বুধবার-২৪শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং-১১ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৩:০০
চন্দনারানীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পূঁজা উৎযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দিলিপ চন্দ্র সাহা গাইবান্ধায় মন্দির ভিত্তিক প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ গাইবান্ধায় অটোবাইকের ধাক্কায় আহত যুবকের মৃত্যু কামারপাড়া ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামে বসতবাড়ি ও ফসলি জমি ঘেঁষে তিন ফসলি জমিতে ইটভাটা স্থাপন গ্রামীণ জনপদে সুইমিং পুল, রিসোর্ট- বাঘ, হরিন, হাতি, পাখির স্ট্যাচুসহ বিভিন্ন রাইড ও খেলনা বিনোদন প্রেমীদের জন্য ফারিহা গার্ডেন মনির হোসেন.বরিশাল ॥ দক্ষিণাঞ্চলে সড়ক পথে প্রথম সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন চার মুক্তিযোদ্ধা বরিশালে বোরো ধানের বাম্পার ফলনেও হাসি নেই কৃষকের

যেসব ফুল খাওয়া যায়!

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ফুল সবাই ভালোবাসে। বাড়ির সামনে বা আশপাশে জায়গা না থাকলে বারান্দায় বা ঘরের কোণায় ফুলের গাছ লাগান এমন মানুষের সংখ্যা একদমই কম নয়। মজার ব্যাপার হলো ফুল শুধু চোখ নয়, পেটও ভরাতে পারে। এমন কয়েকটি ফুল রয়েছে, যেগুলো খাওয়া যায়।

সজনে ফুল:
সজনে ডাটা আর পাতা দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে তরকারি হিসেবে খাওয়া হয়। এর ফুলও খাদ্য হিসেবে বেশ স্বাদের। গরম ভাতের সঙ্গে সজনে ফুলের বড়া খেতে অনেকেই পছন্দ করেন।
কুমড়ো ফুল:
কুমড়ো ফুলের বড়া দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের কাছেই জনপ্রিয়। বেসন বা চালের গুঁড়োর ব্যাটারে কুমড়ো ফুল চুবিয়ে ডুবোতেলে ভেজে নেয়া হয়। এছাড়া কুমড়ো ফুল ভেজেও খাওয়া যায়। কেউ কেউ ঝোল ঝোল করে তরকারিও রান্না করে থাকে এই কুমড়ো ফুল দিয়ে।

শিমের ফুল:
কেউ কেউ শিমের ফুল চুলার হালকা আঁচে ভেজে ভর্তা বানানো যায়। পেঁয়জ, মরিচ আর সরিষার তেল মাখানো এই ভর্তা গরম ভাতের সাথে খেতে ভালো লাগবে।

মোচা:
কলাগাছের ফুল যা মোচা নামে পরিচিত, এটি তরকারি হিসেবে খাওয়া হয়। ডালের বড়ি বা চিংড়ি দিয়ে মোচার ঘণ্ট রান্না করা হয় কোনো কোনো অঞ্চলে। মোচা ভেজেও খাওয়া হয়। আর ময়দা বা বেসন মিশিয়ে বড়া বানালে খেতে মন্দ লাগে না।

জুঁই ফুল:
সাধারণত গ্রিন টি’র সঙ্গে জুঁই ফুল মেশানো হয়।

গাঁদা:
গাঁদা ফুলের পাপড়িও চায়ের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া হয়। এতে দৃষ্টিশক্তি ভাল থাকে।

গোলাপ:
বিভিন্ন খাবারে গোলাপ জল মেশানো হয় সেই আদি যুগ থেকে। একসময় মানুষ কোনো কোনো খাবারে গোলেপের পাপড়ি শুকিয়ে গুঁড়ো করে দিতেন।

আপনার মতামত লিখুন

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ