বৃহস্পতিবার,২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং,৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ১:০৪

সোনার দাম বাড়ার পর এবার কমলো শাবিপ্রবিতে ‘মেকানিক্যাল ইননোভেশন’ শুরু ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৫:৪১ জাবি ছাত্রলীগের হল কমিটি হবে কবে? জবিতে ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুক্রবার চার দিনের দিবারাত্রির টেস্ট! আরো ৫০ হাজার মেট্রিক টন চাল আমদানি করবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নে পুঁজিবাজারের আরো বিকাশ জরুরি

সৈয়দপুরের বাজারে বিষাক্ত পটকা ও পিরানহা মাছ

file (17)                 মুক্তিনিউজ ২৪.কম ডেস্ক:  নীলফামারীর সৈয়দপুর মাছ বাজার ও হাটেবাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর পটকা বা পিরানহা মাছ। মাছ বিক্রেতারা ক্রেতাদের সামুদ্রিক বা রুপচাঁদা মাছ বলে এসব বিক্রি করছেন। প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে মাত্র ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে। ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে উদ্বিগ্ন সচেতনমহল।
সৈয়দপুর শহরের দুইটি মাছ বাজার ও গ্রামের হাটবাজারগুলোতে প্রকাশ্যে বিক্রি করা হচ্ছে পটকা মাছ। ক্রেতারা এসব সামুদ্রিক বা রুপচাঁদা মাছ হিসাবে কিনছেন। অনেকের ধারণা পটকা মাছ রান্না করলে এর বিষক্ততা নষ্ট হয়ে যায়। ফলে দাম সস্তা হিসাবে পটকা মাছ কিনছেন।
শহরের উপকন্ঠে ঢেলাপীর হাটে মাছ কিনতে আসা মাহবুব হোসেন (৪৫) জানান, রুপচাঁদা মনে করে তিনি এসব মাছ কিনেছেন। এই মাছে মানুষের জন্য ক্ষতিকর উপাদান আছে তা তার জানা নেই। উপজেলার কাশিরাম ইউনিয়নের চওড়া বাজারের বেলাল হোসেন (৫২) জানান, তার পরিবার পছন্দ করেন বলে এই রুপচাঁদা মাছ কিনতে এসেছেন। এটি বিষাক্ত মাছ এবং খেলে মানুষ মারা যায় এটা তার জানা ছিল না। সাধারণত গ্রামীণ জনপদের অভাবী ও দরিদ্র শ্রেণির লোকেরা পটকা মাছ সস্তায় কিনে খায়।
সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. আখতারুজ্জামান জানান, পটকা মাছ খেলে মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি হয়। বিশেষ করে কিডনি ও অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যক্ষ অকেজো হয়ে পড়ে।  পটকা ও পিরানহা মাছ রান্না করলে অত্যাধিক তাপে বিষের উপাদান এক অবস্থা থেকে অন্য অবস্থায় রুপান্তর হতে পারে কিন্ত এতে বিষক্ততার খুব একটা তারতম্য হয়না। খালি পেটে পটকা মাছ খাওয়া খুবই বিপজ্জনক এবং ম”ত্যুর ঝুঁকিও বেশি বলে মন্তব্য করেন তিনি।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা দীপক কুমার পাল জানান, পটকা মাছ খেয়ে মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় পটকা খাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য অনেক আগেই গণসচেতনতা বিঞ্জপ্তি প্রকাশ করা হয়। নিয়মিত হাটবাজারগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে তবুও চুপিসারে মাছ বিক্রেতারা এসব বিষাক্ত মাছ বিক্রি করছেন। এ ব্যাপারে আবারও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, পটকা মাছ খাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে।
উল্লেখ্য, ইতোপূর্বে মাছ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে বিষাক্ত মাছ ও ছোট মাছ ধরে বিক্রি করার কারণে কয়েকজন মাছ বিক্রেতার জরিমানা করা হয়। ফলে কিছুদিন এসব কর্মকান্ড বন্ধ থাকলেও বর্তমানে প্রকাশ্যে এসব কর্মকান্ড চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে।এবিনিউজ

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ