রবিবার,২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং,৫ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৪:২৭

ঈদের আগেই চালু হবে পার্বতীপুর-দিনাজপুর রেলপথ বন্যায় ২৭ জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত ৫৭ লাখ মানুষ, ৯৩ জনের প্রাণহানি পার্বতীপুরে ইউনিটি ফর ইউনিভার্স হিউম্যান রাইটস্ অব বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন ” উপজেলা শাখার বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ দিনাজপুরে আসছেন চিরিরবন্দরে ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে কলেজ ছাত্র নিহত সিংড়া ও নলডাঙ্গায় বন্যা পরস্থিতি আরো অবনতি নাটোরের সিংড়ায় বন্যার্তদের পাশে শিল্প ও বণিক সমিতি

সরকারি চাকরি প্রার্থী বাড়ছে কেন?

মুক্তিনিউজ24.কম ডেস্ক: গত কয়েকটি বিসিএস পরীক্ষাতেই দেখা যাচ্ছে আবেদনকারীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। সরকারি চাকরির প্রতি আগে থেকেই অনেকের আগ্রহ থাকলেও, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আগ্রহ বেড়েছে কয়েক গুণ।

বেসরকারি চাকরির তুলনায় সরকারি চাকরির প্রতি যুবসমাজের আগ্রহ এতটা বাড়ার কারণ কী?

চাকরি প্রার্থী ও দেশের অর্থনীতিবিদেদের বরাত দিয়ে বিবিসি বাংলা বলেছে, পরিবারের চাহিদা, চাকরির নিরাপত্তা ও ভালো বেতন কাঠামোর কারণেই যুব সমাজ এখন সরকারি চাকরির দিকে ঝুঁকছেন।

গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য আবেদন করেছে প্রায় ৩ লাখ ৯০ হাজার চাকুরিপ্রার্থী। ৩৭তম বিসিএস এর চাইতে চেয়ে প্রায় দেড় লাখ বেশি।

এ বিষয়ে অর্থনীতিবিদ এম এম আকাশ মনে করেন, সরকারি চাকরিতে বেতন বাড়ানো একটি বড় কারণ। পাশাপাশি বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ কম থাকায় চাকরি তৈরি হচ্ছে না এবং উদ্যোক্তা হবার ঝুঁকিও অনেকে নিচ্ছেন না। ফলে সরকারি চাকরির প্রতি ঝোঁক বেশি।

চাকরি প্রার্থীরাও বলেন সেই কথাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, ২০১৫ সালে বেতন কাঠামো পুনর্গঠন করায় এখন সরকারি চাকরির বেতন বেসরকারি চাকরির সমান হয়ে গেছে। এজন্য প্রতিযোগিতাও এখন বেশি।

একজন চাকরি প্রার্থী বিবিসি বাংলাকে বলেন, পরিবারের মানসিকতা হলো সরকারি চাকরি করতে হবে, ক্ষমতা থাকতে হবে, বিয়ে করার জন্য এই চাকরির গ্রহণযোগ্যতা বেশি।

এছাড়া ক্যারিয়ারের শুরুতে ভালো বেতনে বেসরকারি চাকরির সুযোগ কম, অন্যদিকে চাকরি না করে নিজ থেকে উদ্যোক্তা হবার ঝুঁকি নিতে চান না অনেকে।

এক প্রার্থী বলেন, অনেকেই মধ্যবিত্ত বা নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছে। উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য যে ৪ থেকে ৫ বছরের একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে সেসময়ে আমার পরিবার কতটা সাপোর্ট দিতে পারবে সেটাও গুরুত্বপূর্ণ।

অন্যদিকে অনেকে বেসরকারি চাকরি ছেড়েও সরকারি চাকরিতে যোগ দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলার সহকারী কমিশনার তানিয়া মুন জানান, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতা ছেড়ে প্রশাসন ক্যাডারে যোগ দিয়েছেন বছরখানেক আগে। কারণ হিসেবে তিনি বলেন চাকরির নিরাপত্তা, অবসরের পর পেনশন ও গ্রাচুইটি সুবিধা এবং সামাজিক গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টি বিবেচনা করেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

অধ্যাপক আকাশ মনে করেন, বেসরকারি বিনিয়োগ না বাড়লে এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

আপনার মতামত লিখুন

চাকুরীর খবর বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ