শুক্রবার-২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং-৮ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ২:১৯, English Version
ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা মহান শহীদ দিবস ও মাতৃভাষা দিবসে গাইবান্ধায় দেশসেরা কামেরাবন্দি ওরা দু ভাই স্মৃতির মিনারে লাখো জনতার ঢল আগামীকাল মহান ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ চিরিরবন্দরে জেলা পরিষদ ডাক বাংলো ভবনের উদ্বোধন লালমনিরহাটের প্রায় দেড় হাজার বছরের পুরোনো ঐতিহাসিক হারানো মসজিদের পুন:নির্মাণ ফুলবাড়ীর ঢাকা মোড়ে উত্তর পশ্চিম কোনে রাস্তা প্রসস্ত করনের দাবীতে ঘন্টা ব্যাপি এলাকাবাসীর মাববন্ধন॥

ভারতে নোট বাতিল: দিশেহারা বাংলাদেশিরাও!

প্রকাশ: বুধবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৬ , ৫:৪৭ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : অর্থনীতি,

যেসব বাংলাদেশি ব্যাংকের ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড ব্যবহার করেন, তাঁরা অনেকটা রক্ষা পেয়েছেন। কারণ, প্লাস্টিক টাকা সবখানে সচল। তবে বাস, মেট্রো বা ট্যাক্সি ভাড়া কার্ডে দেওয়া যায় না। ছোট রেস্টুরেন্টে খাওয়ার বিল কার্ডে নেওয়া হয় না। এসব জায়গায় কার্ডধারীরাও সুবিধা করতে পারছেন না। এটিএম মেশিনেও সীমিত টাকা পাওয়া যায়। বেশির ভাগ এটিএম মেশিন নগদ টাকার অভাবে বন্ধ।

কলকাতার ডেপুটি হাইকমিশনের উচিত ছিল, এ সময় জরুরি প্রয়োজন বা আমন্ত্রণ ছাড়া বাংলাদেশি নাগরিকেরা যাতে ভারত বা কলকাতা সফর না করেন—এই মর্মে বাংলাদেশে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা। শুধু কলকাতার ডেপুটি হাইকমিশন কেন, দিল্লির বাংলাদেশ হাইকমিশনেরও এ ব্যাপারে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা উচিত ছিল। আসলে এই সরকারি অফিসগুলো সরকারি মন্ত্রী, এমপি, ভিআইপি বা আমলাদের বিষয় ছাড়া সাধারণ মানুষের সমস্যা সম্পর্কে তেমন আগ্রহী নয়। একমাত্র ভিসা দেওয়া ছাড়া।

প্রশংসনীয় কাজ করছে সোনালী ব্যাংক কলকাতা শাখা। তারা এই দুঃসময়ে ভ্রমণরত প্রত্যেক বাংলাদেশি নাগরিককে পাসপোর্টপ্রতি ১০০ ডলারের বিনিময়ে ভারতীয় মুদ্রা দিচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন প্রমাণ করতে পারলে দু-তিন শ ডলারের বিনিময়েও রুপি দিচ্ছে। এই ১০০ ডলার ভাঙানোর জন্য ভোর ছয়টা থেকে হো চি মিন সরণিতে সোনালী ব্যাংক শাখায় বাংলাদেশি নাগরিকেরা লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রুপি দেওয়া হচ্ছে। সোনালী ব্যাংকের সীমাবদ্ধতার কথা ব্যাংকের সিইও আলী মর্তুজা জানালেন, তাঁরা চাহিদামতো ভারতীয় রুপি (১০০ টাকার নোট) ‘রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া’ থেকে পাচ্ছেন না। ফলে সোনালী ব্যাংক পর্যটকদের চাহিদামতো ডলারও বিনিময় করতে পারছে না।

ভারত সরকার নোট বাতিলের পাশাপাশি অনেক রকম ‘ছাড়’ দিয়েছে, যাতে সাধারণ মানুষ একেবারে অসহায় হয়ে না পড়েন। প্রতিদিনই নতুন নতুন ‘ছাড়’ ঘোষণা করা হচ্ছে। এগুলো প্রশংসনীয়। কিন্তু আমরা জানি, ভারত একটি ‘পর্যটনবান্ধব’ দেশ। ভারতের অনেক শহরে প্রায় সারা বছর পর্যটকে গিজগিজ করে। নোট বাতিলের এই আকস্মিক ঘোষণায় অনেক পর্যটক বড় রকম সমস্যায় পড়েছেন। অনেকে ভারত ছেড়ে দ্রুত অন্য দেশে চলে যাচ্ছেন। ভারত সরকারের নীতিনির্ধারকেরা বিদেশি পর্যটকের কথা একেবারেই ভাবেননি। বাতিল নোট-সংক্রান্ত নানা ‘ছাড়ের’ মধ্যে ভারতে পর্যটনরত (ও চিকিৎসার জন্য) গত কয়েক মাসের মধ্যে যাঁরা ভারতে প্রবেশ করেছেন, (পাসপোর্ট দ্রষ্টব্য) তাঁদের প্রতি শহরের একটি নির্দিষ্ট ব্যাংকে অন্তত ৫০০ ডলার বদলানোর সুযোগ দেওয়া উচিত ছিল। এতে বহু পর্যটকের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান হতো, পর্যটকেরা ভারত সরকারের প্রতি ক্ষুব্ধ হতেন না। তবে বেশির ভাগ (প্রায় ৯০ শতাংশ) বিদেশি পর্যটকের (বাংলাদেশি কম) নানা রকম প্লাস্টিক কারেন্সি থাকে, সেটাই রক্ষা।

আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ