শুক্রবার-২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং-৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:১৫, English Version
বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট ম্যাচ দেখতে কাল কলকাতা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিকে বড় সুখবর আসছে ছাতকে ক্যান্সার আক্রাকে মাকে বাঁচাতে মেয়ের আকুতি চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশ লাইন্স মিলনায়তনে জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত গোবিন্দগঞ্জ প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরন সৈয়দপুরে ইউএনও কে পৌর পরিষদের বিদায়ী সংবর্ধনা চাঁপাইনবাবগঞ্জে দিনব্যাপী বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

জলঢাকায় মাদ্রাসাসহ দুই পরীক্ষা কেন্দ্র ভবন সংকটে ধুকছে,শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতেছে টিনসীটের টাম্বু কক্ষে”

প্রকাশ: রবিবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ , ৫:১৯ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : রংপুর,সারাদেশ,

রবিউল ইসলাম রাজ,জলঢাকা প্রতিনিধি:

সারাদেশের ন্যায় নীলফামারীর জলঢাকায় মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি),দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষা শনিবার সকাল ১০টায় শুরু হয়ে দুপুর ১টায় শেষ হয়েছে। এই লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ২৫ ফেব্রুয়ারি। সাধারণত বিগত বছরগুলোতে দেখা গেছে ১ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষা শুরু হয়। কিন্তু এবারে ১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার হওয়ায় একদিন পর পরীক্ষা শুরু হয়েছে। উপজেলার পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো ঘুরে দেখা যায়,নকলবিহীন পরিবেশে শিক্ষার্থীরা নির্ভয়ে পরীক্ষায় খাতায় লিখতেছে। একমাত্র মাদরাসা পরীক্ষা কেন্দ্র ছিটমীরগন্জ শালনগ্রাম ফাজিল মাদরাসা। কেন্দ্রটি ভবন সংকট থাকায় মাঠের মধ্যে টিনসিটের ছাউনী কক্ষ তৈরী করে পরীক্ষা নিতেছে কর্তৃপক্ষ। একেন্দ্রে এবারে ৭শত ৬৪জনের মধ্যে ২২জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত দেখা যায়,। এসময় কেন্দ্র সচিব ও অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল রশীদ বলেন,উপজেলার একমাত্র মাদরাসা পরীক্ষা কেন্দ্র আমাদের এই মাদরাসা। পরীক্ষা আসলে এই সমস্যায় পড়তে হয়।ভবন তৈরী ব্যাপারে প্রশাসনের কোন পদক্ষেপ নাই।আমার কোন উপায় অন্তর খুজে না পেয়ে টিনসীটের কক্ষ তৈরী করে পরীক্ষা নিতেছি। তবে আমরা আশাবাদী সরকার একটা ভবনের ব্যবস্থা করে দিবে।

এধারনের সমস্যার পড়েছে অপর আর এক কেন্দ্র জলঢাকা মডেল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। মাঠের মধ্যে সায়মেনা টাম্বুর কক্ষে পরীক্ষা দিতেছে পরীক্ষার্থীরা। এ কেন্দ্রে ১হাজার ৪০জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র ১জন অনুপস্থিত পাওয়া যায়। এই কেন্দ্রের দায়িত্ব প্রাপ্ত বালাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়েরর সহকারী শিক্ষক নাজমুল হুদা অনুস্থিত ছিলেন।ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিক ও কেন্দ্র সচিব রাফিয়া আক্তার বলেন,এক শিক্ষকসহ ২জন অনুপস্থিত ছিলো। এ ছাড়া মনোরম পরিবেশে প্রথম দিনের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু ভবন সংকট থাকার কারনে নিরুপায় হয়ে খোলা আকাশের নিচে সায়মানা টাম্বু টাঙ্গিয়ে পরীক্ষা নিতেছি। আমাদের বিদ্যালয়ে জরুরী ভিত্তিতে একটি ভবন দরকার। এদিকে জলঢাকা মডেল পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৯শত ৮৯জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫জন অনুপস্থিত পাওয়া যায়। কেন্দ্র সচিব প্রধান শিক্ষক আমিনুর রহমান বলেন,পরীক্ষার পরিবেশ খুবেই সন্তোষজনক ছিলো।অপরদিকে,টেংগনমারী বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮শত ৬জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৮শত ৬জনে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেছে।কেন্দ্র সচিব রেজাউল আলম বলেন,আমাদের কেন্দ্রে শতভাগ পরীক্ষার্থী উপস্থিত হয়েছে। এবং মীরগন্জহাট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ৮শত ৩৪জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২২জন অনুপস্থিত দেখা যায়।

এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এর সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি বলেন,আমি ট্রেনিং এ আছি।জেনেছি পরীক্ষা শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে।

এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা বলেন,প্রতিটি পরীক্ষা কেন্দ্র প্রশাসন কড়া নজরে রেখে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোন রকম সমস্যা হয়নি।কিন্তু একটি কেন্দ্রে একজন দায়িত্ব প্রাপ্ত শিক্ষক অনুপস্থিত।কেন শিক্ষক অনুপস্থিত?এমন প্রশ্নে তিনি বলেন,সে সুস্থ না অসুস্থ খোজ নিয়ে সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। প্রথম দিনের পরীক্ষা সুষ্ঠু হয়েছে।যে সকল কেন্দ্রে ভবনের সমস্যা কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দ্রুত সমাধান করার চেষ্টা করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ