মঙ্গলবার-১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং-২রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ১:৩০
বিকেলে ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী হাউডি মোদি’ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন ট্রাম্প! শৈলকুপায় সাঁপের কামড়ে দুই ভায়ের মৃত্যু মানুষের সেবা করার ব্রত নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী পার্বতীপুরে ৫হাজার বৃক্ষ বিতরণ মহিমাগঞ্জ ইউপি’র উপ-নির্বাচনে রুবেল আমিন শিমুল চেয়ারম্যান নির্বাচিত অভিবাসন ব্যয় কমানোর লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার — প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী

চাকরি হারা এমএসএফ কর্মী মরিয়মের মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

প্রকাশ: শনিবার, ২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ , ৫:১৭ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ : চট্রগ্রাম,সারাদেশ,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: চাকরি হারিয়ে একজন নারী এনজিও কর্মীর আকস্মিক মৃত্যু ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে এলাকায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক অত্যন্ত সক্রিয় হয়ে উঠেছে এই নারী কর্মীর মৃত্যু নিয়ে।

অভিযোগ উঠেছে, সীমান্তবিহীন চিকিৎসা শ্লোগান নিয়ে এমএসএফ হল্যান্ড নামের একটি আন্তর্জাতিক এনজিও চাকরিচ্যুত করার পরই এই নারী কর্মীর মৃত্যু ঘটে। মরিয়ম নামের এই নারী কর্মী চাকরি করতেন এমএসএফ হল্যান্ড নামের এনজিওটিতে। বৃহস্পতিবার তাকে আকস্মিক চাকরিচ্যুত করা হয়। এর কয়েক ঘণ্টা পর রাতেই বুকের ব্যথায় কাতর হয়ে পড়ে। গতকাল শুক্রবার সকালে তাকে কক্সবাজারে হাসপাতালে নেওয়ার সময় তার মৃত্যু ঘটে।

জানা গেছে, মৃত্যুর শিকার এই নারীর নাম মরিয়াম বেগম। উখিয়া উপজেলার রাজা পালং ইউনিয়নের দরগাহবিল গ্রামের মৃত দুধু মিয়ার কন্যা তিনি। বেশ কয়েক মাস আগে হতভাগি এই নারীর বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে। তার দুই সন্তান রয়েছে। দরিদ্র পরিবারের হতভাগি এই নারী চাকরি নেন এমএসএফ হল্যান্ড নামের এনজিওটিতে। চাকরির টাকায় দুই সন্তানের খাবার জুটত দরিদ্র বাবার ঘরে। কিন্তু চাকরিচ্যুতির পর তার স্বপ্ন খান খান হয়ে যায় বেঁচে থাকার।

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী গত রাতে জানান, মরিয়ম নামের এনজিও কর্মীর মৃত্যু অত্যন্ত হৃদয়বিদারক ঘটনা। তিনি বলেন, ‘আমি খবর নিয়ে জেনেছি, চাকরিচ্যুতির পর মরিয়ম ঘরে এসে মন খারাপ করে শুয়ে পড়ে। রাতে এক পর্যায়ে বলে তার বুক ব্যথা করছে। তাকে কক্সবাজারে হাসপাতালে নেওয়ার সময় গতকাল শুক্রবার সকালে তার মৃত্যূ ঘটে।’

এলাকার লোকজন জানান, মরিয়মের একজন মাত্র ভাই রশিদ। তিনিও মাত্র ৪ দিন আগে ভাগ্যের অন্বেষণে পাড়ি জমান সৌদি আরব। মরিয়মের মৃত্যুর পর গ্রামের লোকজনের ভাবনা হচ্ছে-হতভাগি মায়ের মৃত্যুর পর এই দুই শিশুর এখন কি হবে?

প্রসঙ্গত, গত বেশ কিছুদিন ধরে এনজিওগুলো স্থানীয় কর্মীদের ছাঁটাই করছে। এ কারণে উখিয়া-টেকনাফ তথা কক্সবাজারের স্থানীয় কর্মীদের ছাঁটাই বন্ধ করার জন্য এবং স্থানীয়দের চাকরি নিশ্চিত করার দাবিতে আন্দোলন-সংগ্রামে রয়েছে এলাকাবাসী। এমন সময়ে ঘটে যাওয়া নারী কর্মীর মৃত্যুর বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে।

উখিয়া-টেকনাফ বাঁচাও আন্দোলনের আহবায়ক এবং স্থানীয় বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ সিকদার গতরাতে বলেন, মরিয়মের আকস্মিক মৃত্যুর খবর ফেসবুকে পেয়ে তিনি সরেজমিন এলাকায় গিয়ে ঘুরে এসেছেন। নুর মোহাম্মদ সিকদার জানান, আকস্মিক চাকরি হারিয়ে স্বামী পরিত্যক্তা হতভাগি নারী তার দুই শিশু সন্তান নিয়ে কোথায় যাবেন-এমনই হতাশা কাজ করেছে বলে তিনি শুনেছেন।

তিনি বলেন, গত ২৮ বছর ধরে কক্সবাজার তথা উখিয়ায় রোহিঙ্গা নিয়ে কাজ করছে এনজিওটি। বরাবরই এনজিওটি অত্যাচার-নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার। এমনকি কুকুর মারার কাজটিও পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানের কাছে বড় অপরাধ হিসাবে গণ্য করা হয়। অথচ এরকম একটি ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে এনজিওটির কর্মীরা সংবাদকর্মীদের কোনো সাক্ষাৎ দিতে রাজি হয় না। এ কারণেই তাদের বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি সূত্র: কালের কন্ঠ

আপনার মতামত লিখুন

চট্রগ্রাম,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ