শুক্রবার,১৪ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং,৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১১:২১
হাবিবুলকে ছাড়িয়ে নেতৃত্ব দেয়ার রেকর্ড মাশরাফির সেনাবাহিনী মাঠে নামবে ২৪ ডিসেম্বর পার্বতীপুর মুক্ত দিবস ১৫ ডিসেম্বর পার্বতীপুরে আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম বৃত্তি প্রকল্পের বাছাই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট হানাদার মুক্ত দিবস আজ আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

যুক্তরাজ্যে হারানো বাজার ফিরে পাবে বাংলাদেশ?

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:   বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলোয় নিরাপত্তার ঘাটতির কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশ থেকে কার্গোবাহী বিমান সরাসরি যুক্তরাজ্যে পাঠানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল ব্রিটিশ সরকার। এ নিষেধাজ্ঞার কারণে বাংলাদেশ থেকে ব্রিটেনে খাদ্য, শাকসবজি আমদানি করতেন যে ব্যবসায়ীরা মূলত তারাই সমস্যায় পড়েছিলেন। প্রায় ২ বছর পর তুলে নেয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা । কিন্তু এখন ব্যবসায়ীরা কি আবার আগের মতো সব পণ্য আমদানি করতে পারবেন?
ব্রিটিশ-বাংলাদেশ ফুড অ্যান্ড ভেজিটেবল ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট রফিক হায়দার বলেন, নিষেধাজ্ঞার ফলে সে সুযোগ নিয়ে এর মধ্যে অন্যান্য দেশ এ বাজারে ঢুকে পড়েছে। ফলে বিরাট ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে গেছে বাংলাদেশ।
তিনি বলেন, ‘এ অবস্থার কারণে ব্যবসা অনেকটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিশেষ করে যুক্তরাজ্যে আগে যত মালামাল আসতো নিষেধাজ্ঞার ফলে অন্যান্য দেশ যেমন ভারত, পাকিস্তান, জর্ডান, হল্যান্ড, ইতালি বিভিন্ন দেশ এসব পণ্য উৎপাদন করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয়ে গেছে।’
রফিক হায়দার বলেন, এমবার্গোর ফলে সে সুযোগে অন্যান্য দেশে এ বাজারে ঢুকে পড়েছে। এখন আমাদের পণ্য নিয়ে প্রায় ৪০% আছি। যেসব দেশ এসব পণ্যের ব্যাপারে আগে জানতো না সেইসব দেশের সরকার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিয়ে মার্কেটটা ধরে ফেলেছে। সুতরাং বিরাট একটা ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে গেছে বাংলাদেশ।
গত দুই বছর ধরে এ নিষধাজ্ঞার ফলে বাজারে বাংলাদেশের যে অবস্থা ছিল সেটি অনেক নিম্নমুখী হয়ে গেছে। এক সময় এমনকিছু সবিজ ছিল, যা বাংলাদেশের বাইরে অন্য কোথাও থেকে আসত না। এর মধ্যে রয়েছে বরবটি, শিমসহ বেশ কয়েক ধরনের সবজি। যুক্তরাজ্যে হারানো বাজার ফিরে পাবে বাংলাদেশ?
এখন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার পর সেই বাজার ফিরে পাওয়া কি কঠিন হবে? এমন প্রশ্নে এই আমদানিকারক বলেন, অন্যান্য দেশ চেষ্টা করছে যাতে তাদের বাজার বন্ধ হয়ে না যায়। তারা সাবসিডি দিচ্ছে, বাজার মনিটর করছে-বাজার ধরে রাখার জন্য।
বাংলাদেশ থেকে এ ধরনের কি পরিমাণ পণ্য আমদানি করা হয় জানতে চাইলে রফিক হায়দার বলেন, ২০ বছর আগে বাংলাদেশ থেকে এ ধরনের পণ্যের চাহিদা ছিল ৪০ মিলিয়ন ডলারের। কুড়ি বছর পরেও এখনও সেই ৩০-৪০ মিলিয়নে আটকে আছে বাংলাদেশ। বাজার কিন্তু ৪০০ মিলিয়ন ডলারের।
তার মতে, দেশ থেকে যারা রফতানি করেন তাদের অধিকাংশই যুক্তরাজ্যের চাহিদা কী সেটি সঠিকভাবে অনুধাবন করতে পারেনি। তারা মনে করে স্থানীয় বাজারে যেভাবে পণ্য পাঠিয়ে দেয় সেভাবে পাঠালেই ঞয়, কিন্তু যুক্তরাজ্যের বাজার আর স্থানীয় বাজার তো সমান নয়।
এ বিষয়গুলো যাদের দায়িত্ব মনিটর করার তারা তা সঠিকভাবে না করায় বাজারটি নষ্ট হয়ে গেছে বলে যুক্তরাজ্যের আমদানিকারকরা মনে করেন।সূত্র: এবিনিউজ
আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ