বৃহস্পতিবার-১৮ই জুলাই, ২০১৯ ইং-৩রা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১১:০৪
সেবা না পেয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি এ্যম্বুলেন্স ভাংচুর। ফুলবাড়ীতে মৎস্য সপ্তাহ উদ্ভোধন। গোবিন্দগঞ্জে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ- ১ ডোমারে স্কুল ছাত্র সুমন নিখোঁজ সন্ধান চায় পরিবার। আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শনিবার বুবলীই থাকছেন শাকিবের ‘বীর’ ছবির নায়িকা ছাতকে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ’র উদ্বোধন উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

এই দিনে: ২৯ জানুয়ারি ২০১৯

6 months ago , বিভাগ : শিক্ষা,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভালো, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার অভিশাপ-আশীর্বাদ।

তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে পাঠকদের জন্য নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিন’।

আজ ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার। ১৬ মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনা
১৫২৮- মোঘল সম্রাট বাবর চান্দেরি দুর্গ দখল করেন।
১৮২০- সম্রাট চতুর্থ জর্জ ইংল্যান্ডের সিংহাসনে আরোহণ করেন।
১৯২১- হোসেন বিন আলী শরীফ মক্কার পুত্র বাদশাহ প্রথম ফয়সলকে ইংরেজরা ইরাকের বাদশাহ হিসেবে মনোনীত করে।
১৯৭৯- চীনের উপ প্রধানমন্ত্রী দেন জিয়াও পিং এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টার একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেন। এ যুক্তির মাধ্যমে চীনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের কয়েক দশকের বৈরিতার অবসান ঘটে।
১৯৯২- ভারত-ইসরাইল কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন।
১৯৯৬- ভেনিসের লা ফেনিস অপেরা হাউস আগুনে পুড়ে যায়।
২০১৫- মালয়েশিয়া দাফতরিকভাবে ফ্লাইট ‘এমএইচ৩৭০ নিখোঁজকে’ দুর্ঘটনা হিসেবে ঘোষণা করে এবং এর সকল যাত্রী এবং ক্রুকে মৃত ঘোষণা করে।

জন্ম
১৮৪৩- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২৫তম রাষ্ট্রপতি উইলিয়াম ম্যাকিন্‌লি।
১৮৬০- রুশ চিকিৎসক, ছোটগল্পকার এবং নাট্যকার আন্তন পাভলোভিচ চেখভ।
১৯৫৪- মার্কিন টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব ওপ্‌রাহ উইন্‌ফ্রে।
১৮৯০- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতি শিক্ষক ও সাহিত্যিক ড. সুশীল কুমার দে।

মৃত্যু
১৮৮৯- রুশ বিপ্লবী ও সমাজতান্ত্রিক নেতা ওসিপ জেটকিন।
১৯৭৬- বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক ও সম্পাদক অচিন্ত্যকুমার সেনগুপ্ত।

রবীন্দ্রনাথ ও শরৎচন্দ্রের পরে সাহিত্যজগতে আলোড়ন সৃষ্টিকারী কল্লোল যুগের লেখকদের মধ্য তিনি ছিলেন অন্যতম। ১৯০৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর নোয়াখালী শহরে তার জন্ম। ১৯১৬ সালে তিনি কোলকাতা চলে যান এবং উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করেন। ১৯২১ সালে প্রবাসী পত্রিকায় নীহারিকা দেবী ছদ্মনামে অচিন্ত্যকুমারের প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয়। তিনি উপন্যাস ও ছোটগল্প রচনায় বিশেষ কৃতিত্ব দেখান। তার প্রথম উপন্যাস ‘বেদে’ আধুনিক বাংলা সাহিত্যের একটি বিশিষ্ট উপন্যাস। বিচারবিভাগে চাকরির বদৌলতে তিনি বাংলাদেশের নানা স্থানে ঘুরে বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের সংস্পর্শে আসেন। এসব কাহিনী অচিন্ত্যকুমার তার ছোট গল্পগুলোতে নিপুণভাবে এঁকেছেন। তার স্মৃতিচারণমূলক গ্রন্থ ‘কল্লোল যুগ’ পাঠকমহলে বেশ সাড়া জাগায়। সাহিত্য ও সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য তিনি জগৎতারিণী পুরস্কার, রবীন্দ্রস্মৃতি পুরস্কার ও শরৎচন্দ্রস্মৃতি পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৭৬ সালের ২৯ জানুয়ারি কলকাতায় তার মৃত্যু হয়।সূত্র: দৈনিকশিক্ষা

আপনার মতামত লিখুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ