শুক্রবার-১৯শে জুলাই, ২০১৯ ইং-৪ঠা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৪:২৩
দুর্নীতিকে অন্যভাবে দেখার উপায় নেই : ওবায়দুল কাদের গোবিন্দগঞ্জে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে নিজেদের আগে সচেতন হতে হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আত্রাইয়ে বেরি বাঁধ ভেঙে ৩ গ্রাম প্লাবিত : পানিবন্দি ১৫ হাজার লোক শিবগঞ্জে করতোয়া নদীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য নৌকা বাইচ এর ফাইনাল অনুষ্ঠিত জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি পরমাণু সমঝোতা রক্ষার পথ খোলা আছে: ম্যাক্রনকে রুহানি

এখানেই শেষ দেখছে না বাংলাদেশ

4 weeks ago , বিভাগ : খেলাধুলা,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ৬ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে বিশ্বকাপের পয়েন্ট টেবিলের পাঁচে আছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৮ রানে হারের পরও সেমিফাইনালের আশা টিকে আছে বাংলাদেশর। সম্ভাবনা শেষ হয়ে যায়নি, বলছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে বাংলাদেশের সামনে রয়েছে কঠিন সমীকরণ।  প্রথমত, সেমিতে যেতে হলে শেষ তিন ম্যাচেই জয় লাগবে বাংলাদেশের। একটি হারলেই বিদায়।  দ্বিতীয়, অন্যান্য দলের জয়-পরাজয়ের দিকেও তাকিয়ে থাকতে হবে। পুরো দলই জানে অগ্নিপরীক্ষার সামনে দাঁড়িয়ে তারা। তাই মানসিকভাবে সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছে দল।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ হারের পর মিক্সড জোনে এসে তামিম জানালেন, কঠিন সমীকরণ হলেও দলের কেউ সেমিফাইনালের আশা ছাড়ছে না। বরং নিজেদের ইচ্ছাতেই নিজেদের মনোবল ঠিক রাখছেন ক্রিকেটাররা। সম্ভাবনার সব দুয়ারেই কড়া নাড়তে চান মাশরাফি। অধিনায়কের মতে, কাজটি কঠিন হলেও করতে চায় দল। “আমি এখনও মনে করি… কে জানে কত কী হতে পারে! এখনও আমরা পারি, তিন ম্যাচ বাকি আছে। আমাদের দারুণ ক্রিকেট খেলতে হবে এবং এরপর দেখব। কাজটি কঠিন হবে। তিনটি ম্যাচ যদি জিততে পারি, এরপর দেখা যাবে কী অবস্থা। আমাদের জন্য আপাতত গুরুত্বপূর্ণ হলো বাকি তিনটি ম্যাচ একটি একটি করে এগোনো এবং জেতা।” অধিনায়কের কথারই প্রতিফলন পড়ল তামিম ইকবালের কণ্ঠে।  ‘এখনও একটা সুযোগ আছে।  আমাদের কোনো সতীর্থ সেমিফাইনালের চিন্তা ছাড়ছে না। সবাই চিন্তা করছে তিন ম্যাচ জিততে পারলে একটা সুযোগ হতে পারে। এখন পর্যন্ত ওই অবস্থানেই আছি। চেষ্টা করবো অন্তত যেন নিজেদের কাজটা ঠিক মতো করতে।’- বলেছন তামিম। নটিংহ্যামে অস্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড়ে বাংলাদেশ পৃষ্ট হলেও ভিন্ন ভিন্ন জায়গা থেকে প্রেরণা পাচ্ছে বাংলাদেশ। মুশফিকের বিশ্বকাপের প্রথম সেঞ্চুরি। মাহমুদউল্লাহ স্বরূপ ফেরা এবং সাকিব ও তামিমেরা রান করা। পাশাপাশি টানা দুই ম্যাচে দলীয় রান তিনশতাধিক যাওয়া।  তাইতো তামিম নির্ভার হয়ে বলেন, এরকম পারফরম্যান্সগুলো ভবিষ্যতে বড় দলকে হারাতে অনেক ভূমিকা রাখবে। ‘ইতিবাচক দিক হচ্ছে আমরা শেষ দুই ম্যাচেই কিন্তু তিনশর বেশি রান করেছি লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে। এটা একটা বিশ্বাস ব্যাটসম্যানদের মধ্যে আছে যে আমরা যদি ওই রানটা ডিফেন্ড করতে পারি তাহলে আমাদের সুযোগ থাকবে লক্ষ্য তাড়া করে ফেলার।  আমরা বিশ্বাসটা করতে শুরু করেছি এটা সবথেকে ভালো দিক।’ অস্ট্রেলিয়ার ৩৮১ রানের জবাবে বাংলাদেশ করে ৩৩৩ রান।  ওয়ানডে ক্রিকেটে যা বাংলাদেশের সর্বোচ্চ। এমন দিনে বাংলাদেশ ম্যাচ হারলেও ব্যাটিংয়ে নিজেদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট থাকার কথা।

আপনার মতামত লিখুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ