বৃহস্পতিবার,২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং,৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৭:৩২

দিনাজপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক কচি’র মুক্তির দাবীতে সংবাদ সম্মেলন রোহিঙ্গাদের নির্যাতন বন্ধের দাবীতে ঝিনাইগাতীতে ওলামা মাশায়েখ ঐক্য পরিষদের উদ্দ্যোগে মানববন্ধন সাংবাদিকতায় চ্যানেল টোয়েন্টিফোরে চাকরির সুযোগ আহছানিয়া মিশনে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, বেতন ১৫ হাজার টাকা ডিপ্লোমা পাসে বিমানে চাকরি ঢাকার পাশে অপ্পোতে কাজের সুযোগ আকর্ষণীয় বেতনে প্রথম আলোতে চাকরি

লালপুরে বর্ষা মৌসুমের ধানের বীজতলা ও জমি প্রস্তুতে ব্যাস্ত কৃষকুল

Lalpur Dhan(3)16-7-16

মোস্তফা বায়েজিদ কাদের (নয়ন),নাটোর জেলা প্রতিনিধি,
নাটোরের লালপুর উপজেলার বর্ষা মৌসুমের খরিফ-২ এর রূপা আমন ধান লাগানোর জন্য বীজতলা ও জমি প্রস্তুতে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছেন এই অঞ্চলের কৃষকরা । স্থানীয় সূত্রে, বাংলাদেশের মানচিত্রে লালপুর থানা সবচেয়ে উচু ও কম বৃষ্টিপাতের এলাকা হওয়ায় এই অঞ্চলের জমিতে খরিফ-১এর রূপা আউষও রবি মৌসুমের বোরো ধানের চাষ হয় না । যার দরুন এই অঞ্চলের কৃষকের একমাত্র বর্ষা মৌসুমের রূপা আমন ধানের চাষ করে থাকে । আর এই বছর চলতি মৌসুমের শুরু থেকে কম বেশী প্রায় প্রতিনিয়ত বৃষ্টি হচ্ছে এবং আষাঢ়এর শুরু থেকে দেখা মিলেছে আষাঢ়ারের ভাড়ী বর্ষণের । তাই তো এই অঞ্চলের কৃষকরা ব্যাস্থ হয়ে উঠেছে বর্ষা মৌসুমের ধান লাগানোর জন্য বীজতলা ও জমি তৈরিতে । এ ব্যাপারে স্থানীয় ধান চাষী ,নূর ইসলাম ,সিরাজুল ইসলাম,সোহেল রানা, আবুল হোসেন , হাবিবুর রহমান, মোস্তফা জানায়, এই অঞ্চলে কম বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে অন্যান্য মৌসুমের খরিফ-১ এর রোপা আউষ ও রবি মৌসুমের বোরো ধানের চাষ হয় না । তাই এই অঞ্চলের কৃষকগন একমাত্র বর্ষা মৌসুমের খরিফ -২এর রূপা আমন ধানের চাষ করে থাকে । এই মৌসুমে আষাঢ় এর প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করে আষাঢ়ারের ১৫দিন পর্যন্ত বীজতলাই ধানের বীজ বপনের কাজ চলে । আর আষাঢ়ের ৩০ তারিখ থেকে শুরু করে শ্রাবণের ২০ তারিখ পর্যন্ত জমিতে ধান লাগানোর কাজ চলে । আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এই মৌসুমে প্রতি ১ বিঘা জমিতে ২০-২৫ মন পর্যন্ত ধানের ফলন হয়ে থাকে । এই অঞ্চলে বর্ষা মৌসুমের যে সকল জাতের ধানের চাষ হয়ে থাকে তা হলো ,লাল স্বরর্ণা ,গুঠি স্বরর্ণা,৩৩,বি১১,মিনিকেট,৪৯,৫০, ইত্যাদি জাত সমূহ উল্যেখ্য । তবে দেশীয় জাতের ধানের তুলনাই হাইব্রিট জাতীয় ধান চাষে রোগ পোকমাকরের আক্রমন কম ও অনান্য দেশীয় জাতের ধানের তুলনাই বিঘা প্রতি ফলন ও বেশি হওয়ায় এবং উচু নিচু সকল প্রকার জমিতে চাষ করা যায বলে চলতি বছরে এই অঞ্চলের কৃষকগন হাইব্রিট জাতের ব্রী-ধান,জিরা শাইল ,সম্পদ এবং উপষী জাতের ব্রী-ধান ৫০,৪৮,৫৫,৫২বিনা ৭ ধান চাষের উপর বেশী আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

আপনার মতামত লিখুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ