান্ত সকল ধরনের কাজ পরিচালনায় কোনো বাধা নেই

জলঢাকায় ‘আলোর কণা’র সাপ্তাহিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত”

প্রকাশ: শনিবার, ২৬ অক্টোবর, ২০১৯ , ৫:৪২ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,
রবিউল ইসলাম রাজ,স্টাফ রিপোর্টারঃ
নীলফামারীর জলঢাকায় সামাজিক সংগঠন আলোর কণা’র ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সাপ্তাহিক কুইজ ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা হয়েছে।শুক্রবার সকালে দুন্দিবাড়ী কেন্দ্রে এ প্রতিযোগিতা হয়।প্রতিযোগিতা শেষে পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনা সভা হয়েছে।অনুষ্ঠানে আলোর কণা’র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফুরাদ হোসেন এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন,সহ-সভাপতি আতিক আক্তার সহ আলোর কণার ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রের সহকারি শিক্ষিকাবৃন্দ প্রমূখ।প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা যায়,এ সপ্তাহের প্রতিযোগিতায় প্লে শ্রেণীতে ১ম রিফাত,প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করেন সাব্বির,দ্বিতীয় শ্রেণীতে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে ইতি মণি,
তৃতীয় শ্রেণীতে কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন সুশীল,চতুর্থ শ্রেণীতে কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন তুশিতা,পঞ্চম শ্রেণীতে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন নিপা আক্তার,ষষ্ঠ শ্রেণীতে কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন মুন্নি আক্তার।উল্লেখ্য,অরাজনৈতিক সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘আলোর কণা’। ২০১২ সালে কর্মোদ্দীপনা ফুরাদ হোসেনের নেতৃত্বে শিক্ষিত যুবক/যুবতী মাধ্যমে আত্নমানবতার সেবায় সংগঠনটি আত্নপ্রকাশ পায়। এ সংগঠনটির মাধ্যমে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ,নারী ও শিশু নির্যাতন রোধ,বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি,গ্রামীন নারীদের সচেতন করাসহ সেচ্ছায় রক্তদানে উৎসাহিত করে থাকে। এ সংগঠনের আওতায় ২০১৫ সালে জলঢাকা উপজেলা উত্তর দিকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দুরে দুন্দিবাড়ী অজোপাড়া গ্রামে একটি ফ্রি পাঠদান কেন্দ্র চালু করে।এখানে অসহায় পরিবারের সহস্রাধিক শিশুরা পড়তে আসে।উপজেলার প্রতি ইউনিয়নে ১১টি ফ্রি পাঠদান কেন্দ্র চালু আছে। প্রতিটি কেন্দ্রে প্রায় ১ শত করে মোট ১ হাজার ছাত্র ছাত্রী আছে। প্রত্যেক সপ্তাহের ক্লাস শেষে শিশুদের মেধা মূল্যায়নের জন্য কুইজ,রচনা,চিত্রাঙ্কন,বক্তৃতা,সাধারণ জ্ঞান,সুন্দর হাতের লেখা ও বঙ্গবন্ধু জীবনী নিয়ে প্রতিযোগিতা হয়ে থাকে। প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কারও দেয়া হয়।সংগঠনটি টিনসেটে ঘেরা। এখানে ১টি শ্রেণী কক্ষ,সততা স্টোর,মানবতার দেয়াল আছে। ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রটি দেখতে প্রতি সপ্তাহে বিভিন্ন পেশার মান্যগণ্য ব্যক্তিরাও অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন । আলোর কণা’র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফুরাদ হোসেন বলেন,আমি স্বপ্ন বুনি আলোর কণাকে বিশ্বদরবারে পৌঁছে দিবো।আসুন সবাই মিলে ঝরেপড়া অসহায় শিশুদের স্কুলমুখী করি,সুস্থ্য সুন্দর সমাজ গড়ি। এ জন্য সকলের আন্তরিকতা ও সাহায্য সহযোগিতা চাই।’আলোর কণা’ শিক্ষা ক্ষেত্রে উৎসাহ দেয় মাত্র।
আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ