বৃহস্পতিবার,২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং,৯ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: ভোর ৫:১১
বৌ সাজানো প্রতিযোগিতা শুরু করলেন কেকা ফেরদৌসী ১৮ নম্বরে শাকিব কলকাতার সেরাদের তালিকায় পলাশবাড়ী স্বেচ্ছায় রক্তদান সংগঠনের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত শৈলকুপায় খাবার হোটেলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা হাতীবান্ধায় স্টুডেন্ট কাউন্সিল অনুষ্ঠিত ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপের উপজেলা নির্বাচন হবে : ইসি সচিব ডোমার ভিত্তি বীজ আলু উৎপাদন খামারে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা।

১৫ বছর ধরে কিশোরীকে গুহাবন্দি করে রেখেছিল ওঝা

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: অসুস্থ হয়েছিল ১৩ বছরের কিশোরী। বাবা মা নিয়ে গিয়েছিলেন গ্রামের ওঝার কাছে। রেখে এসেছিলেন। মেয়ে আর ফেরেনি। ওঝা বলেছিল সে সুস্থ হয়ে শহরে চলে গেছে কাজ করতে। ১৫ বছর পরে বের করা হল সেদিনের কিশোরীকে। ওঝার বাড়ির কাছে একটি গুহা থেকে। পুলিশের কাছে ওঝা স্বীকার করেছে‚ গত দেড় দশক ধরে সে ছিল তার যৌন ক্রীতদাসী। এই পৈশাচিক ঘটনা ইন্দোনেশিয়ার এক গ্রামে।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হানা দেয় পুলিশ। গুহা থেকে উদ্ধার করে আঠাশ বছর বয়সী কিশোরীকে। তাকে ওই ওঝা বুঝিয়েছিল আমরিন নামে এক কিশোরের বিদেহী আত্মা বা জিন ভর করেছে তার উপর। ওই আত্মা কামনা করছে কিশোরীকে। তাই তাকে তুষ্ট করতে হলে রাত কাটাতে হবে ওঝার সঙ্গে। নইলে কিশোরীকে মেরে ফেলবে জিন।

এইভাবেই ভয় দেখিয়ে দিনের পর দিন কিশোরীর সঙ্গে রাত কাটিয়েছে। একাধিকবার গর্ভবতী হয়ে পড়েছে মেয়েটি। গর্ভের ভ্রূণ নষ্ট করার জন্য ওঝাই তাকে দিয়েছে জড়িবুটি। দিনের বেলা তাকে গুহায় লুকিয়ে রাখত। রাতে থাকত ওঝার বাড়ির কাছেই একটি বাড়িতে।

পুলিশের ধারণা‚ গ্রামের আরও অনেক মেয়ের উপর অত্যাচার করেছে অভিযুক্ত ওঝা। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাচক্রে নির্যাতিতার বোন ওই ওঝার ছেলের বৌ! পুলিশ তাকেও জেরা করছে। তদন্তকারীদের ধারণা সে হয়তো নিজের বোনের পরিণতি জানত। কিন্তু শ্বশুরের ভয়ে মুখ বন্ধ করে থাকতে বাধ্য হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ