মঙ্গলবার-২৩শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং-১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৪:৫৩
হাতীবান্ধায় জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ পালিত সন্ত্রাসীর জিম্মিদশা থেকে মুক্তি পেতে দুইদিন ধরে ব্যবসায়ীদের দোকানপাট বন্ধ।। বর্তমান ১০০ শয্যার জনবল সংকট ৪৮ জন। চিকিৎসা সেবা ব্যাহত, ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের কাজ এগিয়ে চলছে। “জলঢাকা উপজেলা চেয়ারম্যান পদের নির্বাচন ৫ মে” সালের নির্বাচন ছিল অশুভ আতাতের ফসল, যা কারো জন্যই কল্যান বয়ে আনবে না- বদিউল আলম মজুমদার এক্সিকিউটিভ পদে ক্যারিয়ার গড়ুন জায়ান্ট গ্রুপে এক্সিকিউটিভ পদে নিয়োগ দেবে নভোএয়ার

শেবাচিমে মৃত রোগীর স্বজনের হামলায় এসআই আহত

মনির হোসেন,বরিশাল ॥ শেবাচিম হাসপাতাল থেকে বিনা অনুমতিতে মরদেহ নেয়ার চেষ্টাকালে বাঁধা প্রদান করায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাজমুল ইমলামসহ হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী শাহাদাত হোসেন শান্তকে মারধর করেছে নিহতের স্বজনরা।
প্রত্যদর্শী ও হাসপাতালের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত কর্মচারীরা জানান, জেলার উজিরপুর উপজেলার ধামুরার কাংশি এলাকার মৃত আজাহার আলী সরদারের পুত্র আবু আনসারের (৪০) ওপর গাছ ভেঙে পরায় গুরুত্বর আহত হন তিনি। পরে তাকে রবিবার সন্ধ্যায় শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আনসারকে মৃতবলে ঘোষণা করেন। পাশাপাশি দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর কারণে মরদেহটি হাসপাতাল কর্তৃপ মর্গে রাখার নির্দেশ দেন। হাসপাতালের কর্মচারী শান্ত মরদেহটি মর্গে নিয়ে যাওয়ার সময় নিহত ব্যক্তির স্বজনরা তাতে বাঁধা দেন। এ সময় শান্ত নিয়মানুযায়ী মরদেহটি নিয়ে যাওয়ার জন্য নিহতের স্বজনদের বিষয়টি বুঝিয়ে বলেন। এতে স্বজনরা প্তি হয়ে শান্তকে মারধর করে। এসময় হাসপাতালে দায়িত্বরত পুলিশের এসআই নাজমুল এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করা হয়। পরে জরুরি বিভাগে দায়িত্বরতরা পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে মরদেহটি হাসপাতালের মর্গে নিয়ে রাখেন।
শেবাচিম হাসপাতালের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাঃ আমিরুল ইসলাম জানান, রোগীকে মৃত্যু ঘোষণার সাথে সাথে তার স্বজনরা মরদেহ নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। হাসপাতাল কর্তৃপকে না জানিয়ে মরদেহটি নিয়ে যাওয়ার বাঁধা দেয়ায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। আহত এসআই নাজমুল ইসলামের অভিযোগ, অনুমতি ছাড়া হাসপাতাল থেকে মরদেহ নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে নিহত ব্যক্তির এক স্বজনের হাতে থাকা পানির বোতল ছুড়ে মারলে তিনি চোখে আঘাতপ্রাপ্ত পান। কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, যেহেতু মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঘটনাটি ঘটেছে। তাই বিষয়টি মানবিক দিক থেকে বিবেচনা করে হামলাকারী কাউকে আটক করা হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন

ঢাকা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ