শুক্রবার,২৪শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং,১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৪:১০
হবিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩ ২০১৯ সালের মধ্যে ১শ’ কারিগরি স্কুল-কলেজ হচ্ছে পার্বতীপুরে মধ্যপাড়া পাথর খনির ২৫ শ্রমিক পুরস্কৃত আক্রোশের বলি কোমলমতি পরীার্থীরা হবিগঞ্জে মাইক্রোবাস মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সাথে পরিবহন শ্রমিকদের সংঘর্ষে ৪ জন আহত তুচ্ছ ঘটনায় দিনাজপুরে ২টি বাসে আগুন ॥ সমঝোতা বৈঠক সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ ॥ অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট ॥ চরম দুর্ভোগে জনসাধারণ ফুলবাড়ীতে আন্ত : সম্পর্ক উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত

সমস্যার আবর্তে মালঞ্চ ইসলামিক মিশন

islamicmission-2_23093            মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেক্স:জামালপুরের মেলান্দহের মালঞ্চ ইসলামিক মিশন নানা সমস্যায় জর্জরিত। তৎকালীন ধর্ম সচিব আলহাজ এম.এ. রশিদ চিশতী নিজামীর তত্ত্বাবধানে ১৯৮৬সালে উপজেলার মালঞ্চ গ্রামে ইসলামিক মিশন প্রতিষ্ঠিত হয়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আওতায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন এটি পরিচালনা করছে। ধনী-দরিদ্র জনগোষ্ঠির বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতের জন্য এলোপ্যাথিক ও হোমিও দুই সেকশনে বিভক্ত। চিকিৎসা নিতে ভোর হ’তে না’হতেই দুরদুরান্ত থেকে প্রতিদিন কমপক্ষে সহ¯্রাধিক রোগী ভিড় করতো। বিশেষ করে জটিল পুরাতন বে-হিসেবি হতদরিদ্র রোগী সুস্থ্য জীবনে ফিরে এসেছে। ৩বছর যাবৎ হোমিও সেকশন বন্ধ হয়েছে। এতে মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ব্যবহারের অভাবে ওষুধ-আসবাবপত্রসহ চিকিৎসা সামগ্রী নষ্ট হচ্ছে। মিশন প্রধান ডা. রহুল আমিন জানান-লোকবলের অভাবেই হোমিও সেকশন বন্ধ হয়েছে। সর্বশেষ হোমিও ডা. ছিলেন-রফিকুল ইসলাম। হোমিও সেকশনে কমপক্ষে একজন ডাক্তার একজন কম্পাউন্ডার দরকার। সেখানে কেও নেই।
২০১২সালের মে মাসে আগের জায়গা থেকে মিশনটি মসজিদের সামনে রাস্তার সাথে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। যা জরাজীর্ণ পরিবেশে চলছে চিকিৎসা কার্যক্রম। আর আগের ভবনের নিচ তলায় স্থাপন করা হয়েছে অত্যাধুনিক ল্যাব। সেখানে জটিল রোগ নির্ণয়ে পরিক্ষা-নিরিক্ষা করা হয়। দ্বিতীয় তলাটি ব্যবহার হচ্ছে কর্মচারীদের আবাসিক হিসেবে। স্থানান্তরিত ভবনের জীর্ণ দশা। এখানেও ডাক্তার সংকট।
এলোপ্যাথিক সেকশনে ডাক্তারসহ স্টাফ দরকার ১৪জন। সেখানে আছে ডাক্তার মাত্র ১জন। কম্পাউন্ডার ১জন, পিয়ন ১জন। কোন কোন সময় ওষুধ সংকট দেখা দেয়। ফলে সব ধরণের রোগীকে পর্যাপ্ত ওষুধ দেয়া সম্ভব হয় না। একজন ডাক্তার দৈনিক কমপক্ষে দুই শতাধিক রোগির চিকিৎসা দিচ্ছেন। ডাক্তার থাকলে আরো বেশী রোগির চিকিৎসা দেয়া যেত।
ইসলামিক মিশন চিকিৎসার পাশাপাশি কোরআন শিক্ষার জন্য ১০টি মক্তব, ১টি মহিলা বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র পরিচালনা করছে। রমজান মাসে এর পরিধি বৃদ্ধি করা হয়। এছাড়া সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে যৌতুক, সন্ত্রাস, মাদক-অপরাধমুুক্ত সমাজ গঠনে সেমিনার করা হয়। জাতীয়-আন্তর্জাতিকসহ বিভিন্ন দিবস উদযাপন চলমান আছে। বর্র্তমানে বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে দর্জি বিজ্ঞান, করজে হাসেনা (লাভবিহীন) ঋৃণ সুবিধা এবং নৌ-মুুসলিম পূণর্বাসন বন্ধ আছে। এ ব্যাপারে জামালপুর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ডিডি আ: রাজ্জাক জানান-২১টি মিশনের কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন-সরাসরি ইসলামিক ফাউন্ডেশন এবং ধর্মমন্ত্রণালয়। মাঠপর্যায়ে আমাদের কোন হাত নেই। জনহিতকর প্রতিষ্ঠানটি আগের মত সচলের প্রত্যাশা এলাকাবাসির।এবিনিউজ

আপনার মতামত লিখুন

ময়মনসিংহ,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ