বৃহস্পতিবার-২৭শে জুন, ২০১৯ ইং-১৩ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৩:৩৮
রোহিঙ্গারা অতিদ্রুত ফেরত না গেলে স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা ডিজিটাল সংসদ গড়তে এমপিদের ল্যাপটপ দেওয়া হবে : পলক বাবরের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের জয়, কিউইদের প্রথম হার পাইলট অভিনন্দনের গোঁফকে ‘জাতীয় গোঁফ’ ঘোষণার দাবি পার্লামেন্টে! অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য বাংলাদেশ এখন অনন্য উচ্চতায় পার্বতীপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি’র মৌলিক ও মানবাধিকার বিষয়ে দিনব্যাপি কর্মশালা জলঢাকায় ফারাজ হোসেন এর স্মরণে ডিসিআই ও আরএসসির দিনব্যাপি ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা “

লালমনিরহাট আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসটি দালালদের হাতে জিম্মি- পাসপোর্ট প্রার্থীরা হয়রানীর শিকার

Exif_JPEG_420

লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাট আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসটি দালালদের হাতে জিম্মি,পাসপোর্ট প্রার্থীরা হয়রানীর শিকার।অভিযোগে জানা গেছে,লালমনিরহাটে ২০১৩ সালে স্টেডিয়াম রোড সংলগ্ন আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসটি হওয়ার পর থেকেই স্থানীয় শাহ-আলম সহ দালাল চক্রের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে পাসপোর্ট প্রার্থীরা।সরেজমিনে গেলে মাইদুল ইসলাম সহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পাসপোর্ট প্রার্থীরা জানান,ফরম জমাদানের সময় মাসুদ নামের একজন কর্মচারি বিভিন্ন তথ্য ভূলের অযুহাত দেখিয়ে প্রতি ফরমে ১ হাজার থেকে ১২’শত টাকা উৎকোচ দিতে হয়।ঐ পাসপোর্ট অফিসের কর্মচারীকে উৎকোচের টাকা না দিলে পাসপোর্ট প্রার্থীরা হয়রানির শিকার হয় মর্মে  সোমবার সাংবাদিকদের জানান। এ উৎকোচের টাকা গ্রহনকারী হিসেবে স্থানীয় শাহ আলম গং নামের দালাল নিয়োগ করা রয়েছে বলে একাধিক ব্যাক্তি জানান।
পাসপোর্ট অফিস আঞ্চলিক কার্যালয় লালমনিরহাটের উপ-সহকারী পরিচালক এ কে এম মোতাহার হোসেন জানান, ২০১৮ ও ২০১৯ ইং সালের ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত ৭ হাজার ১শত ৯ জন পাসপোর্ট করেছে।আর তথ্য গোপন করায় প্রায় ২৫০ জনের পাসপোর্ট আটকা পড়েছে।মিথ্যা তথ্য দানকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়ার কথা থাকলেও পাসপোর্ট অফিসের ক্ষেত্রে আইনের কোনো প্রয়োগ নেই বলে সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তা মন্তব্য করেন।
তবে অভিযোগে জানা যায়,পাসপোর্ট অফিসটি লালমনিরহাটে স্থাপিত হওয়ার পর থেকে কতিপয় দালালচক্র সরকারি ফি বাবদ অতিরিক্ত উৎকোচ নিয়ে অফিসটি দালালদের হাতে জিম্মি দশায় পরিণত করেছে।
সূত্র জানান, সাধারন পাসপোর্ট ফি ৩ হাজার ৪শত ও আর্জেন্ট পাসপোর্ট ফি ৬ হাজার ৯ শত টাকা সরকারী ফি বাদে অতিরিক্ত উৎকোচ দিতে হচ্ছে পাসপোর্ট প্রার্থীদের।
এমন ঘুষ দুর্নীতির ব্যাপারে উপ সহকারী পরিচালক এ কে এম মোতাহার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওই সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন।
এমতাবস্থায় সাধারন জনগন দূর্নীতি দমন কমিশনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ