মঙ্গলবার-১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং-৫ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১০:২৭, English Version
পার্বতীপুরে ১ মার্চ জাতীয় বীমা দিবস পালন করবে সন্ধানী লাইফ ইনস্যুরেন্স সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করার অঙ্গিকার করলেন এ্যাড. স্মৃতি বিরামপুর পৌরসভার তিন কোটি ১১ লক্ষ টাকা ব্যায়ে মার্কেট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ॥ ঐতিহ্যবাহী দেওয়ানজীদিঘী পুকুরের দাবীতে মানববন্ধন ও পোনা মাছ অবমুক্তকরণ॥ জলঢাকায় শাহজাহান খাঁনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ বরিশালে র‌্যাবের অভিযানে ৮ মাদক ব্যবসায়ী আটক

অটো রাইস মিলে নিহতের পরিবার পেলেন ক্ষতিপূরণ

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১ অক্টোবর, ২০১৯ , ৩:০০ অপরাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

মোঃ আফজাল হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি
দিনাজপুরের হাসের মোহাম্মদ (এইচ এম) অটো রাইস মিলের কর্মচারী মো. মোমিনুল ইসলাম (৩০) বিদ্যুৎ স্পৃষ্ঠ হয়ে মারা যাওয়ায় ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২ লাখ টাকার চেক নিহতের পরিবারকে হস্তান্তর করেছেন হাসের মোহাম্মদ অটো রাইস মিলের মালিক আজিজুল ইকবাল চৌধুরী। সোমবার বিকালে দিনাজপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কক্ষে দিনাজপুর কলকারখানা ওপ্রতিষ্ঠান পরির্দশন অফিদফতরের উপমহাপরির্দক মো. মোস্তাফিজুর রহমানের উপস্থিতিতে নিহতের পরিবারকে এই চেক হস্তান্তর করেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্স এর সিনিয়র সহসভাপতি মোছাদ্দেক হোসেন চৌধুরী পাপ্পু, দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সহসভাপতি মানবেন্দ্র দাস মনোজ, জেলা চাউল কল মালিক গ্রুপের সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবু ইবনে রজব। নিহতের পরিবারের পক্ষে চেক গ্রহণ করেন মোমিনুল ইসলামের স্ত্রী মোছা. রানী বেগম ও তার বাবা মোহাম্মদ আলী। জানা যায়, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের ৩ তারিখে হাসের মোহাম্মদ অটো রাইস মিলে কর্মরত অবস্থায় বিদ্যুতের শক সার্কিটে নিহত হন মিলের কর্মচারী সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউনিয়নের নয়নপুর এলাকার মো. মোমিনুল ইসলাম। হাসের মোহাম্মদ অটো রাইস মিলের মালিক আজিজুল ইকবাল চৌধুরী বলেন, ‘আমার অটো রাইস মিলে কর্মরত অবস্থায় মোমিনুল ইসলাম বিদ্যুতের শক সার্কিটে মারা যান। শ্রম আইন অনুযায়ী নিহতের পরিবারকে ২ লাখ টাকা প্রদান করি। নিহতের পরিবারের জন্য ভবিষ্যতেও কিছু করতে পারলে আমারও ভালো লাগবে বলেও জানান তিনি।’ এবিষয়ে নিহত মোমিনুল ইসলামের স্ত্রী মোছা. রানী বেগম বলেন, ‘আমার ছোট ছোট দুটি বাচ্চা আছে। আমার জন্য যদি স্থায়ী যেকোন চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়া হয় তাহলে আমার সন্তানদের ভবিষ্যৎ হত। সবার কাছে অনুরোধ থাকবে আমার জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দেওয়া।’ দিনাজপুর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরির্দশন অফিদফতরের উপমহাপরির্দশক মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কলকারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের জন্য যে আইন আছে সেই অনুযায়ী নিহতের পরিবারকে অর্থ আদায় করে দেওয়া হয়েছে। সরকারিভাবে
আরো কিছু সুযোগ থাকলে সেটাও আমরা ব্যবস্থা করতে সাহায্য করব।’

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ