বুধবার,১৮ই জানুয়ারি, ২০১৭ ইং,৫ই মাঘ, ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৪:০০
‘পোশাকশিল্পে কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকার দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’ পার্বতীপুরে ওপেন হাউজ-ডে ঠাকুরগাঁওয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড পটিয়া বাইপাস সড়ক নির্মাণ কাজ পরিদর্শনে এমপি সামশুল হক কোচিং থেকে অবসর নিলেন লুই ফন খাল ফের নাপোলিতে ফিরছেন মারাডোনা আজ রাতে সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে ফিরছেন রোনালদো

শীতের সবজি আসতে শুরু করেছে রাজধানীর বাজারগুলোতে

vegetableমুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: শীত না এলেও শীতের সবজি আসতে শুরু করেছে রাজধানীর বাজারগুলোতে। তবে দাম তুলনামূলক বেশি। বাজারভেদে দামেরও হেরফের রয়েছে। বিক্রেতারা বলছেন, সবজিগুলো বাজারে নতুন ওঠানোর সময় দাম বেশিই রাখা হয়। কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে কিনতে হয় বলে বিক্রিও করতে হয় বেশি দামে। তবে শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজির সরবরাহ বেড়ে গেলে দামও কমে আসবে।

সরেজমিনে রাজধানীর কারওয়ান বাজার, কাঁঠালবাগান ও হাতিরপুল বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন ধরনের শীতের সবজি নিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা। সবজির মধ্যে শিম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১২০ টাকায়, ফুলকপি প্রতিটি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, বাঁধাকপি প্রতিটি ২৫ থেকে ৩০ টাকা ও বেগুন প্রতি কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। এ ছাড়া প্রতি কেজি ধনেপাতা ৩০০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, মুলা ৫০ টাকা, করলা ও চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শীতের সবজির মধ্যে টমেটো থাকলেও এখন সারা বছরই টমেটো পাওয়া যায়। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা কেজি দরে। শীতের সবজির সঙ্গে বিক্রি হচ্ছে জলপাইও। অনেকে ডাল বা টকের তরকারি হিসেবে জলপাই ব্যবহার করেন। অনেকে জলপাইয়ের আচার বানান। জলপাই বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে। তবে শীতের নতুন আলু বাজারে আসেনি এখনো। বিক্রেতারা জানালেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই নতুন আলুও বাজারে পাওয়া যাবে।

এদিকে দামের ক্ষেত্রে বেশ ভিন্নতাও পাওয়া গেছে। পাশাপাশি দোকানের সবজির দামে হেরফের দেখা গেছে। বাজারভেদেও রয়েছে দামের ভিন্নতা।
হাতিরপুলে এক দোকানে শিম বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে। আবার পাশের দোকানেই বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়। বেশি দামে বিক্রি করা বিক্রেতা মো. আমান দাবি করেছেন, তাঁর শিমের মান ভালো। এ কারণে দাম বেশি।
হাতিরপুল বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. সবুজ বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরেই শীতের নানা ধরনের সবজি বিক্রি শুরু হয়েছে। দিন দিন সরবরাহ বাড়ছে। তবে নতুন বলে দাম কিছুটা বেশি।
আরেক বিক্রেতা নাসির মিয়া জানালেন, বিক্রেতাদের বেশি দামে সবজি কিনতে হচ্ছে। এ কারণে তাঁরা ক্রেতাদের কাছে দাম বেশি রাখছেন।
কয়েকজন সবজি বিক্রেতা জানালেন, শিম, ধুন্দুল, ফুলকপি, বাঁধাকপি এসব বেশি আসছে খুলনা, কুষ্টিয়া ও যশোর এলাকা থেকে। সেসব এলাকায় তুলনামূলক উঁচু জায়গায় এসব সবজির চাষ হয়। এ ছাড়া যেসব এলাকায় বন্যার পানি সরে যেতে শুরু করেছে, সেখানেও সবজির চাষ শুরু হয়েছে। সেগুলো একযোগে আসা শুরু হলে দাম অনেক কমে আসবে।

কারওয়ান বাজারে ধনেপাতা, মুলা ও ফুলকপি কিনছিলেন কাঁঠালবাগানের বাসিন্দা আবরার খান। তিনি জানালেন, কাঁঠালবাগান বাজারেও সবজি পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সেসব সবজির দাম কারওয়ান বাজার থেকে প্রতি কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা বেশি। তাই তিনি কারওয়ান বাজারে সবজি কিনতে এসেছেন। দুটি ফুলকপি তিনি ৫০ টাকায় কিনেছেন। অথচ কাঁঠালবাগানে এর দাম ৮০ টাকা বলে জানালেন। একই ভাবে ধনেপাতা ও মুলার দামও কারওয়ান বাজারে কম বলে জানালেন তিনি।
ধনেপাতা বিক্রেতা আবুল বাশার বলেন, কয়েক দিন আগেও ধনেপাতার কেজি ৫০০ টাকা ছিল। এখন ৩০০ টাকা। দাম আরও কমে আসবে।

আপনার মতামত লিখুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


%d bloggers like this: