রবিবার,১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং,৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৩:০৯
খুলনায় পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে আটক ৯ দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী লালমনিরহাটে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে শিক্ষক আটক লালমনিরহাট ইজতেমার আখেরি মুনাজাতে লক্ষাধীক ধর্মপ্রাণ মানুষের ঢল আজ মহানায়ক মান্নার দশম মৃত্যুবার্ষিকী অনার্স ৪র্থ বর্ষের ফলাফল প্রকাশ ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলছিলাম, কারণ আমি ডুবে যাচ্ছিলাম!

সফল হয়েছে ‘অপারেশন আইরিন’

2 years ago , বিভাগ : জাতীয়,

69_23119                                                              মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেক্স: অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ, বিস্ফোরক, মাদক ও নিরাপত্তা ঝুঁকির হুমকি মোকাবিলায় ৮ জুলাই থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সফল অভিযান চালিয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

ওয়ার্ল্ড কাস্টমস অর্গানাইজেশনের অধীনে রিজিওনাল ইনটেলিজেন্স লিয়াজোঁ অফিস ফর এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিকের (রাইলো এপি) সক্রিয় সদস্য হিসেবে অপারেশন আইরিন নামে এই অভিযান চালানো হয়। এই অভিযানে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিমানবন্দর ও স্থলবন্দর থেকে বিভিন্ন ধরনের অবৈধ পণ্য জব্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

গত ১৪ জুলাই বেনাপোল স্থলবন্দরে বিদেশ থেকে আসা দুই বাংলাদেশির কাছ থেকে ১৮ হাজার ৭৫০ মার্কিন ডলার মূল্যের বিভিন্ন মূদ্রা, শাহজালাল বিমানবন্দরে দুবাই থেকে আসা ৩০ কেজি ওজনের একটি পার্সেল থেকে ৭ হাজার ৪০০ পিস ভায়াগ্রা, কোরিয়ার এক কৌটা ট্যাবলেট ও ছয়টি ধারালো ছুরি জব্দ করা হয়েছে।

এরপরে ১৫ জুলাই বেনাপোলে এক বাংলাদেশির কাছ থেকে ১ লাখ ২ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার সমমূল্যের বিভিন্ন প্রকার বৈদেশিক মূদ্রা, ১৮ জুলাই হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে হংকং থেকে আসা পোস্টাল পার্সেল থেকে ৮৯০ পিস পুরাতন কম্পিউটার র‌্যাম ও চীন থেকে আসা নেটওয়ার্ক সংযুক্ত কম্পিউটার রাইডার, ২০ জুলাই রাজধানীর হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে চীন থেকে আসা পার্সেল থেকে বোমা তৈরির কাজে ব্যবহারযোগ্য সন্দেহে আড়াই কেজি ওজনের সার্কিট বোর্ড, স্প্রিং ও বৈদ্যুতিক তার, এবং ২১ জুলাই শাহজালাল বিমানবন্দরে দুবাই থেকে আসা ১৫০ কার্টন সিগারেট ও ২০ প্যাক আমদানি নিষিদ্ধ ঔষধ, চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ১.২৬ কেজি ওজনের সোনার বার, খুলনার মোংলা বন্দরে চীন থেকে আমদানি করা দুটো কন্টেইনার ভর্তি ব্যবহৃত ডিজপোজেবল সিরিঞ্জ, নিডল, বোরেট সেট ও অক্সিজেন মার্কস জব্দ হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর ৩৩ সদস্য বিশিষ্ট রাইলো এপির ন্যাশনাল কনট্যাক্ট পয়েন্টের (এনসিপি) সক্রিয় সদস্য হিসেবে ওই অভিযানে অংশ নেয়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমে বাংলাদেশের অবদান ও উজ্জল ভাবমূর্তি ধরে রাখতে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে অবৈধ হালকা অস্ত্র, বিস্ফোরক ও মাদকদ্রব্য পাচার রোধে এ অভিযান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল, যা দুষ্কৃতিকারী ও পাচারকারী চক্রের কাছে সতর্কবার্তা পৌঁছে গেছে বলেও শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মনে করেন।এবিনিউজ

আপনার মতামত লিখুন

জাতীয় বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ