রবিবার-১৬ই জুন, ২০১৯ ইং-২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ১২:১৯
রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ ‘বিপদজনক’ হারে বাড়ছে নদ-নদীর পানি কারাবন্দিদের জন্য তৈরি হলো নতুন মেন্যু বাজেটে হিসাবের বাইরে মধ্যবিত্ত বাজেটে তামাকপণ্যে উচ্চহারে কর চায় আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য বিভাগ ‘যুব সমাজকে মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে ব্যর্থ হলে তারা বোঝা হয়ে দাঁড়াবে’ মাসুদা এম রশীদের জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ স্থগিত

সাঘাটায় ঝুঁকিপূর্ণ ইউপি ভবনে কার্যক্রম

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা ঃ গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার ঘুড়িদহ ইউনিয়ন পরিষদ ভবন পুরাতন জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় চলছে কার্যক্রম । ভবনের ছাদের মাঝে মাঝে খোঁয়াসহ প্লাস্টার ধসে মরিচা পড়ে রড বেড়িয়েছে। চার পাশে দেয়ালের বিভিন্ন অংশে ধরেছে ছোটবড় অসংখ্য ফাটল। ছাদ চুয়ে পানি পড়ে দরজা জানালার কাঠ পঁচে ভেঙ্গে যাওয়াসহ রড গুলো মরিচা ধরে নষ্ট হয়ে গেছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এই ঝুঁকিপূর্ণ ভবনেই চলছে সংশ্লি­ষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম। ফলে যে কোনো মুহুর্তে ভবনটি ধসে পড়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ।
জানাযায়,উপজেলার ৬ নং ঘুড়িদহ ইউনিয়ন পরিষদের ভবনটি ১৯৮৫ সালে নির্মাণ করা হয়। ততকালীন দায়িত প্রাপ্ত ঠিকাদার নির্মাণ কাজে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহার করার কারণে অল্প সময়ে ভবনটি দুর্বল হয়ে পড়ে। দিন দিন বৃষ্টির পানি ভবনের ছাদ চুয়ে ঢালাইয়ের ভিতরে ঢোকার কারণে রডে মরিচা ধরাসহ প্লাস্টার দুর্বল হয়ে খসে পড়া শুরু হয় । এছাড়াও চার পাশের দেয়ালের প্লাস্টার দুর্বল হওয়ায় দেখা দেয় ফাটল। দরজা জানালার রড মরিচা ধরে নষ্ট হয়েছে কাঠের পাল্ল্যা চৌকাটগুলো পঁচে ভেঙ্গে গেছে। পরিষদে কাঠের তৈরী বিচারিক এজলাসও অনেক আগেই ভেঙ্গে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। বাথরুম ও টয়লেটের দরজা ভেঙ্গে গেছে, মেঝে প্লাস্টার উঠে মাটি বেড়িয়ে পড়েছে । জনগুরুত্বপূর্ণ ভবনটি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সরেজমিনে গতকাল ঘুড়িদহ ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের এই চিত্র দেখা যায়। ওই ইউনিয়ন পরিষদের ই- সেন্টারের উদ্যেক্তা রোস্তম মিয়া জানান, তথ্য কেন্দ্রের কটিতে কম্পিইটারসহ অনেক মুল্যবান যন্ত্রপাতি রয়েছে সেখানে ছাদের প্লাস্টার খসে ও পানি পড়ে কখনো কখনো ছাদের প্লাস্টার খসে মাথার উপর ও কম্পিউটার মনিটরের উপর পড়ে। এতে যে কোনো সময় মূল্যবান জিনিসসহ ও ফাইলপত্র নষ্ট হয়ে যেতে পারে। গ্রাম পুলিশ সুখনাল জানান, রাতে এ ভবনের মধ্যে থাকা জিনিস পত্র পাহাড়া দেওয়ার জন্য ভয়ে থাকতে হয়। ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই এ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যসহ সকল লোকজন চরম আতংকের মধ্যে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। কিন্তু জায়গার অভাবে কেউ ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেইনি। বর্তমানে পুরাতন ভবনটি পরিত্যক্ত করে আধুনিক ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উজ্জল কুমার ঘোষকে অবগত করাসহ জমি অধিগ্রহনের প্রক্রিয়াও চলছে । উপজেলা নির্বাহী অফিসার উজ্জল কুমার ঘোষের সাথে কথা হলে তিনি জানান, জমি পাওয়া গেলে ইউনিয়ন পরিষদের আধুনিক ভবন নির্মাণ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ