শুক্রবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং,৭ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৫:৫৩

যমুনা ব্যাংকে উচ্চ বেতনে চাকরি সাতক্ষীরার অ্যাকুরিয়ামের রঙিন মাছ রপ্তানি হচ্ছে বিদেশেও ‘শুক্রবার থেকে ত্রাণ কার্যক্রমে অংশ নেবে সেনাবাহিনী’ ‘মহাসড়ক নেটওয়ার্কে জনসাধারণের যাতায়াতে স্বস্তি ফিরে এসেছে’ একাধিক পদে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে কাজের সুযোগ গাজীপুরে পিকআপের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত পবিত্র আশুরা ১ অক্টোবর

সুস্থ জীবনে শাকসবজি ও ফলমূল

file-1
মুক্তিনিউজ24.কম ডেস্ক: টাটকা সবজি ও ফলমূলে রয়েছে এমন সব রাসায়নিক পদার্থ যা কিছু কিছু ক্যান্সার ও হৃদরোগ প্রতিরোধে সহায়ক। এসব খাদ্য সহজলভ্য যেমন টমেটো, বাঁধাকপি, আঙুর, আপেল, রসুন, সয়াবিন প্রভৃতি।
টমেটো নিয়ে বেশ কয়েক বছর আগে বেশ লেখালেখি হয়েছিল যে, টমেটো প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। বর্তমানে এর গুণ বিচারে আরো বেশি উপকারিতা খুঁজে পাওয়া যায়।
ক্যান্সার প্রতিরোধক লাইকোপেন নামক এন্টিঅক্সিডেন্ট শুধু প্রোস্টেট ক্যান্সারই নয়, অগ্ন্যাশয়, মূত্রথলি, গ্রীবাদেশীয় এবং পরিপাকতন্ত্রের বিভিন্ন ক্যান্সার প্রতিরোধে সমান কার্যকর। এ উপাদান তরমুজ, পেয়ারা প্রভৃতিতেও প্রচুর পরিমাণে রয়েছে।
একটা খাবার যা রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা কমাতে, উচ্চতর রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং ক্যান্সারে ঝুঁকি কমাতে সক্ষম, সেটি অবশ্যই রসুন। রসুনের সক্রিয় উপাদান অর্গানোসালফার খাদ্যের ক্যান্সার উত্পন্নকারী রাসায়নিক পদার্থকে নিষ্ক্রিয় করে।
প্রতিদিনের খাবারে সয়াবিন প্রায় ৩৪ শতাংশ রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা কমাতে সক্ষম। আইসোফ্ল্যাভোনস নামক সয়াবিনের ফাইটোইস্ট্রোজেন প্রাকৃতিক ইস্ট্রোজেনের মাত্রা হ্রাস করে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। এ রাসায়নিক পদার্থ হাড় শক্ত করে এবং হট ক্ল্যাশ কমায়। এ ছাড়া টিউমারজনিত রক্তনালীকার বৃদ্ধি রোধ করে।
গ্রিনটি ক্যান্সার ও হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। চায়ের পাতায় ক্যাটচিন নামক পদার্থ থাকে যা ক্যান্সার সহায়ক কোষগুলো ধ্বংস করে এবং রক্তে কোলেস্টেরল মাত্রা কমায়।
বাঁধাকপি, ফুলকপি প্রভৃতিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যান্সার প্রতিরোধকারী সালফোরফিন থাকে যা শরীরে এন্টিঅক্সিডেন্ট এনজাইম তৈরি করে ডিএনএকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে।
কালো জাম, আপেল, আঙুর এগুলোতে রয়েছে এন্থোসায়ানিন নামক এন্টিঅক্সিডেন্ট যা রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেয় এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। এগুলো রাত্রিকালীন দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে, চোখের পেছনের দিকের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র রক্তনালিগুলোকে শক্তিশালী করে, মাংসপেশী শুকিয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে। এন্থোসায়ানিন মস্তিষ্কের বার্ধক্যজনিত পরিবর্তন যেমন- স্মরণশক্তি হ্রাস প্রতিরোধ করে।
আপনার মতামত লিখুন

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ