শনিবার-২৫শে মে, ২০১৯ ইং-১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৮:৪৯
কলেজে ভর্তির আবেদন এখনও করেননি আড়াই লাখ শিক্ষার্থী ডোমারে আওয়ামীলীগের ইফতার মাহফিল জলঢাকায় সড়কে ধান ও খড় শুকানোর ধুমপরেছে- চলাচলে জনগনের দূর্ভোগ বিপুল জয়ে মোদিকে বিএনপির অভিনন্দন বিপুল জয়ে মোদিকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন ২৫ জেলায় চলছে প্রথম ধাপের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে

বন অফিসের কামরাঙা

2 years ago , বিভাগ : কৃষি,

মুক্তিনিউজ24.কম ডেস্ক: পাতার রঙে ফলের রঙ হয় বলে ফলগুলোকে গাছ থেকে পৃথক করে ফেলা কঠিন। এক দৃষ্টিতে তাকালে একটুখানি বেগ পেতে হয়। এই কামরাঙাগুলোর ক্ষেত্রেও হলো তাই।

কাছে গিয়ে তাকাতেই অপেক্ষাকৃত সবুজ থেকে পেকে হলুদ বর্ণের ফলগুলো আগে দৃষ্টি সীমানার কাছাকাছি এলো। এলো না সবুজাভ ফলগুলো। এক পাশে গিয়ে তাকাতেই দেখা গেল অনেক হলুদ ফুল।

মৌলভীবাজার রেঞ্জের বন্যপ্রাণি ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের অফিসের গাছে ঝুলছে অসংখ্য কামরাঙা (Carambola)। ওরা আপনা-আপনিভাবে শোভা বৃদ্ধি করে প্রকৃতির উপকার সাধন করছে। ফলের গায়ে ভাগ বসিয়েছে রাতের বাদুর, দিনের কাঠবিড়ালি, পাখি প্রভৃতি।

কামরাঙা এক প্রকারের টক-মিষ্টি স্বাদের ফল। কোনো কোনো দেশে এটিকে স্টার ফ্রুট (তারা ফল) বা ক্যারামবোলাও বলা হয়। গাছটি খুব বড় আকারের নয়। মাঝারি।

বন অফিসের কামরাঙা সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) তবিবুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, এই কামরাঙাগুলো পেড়ে আমাদের মায়াহরিণকে খাওয়াই। অন্য পাখিরাও এসে খায়।

তিনি আরও বলেন, কামরাঙায় প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস ও ভিটামিন রয়েছে। যা নিয়মিত খেলে শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে এবং ত্বকও ভালো থাকে। এছাড়াও কামরাঙার রস ব্যবহারে মুখের ব্রণ ও চোখের নিচের ফোলাভাব দূর হয় বলে শুনেছি।

আপনার মতামত লিখুন

কৃষি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ