বুধবার-১৯শে জুন, ২০১৯ ইং-৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৯:২১
সার্কাসের হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি, হাতি-মাহুত আটক, জরিমানা বাজেট বইতে উঠে এসেছে মনিকার এখন নিজের থাকার একটা আশ্রয় হয়েছে এটাই শান্তি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে চলছে ভোট আর দুই মামলায় জামিন হলেই খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন : মওদুদ মাশরাফিদের ফের অভিনন্দন প্রধানমন্ত্রীর, সাকিব-লিটনের প্রশংসা সোনার দাম কমছে নওগাঁয় ৯৩৩ কোটি টাকার আম উৎপাদন

শাশুড়িকে মেরে আঙিনায় পুঁতে রাখল পুত্রবধূ

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:  শাশুড়িকে খুন করে বাড়ির আঙিনায় পুঁতে রেখেছে এক পুত্রবধূ। বুধবার দুপুরে রাজশাহীর তানোর উপজেলার প্রকাশনগর আদর্শ গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিকেলে ঘটনা জানাজানি হয়ে গেলে প্রতিবেশীরা দুই ছেলের বউকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাড়ির আঙিনার মাটি খুঁড়ে (শাশুড়ি) মোমেনা বেগমের (৪৫) লাশ উদ্ধার করে। আটককৃতরা হলো নিহতের ছোট ছেলে মুস্তাফিজুর রহমানের স্ত্রী সখিনা বেগম (২৩) এবং বড় ছেলে মৃত মমিনুলের স্ত্রী রিনা বেগম (২৬)। নিহত মোমেনা বেগম (৪৫) প্রকাশনগর আদর্শ গুচ্ছগ্রামের রমজান আলীর স্ত্রী।

এ ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার সকালে নিহতের ভাই আব্দুল হালিম (ভুট্টু) বাদী হয়ে সখিনা বেগমকে আসামি করে মামলা করেছেন। বেলা ১১টার দিকে আটককৃত পুত্রবধূ সখিনা বেগমকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তানোর উপজেলার মুণ্ডুমালা পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম জানান, ওই বাড়িতে মোমেনা বেগম ও তার ছোট ছেলে মোস্তাফিজুর রহমানের স্ত্রী সখিনা বেগম ছিলেন। মোমেনা বেগমের ছোট ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান ধান কাটার কাজে খুলনায় গেছেন।

আটক হওয়ার পরে সখিনা বেগম নিজেই হত্যার কথা স্বীকার করেন। তিনি জানান, সকালে বাড়িতে ধান শুকানোর সময় মুরগি এসে ধান খায়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তার শাশুড়ি মোমেনা বেগম তাকে মারপিট করেন। দুপুরে তার শাশুড়ি ঘুমায়। ওই সময় বাঁশ দিয়ে সখিনা বেগম শাশুড়ি মোমেনা বেগমের মাথায় আঘাত করে। এতে সঙ্গে সঙ্গে বিছানায় শোয়া অবস্থায় মোমেনা বেগম মারা যায়। ঘটনার পরে সখিনা বেগম খুনের ঘটনাটি গোপন রাখতে বাড়ির আঙিনা খুঁড়ে গর্ত করে মোমেনা বেগমকে মাটি চাপা দিয়ে রাখেন।

খুনের ঘটনা স্বীকার করতে সখিনা বেগম আরো জানান, মাটি চাপা দেওয়ার পরে পাশের বাড়িতে তার জা রীনাকে ঘটনা খুলে বলেন। কিন্তু রীনা ওই কথা বিকালের মধ্যে প্রতিবেশীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেন।

সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, খুনের ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে প্রতিবেশীরা স্থানীয় কাউন্সিলর আবুল বাশারকে খবর দেয়। সন্ধ্যার পরে কাউন্সিলর আবুল বাশার ও গ্রামবাসীরা নিহত মোমেনা বেগমের দুই ছেলের বউ সখিনা ও রীনাকে বাড়ির মধ্যে আটকিয়ে রেখে পুলিশে খবর দেয়।

রাজশাহীর তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলাম জানান, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রামেকে পাঠানোর হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সখিনা বেগমকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। বড় ছেলের বউ রীনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় রাখা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ