সোমবার,২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং,১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১০:২৫
জলঢাকায় প্রশাসনের মাসিক সমন্বয় সমাবেশ জলঢাকায় এক ব্যাতিক্রমধর্মী যুগান্তকারী পদক্ষেপ কেঁচো দিয়ে সার উৎপাদন জলঢাকায় ক্লিনিকের গলাকাটা ফি প্রতিবাদে ক্লিনিক ও সড়ক অবরোধ মঙ্গলবারের হরতালেও চলবে এসএসসি পরীক্ষা সৈয়দপুরে জাপা সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে এলাকায় মাইকিং মার্চের প্রথম সপ্তাহে ইন্দোনেশিয়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী লালমনিরহাটে এসএসসি পরীার্থীর আত্মহত্যা

১৬ বছর পরও ‘নতুন শুরু’?

%e0%a6%a1%e0%a6%bfমুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:

এটা কি আপনাদের জন্য নতুন শুরু?
—পুরোনো পত্রিকা না ঘেঁটেই বলে দেওয়া যায়, ২০০০ সালের নভেম্বরে অভিষেক টেস্টের আগে এ রকমই প্রশ্ন শুনতে হয়েছিল নাঈমুর রহমান, আমিনুল ইসলামদের। ২০০৭-এর মে মাসে ভারত সিরিজকে সামনে রেখে হাবিবুল বাশার, জাভেদ ওমরদের সামনেও একই প্রশ্নের অবতারণা হয়ে থাকার কথা—এটা কি আপনাদের জন্য নতুন শুরু? কাল, টেস্ট অভিষেকের প্রায় ১৬ বছর পর সেই প্রশ্নটাই উড়তে উড়তে চলে এল জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে। উত্তরদাতা এবার সাকিব আল হাসান।
টেস্ট ক্রিকেটে পা রাখাটা বাংলাদেশের জন্য নতুন শুরুই ছিল। এরপর সাত বছর পার করে দেওয়ার পরও হাবিবুল-জাভেদদের ওই একই প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়েছে টেস্ট থেকে ১৩ মাস ‘নির্বাসন’ কাটানোয়। ২০০৬-এর এপ্রিলে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ খেলার পর লম্বা বিরতি। বাংলাদেশ টেস্টে ফেরে ২০০৭-এর মে মাসে।
এবার তার চেয়েও এক মাসের বেশি বিরতি কাটিয়ে টেস্টে ফিরছে মুশফিকুর রহিমদের দল। গত বছর জুলাই-আগস্টে হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের পর আগামীকাল বাংলাদেশ আবার সাদা পোশাক, লাল বলে খেলতে নামবে। কাল সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে আসা সাকিবের সামনে সে কারণেই প্রশ্নটা রাখা—এটা কি একটা নতুন শুরু?
বাংলাদেশের ক্রিকেটের নিয়তিই হয়তো এটা। সাকিবের মুচকি হাসি বিদ্রূপ করল সেই নিয়তিকে, ‘সাত বছর খেললাম, এই রকম তিনবার হলো। নতুন নতুন তো লাগেই…।’ এ রকম বিরতিতে টেস্টের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হবেই। সাকিব তবু প্রবোধ দিলেন, প্রস্তুতি ভালো হলে সেই দূরত্ব প্রকটভাবে ধরা পড়বে না। তা ছাড়া আসল ক্রিকেটে ফেরার রোমাঞ্চ একটা শক্তি হতে পারে দলের জন্য।
ক্রিকেটের যাযাবর সাকিব। বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মধ্যে দেশে-বিদেশে সবচেয়ে বেশি খেলা হয় তাঁরই। কিন্তু প্রশ্নটা যখন টেস্ট ম্যাচের, অন্যদের তুলনায় তাঁর রোমাঞ্চ কম তো নয়ই; বরং বেশি হতে পারে। দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেট বলতে যে তিনি শুধু টেস্টই খেলেন! প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেললেও তা এতই কদাচিৎ যে, সাকিবের মুখ থেকেই বেরিয়ে এল, ‘দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেট কবে খেলেছি, আমার মনেই নেই। আমার জন্য খেলাটা তাই কঠিন।’
টেস্টে বাংলাদেশ বরাবরই অনিয়মিত। পাঁচ-ছয় মাসের বিরতি তো কিছুদিন পরপরই পড়ে। ঘরোয়া ক্রিকেটে চার দিনের ম্যাচ হলে তবু চর্চাটা ধরে রাখা যায়। এবার খেলোয়াড়দের সে সুযোগও না থাকায় একটু বেশিই চ্যালেঞ্জ অনুভব করছেন সাকিব, ‘অনেকক্ষণ ধরে বোলিং করা, অনেকক্ষণ ধরে ব্যাটিং করা—এসব আসলে অন্য রকম ব্যাপার। আমার কাছে মনে হয়, এটা অন্য রকম একটা চ্যালেঞ্জ।’
সাকিবের জন্য যেটা চ্যালেঞ্জ, অন্যদের জন্যও সেটা কি? সমস্যা সমাধানে সবার জন্য সহজ হয়, এমন পদ্ধতিই তাই খুঁজে নেওয়া ভালো। সাকিব যেমন পরামর্শ দিলেন, আগে মনটাকে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি থেকে টেস্টের দিকে সরিয়ে আনতে হবে। টেস্ট ম্যাচের অনভ্যস্ততা দূর করতে এটাকে তাঁর ভালো টোটকাই মনে হচ্ছে, ‘আমরা যেহেতু অনেক দিন টেস্ট খেলি না, চেষ্টা করছি অন্তত মানসিকভাবে তৈরি থাকার। মানসিক দিক থেকে যত বেশি ঠিক থাকা যাবে, টেস্ট ম্যাচের জন্য তা হবে তত ভালো প্রস্তুতি। আমার মনে হয়, এর বেশি কিছু প্রয়োজন নেই।’
প্রথম টেস্টের স্কোয়াডে পেসার মাত্র দুজন। অভিজ্ঞ স্পিনার বলতেও সাকিব একাই। তিনি অবশ্য এটাকে চাপ ভাবছেন না। নিজেকে ভাবছেন না দলের মূল স্পিনারও, ‘চাপের কী আছে! এখন তো আমি আগের মতো অত বেশি বোলিং করি না। আমি যে এখন মূল স্পিনার হিসেবে খেলছি, তা-ও নয়।’ এ রকম ভাবার কারণ জানা গেল তাঁর ব্যাখ্যা থেকেই, ‘আগে দেখা যেত একজন স্পিনার খেললেও আমিই খেলতাম। এখন আমার ওই ভূমিকা নেই। আমার যেটুকু দায়িত্ব, চেষ্টা করি পালন করার।’
প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট নেওয়ার মতো বোলার দলে আছেন বলে মনে করেন না কোচ হাথুরুসিংহে। অর্থাৎ তিনি মেনেই নিয়েছেন, টেস্ট জয়ের সক্ষমতা নেই বাংলাদেশের। কিন্তু এর আগে তামিম বলেছেন, কাল সাকিবও বললেন, ওয়ানডের মতো টেস্টও তাঁরা জয়ের লক্ষ্যে খেলবেন। উপযুক্ত উইকেট পেলে ২০ উইকেট নেওয়ার সামর্থ্যও আছে বাংলাদেশের বোলারদের, ‘আমরা যখন নিজেদের মাঠে খেলি, চেষ্টা করা হয় ফ্ল্যাট উইকেট বানানোর, যাতে ব্যাটসম্যানরা রান করে। কিন্তু যদি কখনো স্পিনার কিংবা পেসারদের সুযোগ দেওয়া হয়, আমার মনে হয়, আমাদের বোলারদের ২০ উইকেট নেওয়ার যোগ্যতা আছে।’
সাকিবদের ‘নতুন শুরু’টা কেমন হয়, সেটার জন্য তাই তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে চট্টগ্রামের উইকেটের দিকে।

আপনার মতামত লিখুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


%d bloggers like this: