মঙ্গলবার,১৯শে জুন, ২০১৮ ইং,৫ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৪:৪২
“কুয়াকাটা সৈকতে জোয়ারে কান্না,ভাটায় হাসি” দিনাজপুরের চার উপজেলার কৃতি শিক্ষার্থীদের সংর্বধনা প্রদান ঈদের ছুটি কাটিয়ে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আবারও আমদানি-রপ্তানি শুরু ঠাকুরগাঁওয়ে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ১৫ খানসামায় বিদ্যুৎ স্পষ্টে নিহত ১ সৈয়দপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ৯, আহত ১৫ গাজীপুরের উন্নয়নে হাজার হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ আসছে

লালপুরে বর্ষা মৌসুমের ধানের বীজতলা ও জমি প্রস্তুতে ব্যাস্ত কৃষকুল

2 years ago , বিভাগ : সারাদেশ,

Lalpur Dhan(3)16-7-16

মোস্তফা বায়েজিদ কাদের (নয়ন),নাটোর জেলা প্রতিনিধি,
নাটোরের লালপুর উপজেলার বর্ষা মৌসুমের খরিফ-২ এর রূপা আমন ধান লাগানোর জন্য বীজতলা ও জমি প্রস্তুতে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছেন এই অঞ্চলের কৃষকরা । স্থানীয় সূত্রে, বাংলাদেশের মানচিত্রে লালপুর থানা সবচেয়ে উচু ও কম বৃষ্টিপাতের এলাকা হওয়ায় এই অঞ্চলের জমিতে খরিফ-১এর রূপা আউষও রবি মৌসুমের বোরো ধানের চাষ হয় না । যার দরুন এই অঞ্চলের কৃষকের একমাত্র বর্ষা মৌসুমের রূপা আমন ধানের চাষ করে থাকে । আর এই বছর চলতি মৌসুমের শুরু থেকে কম বেশী প্রায় প্রতিনিয়ত বৃষ্টি হচ্ছে এবং আষাঢ়এর শুরু থেকে দেখা মিলেছে আষাঢ়ারের ভাড়ী বর্ষণের । তাই তো এই অঞ্চলের কৃষকরা ব্যাস্থ হয়ে উঠেছে বর্ষা মৌসুমের ধান লাগানোর জন্য বীজতলা ও জমি তৈরিতে । এ ব্যাপারে স্থানীয় ধান চাষী ,নূর ইসলাম ,সিরাজুল ইসলাম,সোহেল রানা, আবুল হোসেন , হাবিবুর রহমান, মোস্তফা জানায়, এই অঞ্চলে কম বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে অন্যান্য মৌসুমের খরিফ-১ এর রোপা আউষ ও রবি মৌসুমের বোরো ধানের চাষ হয় না । তাই এই অঞ্চলের কৃষকগন একমাত্র বর্ষা মৌসুমের খরিফ -২এর রূপা আমন ধানের চাষ করে থাকে । এই মৌসুমে আষাঢ় এর প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করে আষাঢ়ারের ১৫দিন পর্যন্ত বীজতলাই ধানের বীজ বপনের কাজ চলে । আর আষাঢ়ের ৩০ তারিখ থেকে শুরু করে শ্রাবণের ২০ তারিখ পর্যন্ত জমিতে ধান লাগানোর কাজ চলে । আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এই মৌসুমে প্রতি ১ বিঘা জমিতে ২০-২৫ মন পর্যন্ত ধানের ফলন হয়ে থাকে । এই অঞ্চলে বর্ষা মৌসুমের যে সকল জাতের ধানের চাষ হয়ে থাকে তা হলো ,লাল স্বরর্ণা ,গুঠি স্বরর্ণা,৩৩,বি১১,মিনিকেট,৪৯,৫০, ইত্যাদি জাত সমূহ উল্যেখ্য । তবে দেশীয় জাতের ধানের তুলনাই হাইব্রিট জাতীয় ধান চাষে রোগ পোকমাকরের আক্রমন কম ও অনান্য দেশীয় জাতের ধানের তুলনাই বিঘা প্রতি ফলন ও বেশি হওয়ায় এবং উচু নিচু সকল প্রকার জমিতে চাষ করা যায বলে চলতি বছরে এই অঞ্চলের কৃষকগন হাইব্রিট জাতের ব্রী-ধান,জিরা শাইল ,সম্পদ এবং উপষী জাতের ব্রী-ধান ৫০,৪৮,৫৫,৫২বিনা ৭ ধান চাষের উপর বেশী আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

আপনার মতামত লিখুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ