সোমবার-২৭শে মে, ২০১৯ ইং-১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: সন্ধ্যা ৬:০৯
বিশ্বকাপে মিঠুনের দায়িত্ব আর চ্যালেঞ্জ ডেড বল বিতর্ক : ব্যাটিং দলকে ৭ রান পেনাল্টি দিতে বললেন শচীন আফসোস করছেন না তো রাজ? দীন মোহাম্মদ আই হসপিটালে চোখ দেখালেন প্রধানমন্ত্রী কাজের মাধ্যমে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী সাধারণ ককটেলের থেকে শক্তিশালী ছিল বিস্ফোরণটি : ডিএমপি কমিশনার প্রধানমন্ত্রী ও সেতুমন্ত্রীকে বিএনপির ইফতারে দাওয়াত

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে খাবারগ্রহণ প্রক্রিয়া

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশনে ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের খাদ্যতালিকা পরিবর্তনের উদ্দেশ্য হলো বাড়তি পুষ্টি পাওয়া, সোডিয়াম গ্রহণ হ্রাস করা, শরীরের ওজনকে গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে আনা, চর্বি কমানোসহ শরীরকে ফিট রাখা।

অতিরিক্ত ওজনের ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে অ্যানার্জি গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে রাখা দরকার। এমনকি স্বাভাবিক ওজনের ব্যক্তিদের অ্যানার্জি গ্রহণের প্রক্রিয়াও এর অন্তর্ভুক্ত। আপনি কী পরিমাণ শক্তি ব্যয় করছেন তার ওপর নির্ভর করে আপনার প্রতিদিন কতটুকু শক্তি অর্জন করা দরকার। সুতরাং, এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আপনার খাদ্যগ্রহণের বিষয়টি বিবেচনা করা উচিত।

এ জন্য স্বাভাবিক প্রোটিন গ্রহণের পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। অতিরিক্ত প্রোটিন এড়াতে হবে কারণ অতিরিক্ত প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার সাধারণত পশুর চর্বি ও সোডিয়ামে বেশি থাকে।

কম অ্যানার্জি বিদ্যমান এমন খাবারগুলো মূলত কম চর্বিযুক্ত খাবার হিসেবে পরিচিত। এসব কম চর্বিযুক্ত খাবারই গ্রহণ করা উচিত। যে খাবারটি আপনি খাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন পরীক্ষা করে দেখা উচিত তাতে কী পরিমাণ চর্বি বিদ্যমান। যদি আপনি চর্বি গ্রহণ করতে চান তবে তা গ্রহণ করা উচিত উদ্ভিজ্জ উপাদান থেকে যেমন সোয়া তেল, চীনাবাদাম তেল, সূর্যমুখী তেল, ভুট্টা তেল ইত্যাদি উৎস থেকে। ঘি, মাখনের মতো প্রাণিজ চর্বি পরিহার করা উচিত।

প্রচলিত সুগারের চেয়ে বরং শ্বেতসার এবং ডায়েটারি ফাইবারের মতো উচ্চ কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবারগুলোর ওপর গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে দৈনিক গড় সোডিয়াম গ্রহণের মাত্রা ৩-৪ গ্রাম থেকে ১০-১২ গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃত। সোডিয়ামের প্রধান উৎস হলো সাধারণ লবণ যেমন সোডিয়াম ক্লোরাইড। অন্যান্য সোডিয়াম যৌগ বেকিং পাউডার, সোডিয়াম বাই-কার্বোনেট এবং প্রক্রিয়াজাত ও সংরক্ষিত খাবারে ব্যবহৃত হয়।

পর্যাপ্ত পটাসিয়াম গ্রহণ চিকিৎসার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পরিমাণে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার যেমন দুধ, ফল এবং সবজি থেকে এই চাহিদা পূরণ করা যায়।

উচ্চ রক্তচাপ চিকিৎসার ক্ষেত্রে ক্যালসিয়াম গ্রহণও যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। দুধ, পাতাযুক্ত সবজি ইত্যাদি ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সোডিয়াম গ্রহণের মাত্রা কমানো উচিত। দই কিংবা সালাদে ব্যবহৃত লবণে সোডিয়াম থাকে। খাবার রান্নায় হালকা লবণ ব্যবহার করা যেতে পারে। লবণযুক্ত প্রক্রিয়াজাত পনির, মাখন ‌ইত্যাদি এড়িয়ে চলা উচিত।

ক্যানে থাকা সবজি বা সবজি জুস, ব্রেড, ব্রেড রোল, ক্র্যাকার, মেয়োনেইজ বা অন্যান্য সালাদ ড্রেসিং এবং বেকিং পাউডার, বেকিং সোডা এবং এগুলো ধারণকারী খাবার এড়িয়ে চলা উচিত।

আপনার মতামত লিখুন

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ