বুধবার-২৬শে জুন, ২০১৯ ইং-১২ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১:৫৪
পাইলট অভিনন্দনের গোঁফকে ‘জাতীয় গোঁফ’ ঘোষণার দাবি পার্লামেন্টে! অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য বাংলাদেশ এখন অনন্য উচ্চতায় পার্বতীপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি’র মৌলিক ও মানবাধিকার বিষয়ে দিনব্যাপি কর্মশালা জলঢাকায় ফারাজ হোসেন এর স্মরণে ডিসিআই ও আরএসসির দিনব্যাপি ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা “ বান্দরবানের জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা ডিজিটাল হাজিরা অনিশ্চিত মহেশপুরের ১৫২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ঢাকায় নিয়োগ দেবে সিভিসি ফাইন্যান্স

ছুটির দিনে ক্রেতার ঢল

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক;   পবিত্র রমজান মাসের শেষ দিকে এসে এখন রাজধানীর বিপণিবিতানগুলো জমজমাট। গতকাল শুক্রবার ছিল ২৫ রমজান, পবিত্র জুমাতুল বিদা বা রমজানের শেষ জুমা। ছুটির দিনে গতকাল শুক্রবার দিনভর ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে বেশির ভাগ শপিং মল ও দোকানে। যারা ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়ি যাবে কিংবা ঢাকায় ঈদ করবে—সবার মধ্যেই দেখা গেছে কেনাকাটার তাড়া। সকাল থেকে অনেকেই ভিড় করেছে বিভিন্ন শপিং মলে। সকাল পেরিয়ে বিকেল ও সন্ধ্যায় বিপণিবিতানগুলোয় দেখা যায় বেশ ভিড়।

রাজধানীর পান্থপথে দাঁড়িয়ে বৃহত্ বিপণিবিতান বসুন্ধরা সিটি শপিং মল। গতকাল বিকেলে এ সুবিশাল বিপণিবিতান ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি ফ্লোরে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই। শপিং মলে ঢুকতেই নিচতলায় হাতের বায়ে ফ্যাশন হাউস ইয়লোর শোরুম। বিক্রয়কর্মী আজাদ বলেন, ‘এবার আমাদের পোশাকের কাটতি অনেক। বিশেষ করে থ্রিপিস, পাঞ্জাবি ও শার্ট বিক্রি হচ্ছে প্রচুর।’ রাজধানীর ক্রেতা শুধু নয়, আশপাশের নানা জেলার ক্রেতারাও ভিড় করছে বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে। ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হাল ফ্যাশন আর আবহাওয়ার সঙ্গে সমন্বয় রেখে রুচিসম্মত পোশাক বেছে নিচ্ছে তারা। অনেকে আবার দেশি পণ্যের পোশাকই কিনছে বেশি। এ ছাড়া শেষ সময়ে পোশাকের পাশাপাশি জুতা, প্রসাধনী ও গয়নার মতো অনুষঙ্গ কিনতে শপিং মলে ভিড় করছে ক্রেতারা।

গতকাল রাজধানীর নিউ মার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া, এলিফ্যান্ট রোড, ইস্টার্ন প্লাজা, মালিবাগের মৌচাক মার্কেট, ফরচুন শপিং মল, আনারকলি মার্কেট, কনকর্ড টুইন টাওয়ার, ইস্টার্ন প্লাস, নাভানা বেইলি স্টার, কর্ণফুলী গার্ডেন সিটি, ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার, পলওয়েল, গাজী ভবন, পীর ইয়েমেনী, মগবাজারের বিশাল সেন্টার, শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেট, পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি মার্কেট, গুলশান পিংক সিটি, নাভানা টাওয়ার, কনকর্ড পুলিশ প্লাজা, বঙ্গবাজার, রাজধানী সুপার মার্কেট ঘুরে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দারুণ জমজমাট ঈদের কেনাকাটা। অনেক বিপণিবিতানের বাইরে ছিল আলোকসজ্জা। অনেক দোকানে ছিল নানা ছাড় ও পুরস্কারের ঘোষণা। ফলে ক্রেতাদের অনেকেই ছুটে যায় সেসব দোকানে।

নিউ মার্কেট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ক্রেতাদের ভিড়ে ব্যাপক যানজট। মার্কেটের ভেতরে যেন তিল পরিমাণ জায়গা নেই। ছোট বড় সব দোকানেই ছিল অসংখ্য ক্রেতার চাপ। বিক্রেতারা জানায়, তাদের মার্কেটে শাড়ি, রেডিমেড সালোয়ার-কামিজ এবং শিশুদের পোশাক বেশি বিক্রি হচ্ছে। এখানে দরদাম করে সাধ্যের মধ্যে সাধ মিটিয়ে কেনা যায়, তাই ক্রেতার ভিড় বেশি বলে জানান চাঁদনী চকের ডালিয়া ফ্যাশনের বিক্রয়কর্মী আনোয়ার হোসেন। নিউ মার্কেটের অনেক দোকানের সামনেই নজরে আসে ‘একদর’র সাইনবোর্ড। মূলত ক্রেতা-বিক্রেতাদের বচসা এড়াতে তারা এ সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়েছেন। তবে সেখানেও দরদাম করে কিছুটা ছাড় পাওয়া যাচ্ছে। চাঁদনী চক ও গাউছিয়ায় গতকাল লক্ষ করা গেছে তরুণীদের ভিড়। হাল ফ্যাশনের পোশাক থেকে শুরু করে অলঙ্কার ও প্রসাধনী; মেয়েদের যাবতীয় সব কিছুই রয়েছে এ দুই বিপণিবিতানে, সুতরাং তারা দলবেঁধে কিনে ফেলছে ঈদের নতুন পোশাক।

রাজধানীর মালিবাগ সিদ্ধেশ্বরী এলাকায় মৌচাক মার্কেট মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতাদের কাছে জনপ্রিয়। মৌচাক মার্কেট মেয়েদের কেনাকাটার জন্য একটি বিশেষ মার্কেট। এখানে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, থান কাপড় ও ননস্টিচ সালোয়ার-কামিজের রয়েছে বিশাল আয়োজন। গতকাল এই মার্কেট ছিল ক্রেতায় ঠাসা। শান্তিনগরের কনকর্ড টুইন টাওয়ার মার্কেট ও কাকরাইলের কর্ণফুলী গার্ডেন সিটিতে ছিল দারুণ ভিড়। ভিড় ছিল বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার ও নাভান বেইলি স্টারেও। এসবের পাশাপাশি নয়াপল্টনের পলওয়েল মার্কেট, উত্তরার পলওয়েল সেন্টার, মাসকট প্লাজা, নর্থ টাওয়ার, বেলি কমপ্লেক্স, রাজলক্ষ্মী কমপ্লেক্স, আলাউদ্দিন টাওয়ার, আমির কমপ্লেক্স, রাজউক কমার্শিয়াল কমপ্লেক্স, খিলক্ষেতের রাজউক টাওয়ারেও ছিল ক্রেতাদের ভিড়।সূত্র: কালের কন্ঠ

আপনার মতামত লিখুন

ঢাকা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ