শুক্রবার-৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং-২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ১০:১৫, English Version
মহামারি করোনায় ওমর সানি প্রশ্ন করলনে—শাকিব তুই চুপ কেন পলাশবাড়ীতে নিরলসভাবে কাজ করছে ক্যাপ্টেন সাদিকের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী টিম সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সেনাবাহিনীর আহ্বান লালমনিনরহাটের পঞ্চগ্রামের হাট বাজার ও রাস্তা গুলোতে ঔষধ ছিটানো হচ্ছে বাগেরহাটে সামাজিক দূরত্বে কৃষি কাজ অসহায় ও অসচ্ছলদের পাশে দাঁড়িয়েছেন-অপু বিশ্বাস করোনার ভ্যাকসিন তৈরির পথে অস্ট্রেলিয়া

বন্যার পানি ঢোকায় সাঘাটায় ৪৩ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৯ , ৮:৫৬ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকায় শিা প্রতিষ্ঠান গুলোতে পানি ঢুকে পড়েছে। নদী বেষ্টিত চরাঞ্চল সহ বন্যা কবলিত গ্রাম গুলোর ৪৩ টি শিা প্রতিষ্ঠানে সাময়িক পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

গত কয়েক দিন ধরে অবিরাম বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে যমুনায় পানি অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে। উপজেলার ৪ ইউনিয়নের ২৫ টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সরে জমিনে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পূর্বাংশে ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। সাঘাটা ইউনিয়নের উত্তর সাথালিয়া গ্রামের সোনাইল বাঁধ বন্যার ¯্রােতে ভেঙ্গে গিয়ে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। গত শনিবার থেকেই বন্যার কারনে শিা প্রতিষ্ঠান ও রাস্তায় পানি উঠতে শুরু করে। স্কুলগুলোতে পানি ওঠার ফলে শিার্থীদের স্কুলে যাওয়া-আসার পরিবেশ নেই। কোমলমতি শিার্থীদের নিরাপত্তার বিষয় বিবেচনা করে উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর, বেড়া, গাড়ামারা, দীঘলকান্দি, পাতিলবাড়ি, গুয়াবাড়ি, কালুরপাড়া, কানাই পাড়া, কুমারপাড়া, জুমারবাড়ি ইউনিয়নের কাঠুর, থৈকরের পাড়া, র্প্বূ আমদির পাড়া, ঘুড়িদহ ইউনিয়নের চিনিরপটল, খামার পবনতাইড়, সাঘাটা ইউনিয়নের হাটবাড়ি, গোবিন্দী, বাঁশহাটা, দণি সাথালিয়া, হাসিলকান্দি, ভরতখালি ইউনিয়নের ভরতখালী, বরমতাইড় ও ভাঙ্গামোড়সহ বন্যা কবলিত গ্রাম গুলোর ৩৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৬ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ২টি মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। দিঘলকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক শহিদুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের মাঠ ও শ্রেনীকে পানি ওঠায় কাশ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। উপজেলা প্রাথমিক শিা অফিসার আজিজুর রহমান জানান, পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিদ্যালয় ভবন গুলোতে পাঠদানের পরিবেশ নেই। কবলিত এলাকার শিা প্রতিষ্ঠান গুলো গত রোববার থেকে বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো মোখলেছুর রহমান জানান, গত ১২ ঘন্টায় ব্রহ্মপুত্র ও যমুনার পানি ১৮ সে.মি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৮৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সাঘাটা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিঠুন কুন্ডু জানান, সরকারীভাবে বন্যা দূর্গত এলাকায় জরুরী ভিত্তিতে ৫০ মে.টন চাল ও শুকনা খাবার চেয়ারম্যানদের বিতরণের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ