বুধবার-২২শে মে, ২০১৯ ইং-৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ২:৫৭
ফুলবাড়ীতে ব্রি ধান ৫০ উৎপাদনে কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত॥ চিরিরবন্দরে উন্মুক্ত লটারির মাধ্যমে ধান সংগ্রহে কৃষকের নাম বাছাই জলঢাকায় বজ্রপাতে একজনের মৃত্যু ইসলামী ব্যাংক সৈয়দপুর শাখায় শিক্ষা উপকরণ বিতরণ সৈয়দপুর পৌরসভার বৃত্তি পরীক্ষার সনদপত্র ও চেক বিতরণ অনুষ্ঠিত ফুলছড়িতে  ৫ প্রতিষ্ঠানের ৭ হাজার টাকা জরিমানা  গোবিন্দগঞ্জে গ্রীল কাটার যন্ত্রপাতি ও ইয়াবাসহ ২ জন আটক

সাদুল্যাপুর স্বামীর ছুঁড়া এসিডে নাবালিকা বধুর পুড়ে গেল নিন্ম অংগ

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরে স্বামীর নির্মম নির্যাতনের স্বীকার নাবালিকা বধু শরিফা।
পাষন্ড স্বামীর এসিড জাতীয় দাহ্য তরল পদার্থে ১৪ বছরের নাবালিকা গৃহবধু শরীফার নিম্নঅংগ পুড়ে।  চিকিৎসার জন্য  এখন রংপুর হাসপাতালে।
 পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে, সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট তিলকপাড়া গ্রামের শরিফুল ইসলাম ওরফে সফু মিয়ার ১৪ বছরের নাবালিকা কন্যা শরিফার  ছ’মাস পূর্বে বিয়ে হয় পাশ্ববর্তী পীরগঞ্জ উপজেলার চতরাহাট সিপটারি গ্রামের ইউনুছ আলীর পুত্র হাসানুরের সঙ্গে। দু’সন্তানের জনক  হাসানুর  তার প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়ে তথ্য গোপন করে নাবালিকা শরিফাকে বিয়ে করে। ছ’মাস যেতে না যেতেই শরিফার উপর নেমে আসে অমানুষিক শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন।
যৌতুক লোভী জামাই হাসানুর হতদরিদ্র শ্বশুর শরিফুল ইসলাম ওরফে সফু মিয়াকে মোটা অংকের টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করে টাকা না পেয়ে শরিফার উপর প্রায়ই কারনে অকারনে হাসানুরসহ তার বাড়ীর লোকজন শারীরিক নির্যাতন করে এবং শরিফাকে বলে তোর বাবা টাকা না দিলে আমি আগের স্ত্রীকে বাড়ীতে আনবো। এ নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মাঝে প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ চলে আসছিল।
এরই জের ধরে গত ১৪ এপ্রিল শনিবার রাতে ধুরন্দর স্বামী হাসানুর স্ত্রী শরিফাকে কৌশলে ঘুমের ট্যাবলেট খাওইয়া ঘুমের ভিতর নাবালিকা গৃহবধুর নাভীর নিজ হইতে গোপনাঙ্গ পর্যন্ত এক ধরনের তরল দাহ্য পদার্থ ঢেলে দেয়। ঘুম থেকে জেগে তার স্ত্রী শরিফা কান্না ও চিৎকার করতে থাকে। এক পর্যায়ে তার বাবার বাড়ীতে খবর দিলে শরিফার  বাবা ও মা তাকে বাড়ীতে এনে চিকিৎসার জন্য প্রথমে পলাশবাড়ী হাসপাতালে ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়।
 বর্তমানে শরিফা রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছে। ধুরন্দর পাষন্ড স্বামী হাসানুর এখন পর্যন্ত তার অসুস্থ স্ত্রীর কোন খোজ খবর নেননি বলে শরিফা জানান।
এ ব্যপারে মতামত নেয়ার জন্য অভিযুক্ত হাসানুরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায় নাই।
পীরগঞ্জ থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে ভূক্তভোগী পরিবার জানান। পীরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মাসুমুর রহমান মাসুম জানান বিষয়টি আমি অবগত নই। অভিযোগ পেলেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ