বুধবার-২৬শে জুন, ২০১৯ ইং-১২ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:৩৮
পাইলট অভিনন্দনের গোঁফকে ‘জাতীয় গোঁফ’ ঘোষণার দাবি পার্লামেন্টে! অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য বাংলাদেশ এখন অনন্য উচ্চতায় পার্বতীপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি’র মৌলিক ও মানবাধিকার বিষয়ে দিনব্যাপি কর্মশালা জলঢাকায় ফারাজ হোসেন এর স্মরণে ডিসিআই ও আরএসসির দিনব্যাপি ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা “ বান্দরবানের জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা ডিজিটাল হাজিরা অনিশ্চিত মহেশপুরের ১৫২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ঢাকায় নিয়োগ দেবে সিভিসি ফাইন্যান্স

হয়রানি ও চাঁদাবাজি : ফরিদপুরে দুই পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

2 years ago , বিভাগ : ঢাকা,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: হয়রানি ও চাঁদাবাজির অভিযোগে ফরিদপুরের চরভদ্রাসন থানার দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে এক আদেশে ফরিদপুরের পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহা চরভদ্রাসন থানার ওই দুই কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করে ফরিদপুর পুলিশ লাইনসে ক্লোজ করার আদেশ দেন। প্রত্যাহার হওয়া কর্মকর্তারা হলেন, উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইদুর রহমান ও সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) নেছার উদ্দিন।

এলাকাবাসীকে মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করছে এমন অভিযোগ নিয়ে শনিবার দুপুরে চরভদ্রাসন সদর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আজাদ খান ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে এক প্রতিবাদ সভা করেন। দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. কাওছার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শফিউদ্দিন খালাসী ও হাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. শহিদুল ইসলাম।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম ঘটনাস্থলে যান। এ সময় প্রতিবাদকারীরা তার মাধ্যমে পুলিশ সুপারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ জানান।

লিখিত অভিযোগে জানানো হয়, সম্প্রতি ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা এমপি ডাঙ্গি গ্রামের মো. ওবায়দুর রহমানকে মামলার ভয় দেখিয়ে ৯০ হাজার, বাছারডাঙ্গি গ্রামের রবিউলের কাছ থেকে ২০ হাজার এবং রানা প্রামাণিকের কাছ থেকে ১০ হাজার, লোহারটেক গ্রামের কুটি মোল্লার কাছ থেকে ১৫ হাজার, শিমু আক্তারের কাছ থেকে ১০ হাজার ও এমারত খানের কাছ থেকে ৫ হাজার, স্বর্বান্দিয়া গ্রামের শফিকুলের কাছ থেকে ২০ হাজার, টিলারটর গ্রামের শাহজাহান খানের কাছ থেকে ৬০ হাজার, আব্দুল মজিদ খানের ডাঙ্গি গ্রামের রায়হান খানের কাছ থেকে ৮ হাজার টাকাসহ এলাকার অনেক নিরীহ ব্যক্তির কাছ থেকে চাঁদাবাজি করে আসছেন।

তবে প্রত্যাহার হওয়া এসআই সাইদুর রহমান তার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কখনও অন্যায় আচরণ বা কাউকে হয়রনি করিনি। আমরা মদকের ব্যাপারে সোচ্চার ছিলাম। ইউপি চেয়ারম্যানের এক চাচাতো ভাইকে সার্চ করার সে ক্ষুব্ধ হয় ও আমার সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। এরপর থেকে ইউপি চেয়ারম্যান আমাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনেছেন, যার কোনো ভিত্তি নেই।

ফরিদপুররের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আমিনুল ইসলাম জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো তদন্ত হচ্ছে, যদি দোষী হয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

ঢাকা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ