শুক্রবার-২১শে জুন, ২০১৯ ইং-৭ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:১৫
ছাতকের গোবিন্দগঞ্জবাসীর সংহতি মানববন্ধন নাবিক কর্মীরহাত হাসপাতালের উদ্যোগে বিনামূল্যে চিকিৎসা শিবির অনুষ্ঠিত মির্জাপুরে ৫৮টি কয়লা তৈরির কারখানা গুড়িয়ে দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত সরকারি কর্মকর্তারা জনগনের সঠিক সেবা না দিলে আইনগত ব্যবস্থা ……… দুদক মহা-পরিচালক ডোমারে মসজিদের ইমাম স্ত্রী সন্তান রেখে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রীকে নিয়ে উধাও, থানায় মামলা। সৈয়দপুরে চার পরিবারকে মেয়রের অনুদান প্রদান পার্বতীপুরে বাল্যবিবাহ বিষয়ক গণশুনানি অনুষ্ঠিত

মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি ভাতা বাড়ানো হচ্ছে। আগামী ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বাজেটে এ ভাতার পরিমাণ ২ হাজার টাকা বাড়ানো হচ্ছে।

নতুন অর্থবছরের বাজেটে অস্বচ্ছল ও প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীর সংখ্যা ১০ লাখ থেকে বাড়িয়ে ১১ লাখ করার প্রস্তাব করা হচ্ছে। এছাড়া, লিভার ও কিডনি রোগ এবং ক্যান্সারে আক্রান্ত ভাতাভোগীর সংখ্যা ১০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধারা মাসিক ১০ হাজার টাকা ভাতা পাচ্ছেন। আগামী বাজেটে তা বাড়িয়ে ১২ হাজার টাকা করা হচ্ছে। এজন্য সরকারের অতিরিক্ত ব্যয় হবে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাবদ বাজেট বরাদ্দ রয়েছে ৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে ১ লাখ মুক্তিযোদ্ধা এ ভাতা পেতেন। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে ভাতার আওতায় আসেন ১ লাখ ৮৭ হাজার ২৯৩ জন মুক্তিযোদ্ধা। ২০০৯ সালে সম্মানি ভাতা ছিল ৯০০ টাকা। তা বাড়িয়ে সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা ১০ হাজার টাকা করে সরকার। এর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের দুটি উৎসবভাতাও দেওয়া হচ্ছে।

সূত্র জানায়, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি ভাতা ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছিল। এজন্য বার্ষিক অতিরিক্ত ৫ হাজার কোটি টাকার প্রয়োজন হতো। কিন্তু বাজেটে অর্থ সংকুলান না থাকার কারণে এ প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়নি। তবে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি ভাতা ২ হাজার টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব শেষ পর্যন্ত বাজেটে রাখা হয়েছে। এজন্য অতিরিক্ত আরো ৪৮০ কোটি টাকা বেশি প্রয়োজন হবে। মুক্তিযোদ্ধারা সম্মানি ভাতা ছাড়া আরো দুটি ভাতা পেয়ে থাকেন। এর একটি হচ্ছে বিজয় দিবস ভাতা এবং বৈশাখী ভাতা। এর মধ্যে বৈশাখী ভাতা হিসেবে পান ২ হাজার টাকা এবং বিজয় দিবসের ভাতা পান ৫ হাজার টাকা।

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি ভাতা বাড়ানো হলেও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অন্য কোনো ভাতা আগামী অর্থবছরে বাড়ানো হচ্ছে না বলে জানা গেছে। তবে সামাজিক নিরাপত্তা খাতের আওতা বাড়ানো হবে। বর্তমানে ১৬টি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি চালু রয়েছে। এসব কর্মসূচি বার্ষিক বরাদ্দ রয়েছে ৩২ হাজার ৩১৮ কোটি টাকা।

 

আপনার মতামত লিখুন

ঢাকা,মুক্তিযুদ্ধ,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ