শনিবার,২২শে জুলাই, ২০১৭ ইং,৭ই শ্রাবণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ১০:৫৫

পদত্যাগ করলেন হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি সিন স্পাইসার আজ সকালে হজ ক্যাম্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী সুন্দরগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ নাটোরে জাতীয় শিক-কর্মচারী ঐক্য ফ্রন্টের মানববন্ধন ফকিরহাটে পৃথক অভিযানে গাজা সহ আটক-২ রাজধানীতে এপিবিএন-৫ এর অভিযানে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল, ইয়াবা উদ্ধারসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক নাটোরে ট্রেনের ধাক্কায় বৃদ্ধের মৃত্যু

সবচেয়ে বেশি স্প্যাম কল ভারতে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: আপনি কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছেন, তখনই ফোনটি বেঁজে উঠলো। ফোন ধরার পরে বুঝতে পারলেন এটি প্রচারণামূলক বা স্প্যাম কল। তখন মেজাজ খারাপ না হয়ে উপায় থাকে না। ক্রমশ বেড়েই চলেছে স্প্যাম কলের সংখ্যা। এমন স্প্যাম কলে শীর্ষ দেশ ভারত।

সম্প্রতি কোন দেশে সবথেকে বেশি স্প্যাম কল আসে এটা নিয়ে ট্রু-কলার অ্যাপ একটি সমীক্ষা চালিয়েছে। এ সমীক্ষাটি ২০টি দেশে চালানো হয়। সেই সমীক্ষা থেকেই উঠে আসে যে, ভারতের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরাই সবথেকে বেশি স্প্যাম কল রিসিভ করেন। প্রতি মাসে প্রতি ইউজারের কাছে ২২টি করে স্প্যাম কল আসে বলে জানিয়েছে ‘ট্রু-কলার’। ভারতের পরেই রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রাজিল। এই দু’টি দেশের ব্যবহারকারীদের কাছে মাসে ২০ টি করে স্প্যাম কল আসে। তবে গত দুই মাসে যুক্তরাষ্ট্রে স্প্যাম কলের হার বেড়েছে ২০ শতাংশ।
ট্রু-কলারের এই সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে, ভারতে এই স্প্যাম কলের ৫৪ শতাংশ আসে টেলিকম কোম্পানিগুলি থেকে। ২০ শতাংশ স্প্যাম কল আসে বিভিন্ন বেআইনি সংস্থা থেকে। বাকি ১৩ শতাংশ টেলিমার্কেটিং সংস্থা থেকে, ৯ শতাংশ ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস থেকে এবং ৩ শতাংশ বিমা সংস্থা থেকে আসে এই স্প্যামকলগুলি। ইন্ডিয়ান রেগুলেটরি সিস্টেমের ‘ডু নট ডিস্টার্ব’ অপশন থাকা সত্ত্বেও ব্যবহারকারীদের কাছে কেন এত স্প্যাম কল, আসে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।
উল্লেখ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরে যে দেশগুলি স্প্যাম কলের নিরিখে এগিয়ে আছে, সেগগুলি হল চিলি, দক্ষিণ আফ্রিকা, মেক্সিকো। বর্তমানে অ্যাপটি বিশ্বের ২৫০ মিলিয়ন মানুষ ব্যবহার করেন।
আপনার মতামত লিখুন

তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ