মঙ্গলবার-২১শে মে, ২০১৯ ইং-৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ২:৩৫
উচ্চ মাধ্যমিক পাসেই নিয়োগ দেবে বিমান বাংলাদেশ কৃষকদের ধান নিয়ে ছিনিমিনি নয়, ডিসিকে মাশরাফির ফোন ভাড়া করা নেতৃত্বে চলছে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী আমেরিকার সঙ্গে যুদ্ধ হলে ইরান ধ্বংস হবে : ট্রাম্প মাশরাফির নায়িকা হতে চাই: পূজা চেরি পার্বতীপুরে হার্ডওয়ার নেটওয়ার্ক প্রশিক্ষন পেল শিক্ষকরা গোবিন্দগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় ভ্যান চালকের মর্মান্তিক মৃত্যু

জলঢাকায় ‘আলোর কণা’ ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রে গ্রন্থাগার,মানবতার দেয়াল ও সততা স্টল  উদ্বোধন”

রবিউল ইসলাম রাজ,স্টাফ রিপোর্টারঃ
নীলফামারীর জলঢাকায় ফ্রি পাঠদান কেন্দ্র ‘আলোর কণা’ আরও একধাপ এগিয়ে ছাত্র/ছাত্রীদের সুবিধার জন্য গ্রন্থাগার ও মানবতার দেয়াল এবং সততা স্টোল লাল ফিতা কেটে শুভ উদ্বোধন করেছে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক।
এ উপলক্ষে শনিবার (১১মে) সকালে ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সদস্যবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে আলোর কণার পরিচালকের গর্বিত পিতা ছপির উদ্দিন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ইউ সি কাঠাঁলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফুল বানু,সিনিয়র সাংবাদিক মানিক লাল দত্ত,সাংবাদিক রবিউল ইসলাম রাজ,অর্থ সম্পাদক হিরন চাদ,সদস্য গোলাম রব্বানী,মোফাজল হোসেন প্রমুখ।অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে বলেন,ফুরহাদ একজন বিরাট মনের মানুষ। তার প্রমাণ হলো এই আলোর কণা। সে নিজের মেধা দিয়ে ফ্রিতে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছেন এবং নিজের অর্থায়নে বিভিন্ন রকম কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে পুরস্কৃত করে থাকে।এই গ্রামে অনেক বিত্তবান মানুষ আছে তারা তো এরকম করে দেখাতে পারে নি।তাই আমি সকলের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি এই ফুরহাদের আলোর কণার যেন সারা বাংলাদেশ ছাড়িয়ে বহির্বিশ্বে পরিচিত লাভ করতে পারে।
ফ্রি পাঠদান কেন্দ্র ‘আলোর কণা’ এর পরিচালক ও শিক্ষক ফুরহাদ হোসেন এক শুভেচ্ছা বক্তব্যে ছাত্র ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন,আমি কোন দিন যদি না থাকি,তাহলে তোমাদের মধ্যে থেকে কেউ কী এই আলোর কণা ফ্রি পাঠদানের দায়িত্ব নিতে পারবে? তাৎক্ষনিক,সব শিশুরাই উপড়ে হাত তুলে জবাব দেয়,আমরা সকলে আছি। পরিচালক আরও বলেন,আমি সবার সহযোগিতা চাই,আমি আলোর কণাকে সারা বিশ্বে দাঁড় করাতে চাই।
শেষে অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা আলোর কণা সঙ্গীত থিম মুখে মুখে গাইয়ে শুনালে মুগ্ধ হয় অতিথিবৃন্দরা।গানটি হলো….ছাত্র ছাত্রী আয় সকলে গ্রামবাসী। আয়রে আমার আলোর কণার প্রাণ,হায়রে আলোর কণা,গরীব দুঃখির মান,আলোর কণা ফ্রি পাঠদান।…… প্রধান অতিথির পরামর্শ ক্রমে পরে গানটি আলোর কণার সঙ্গীত হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়।
আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ