শুক্রবার-২৪শে মে, ২০১৯ ইং-১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সন্ধ্যা ৭:২২
কলেজে ভর্তির আবেদন এখনও করেননি আড়াই লাখ শিক্ষার্থী ডোমারে আওয়ামীলীগের ইফতার মাহফিল জলঢাকায় সড়কে ধান ও খড় শুকানোর ধুমপরেছে- চলাচলে জনগনের দূর্ভোগ বিপুল জয়ে মোদিকে বিএনপির অভিনন্দন বিপুল জয়ে মোদিকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন ২৫ জেলায় চলছে প্রথম ধাপের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে

মাসহ প্রতিবন্ধী শিশুকে হত্যার পেছনে পরিবারের আর্থিক সংকট!

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: নাটোরের নলডাঙ্গায় প্রতিবন্ধী শিশু ভাতিজা আব্দুল্লাহ ও ভাবি শারমিন বেগমের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ভাবি-ভাতিজাকে হত্যা করেছে দেবর মুক্তা। হত্যার ঘটনায় বুধবার সন্ধ্যায় নিহতের দেবর মাহাবুল আলম মুক্তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃত মুক্তাকে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত করে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক ব্রিফিং করা হয়। প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আকরামুল ইসলাম, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাতসহ পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ।

প্রেস ব্রিফিংকালে নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন জানান, নলডাঙ্গায় মা ও ছেলেকে হত্যার পরেই পুলিশ হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান শুরু করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের দেবর মাহাবুল আলম মুক্তা ও তার স্ত্রী তানিয়া বেগমকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে মাহাবুল আলম মুক্তা বলেন, তিনি পারিবারিক কলহ ও প্রতিবন্ধী ভাতিজার চিকিৎসার ব্যয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে তার ভাবি ও ভাতিজাকে হত্যার করে।

উল্লেখ্য, বুধবার সকালে নাটোরের নলডাঙ্গার বাশিলা উত্তরপাড়া গ্রাম থেকে মা শারমিন বেগম ও তার দুই বছরের শিশু সন্তান আব্দুল্লাহর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহত শারমিন বেগমের বাবা ওমর আলী বাদী হয়ে নিহতের দেবর মাহাবুল আলম মুক্তাকে একমাত্র আসামি করে নলডাঙ্গা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পুলিশ মাহাবুল আলম মুক্তাকে গ্রেপ্তার করে।

আপনার মতামত লিখুন

নাটোর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ