বৃহস্পতিবার,১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং,৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: বিকাল ৫:৫১
দিনাজপুরে সাংবাদিকদের সাথে সনাকের মতবিনিময় সভা হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ে আইকিউএসরি পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত শীতকে উপেক্ষা করে ফকিরহাটে মাঠে মাঠে চলছে ধান চারা লাগানোর প্রস্তুতি বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উন্নয়ন কাজে শ্রমিক নিয়োগের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন ॥ শপথ নিলেন রসিক মেয়র ও কাউন্সিলররা প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২০ প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান মুক্তিযোদ্ধা বিবেচনার বয়স কমপক্ষে ১২ বছর ৬ মাস

বেঁচে থাকার ভরসা পেয়েছে “জোড়া লাগানো” নবজাতক ময়না-টিয়া

1 year ago , বিভাগ : সিলেট,

baby-picআজিজুল ইসলাম সজিব, হবিগঞ্জ সংবাদদাতা: অবশেষে বেঁচে থাকার ভরসা পেয়েছে নবজাতক “ময়না-টিয়া”। হত-দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেয়া ওই দুই “জোড়া লাগানো” নবজাতকের ব্যবস্থা হয়েছে উন্নত চিকিৎসার। স্থানীয় এমপি ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তাদের এখন ঠাই হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজে। জানা যায়, গত ২দিন ধরে ওই দুই শিশুর উন্নত চিকিৎসার জন্য মানবিক আবেদন জানিয়ে ফেইসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে চালানো হয় প্রচারনা। এতে সাড়া পড়ে সুশীল সমাজে। এগিয়ে আসেন হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি আলহাজ্ব মোঃ আবু জাহির ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ সফিউল আলম। ব্যক্তিগতভাবে তাদের পক্ষ থেকে ওই দুই শিশুর উন্নত চিকিৎসার জন্য অনুদান হিসেবে দেয়া হয় ২০ হাজার টাকা। শুধু তাই নয়, উন্নত চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছে জেলা প্রশাসন। গতকাল রবিবার রাত ৮টার দিকে শিশুদের পাঠানো হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজে। এদিকে, ওই শিশুদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছে নিজ গ্রাম মুরাদপুরের লোকজনও। অনেকেই চাদা তুলে দিয়েছেন আর্থিক সাহায্য।
উল্লেখ্য, মাথা দুটি, হাত ও পা চারটি কিন্তু পেট ও বুক জোড়া লাগানো। গত মঙ্গলবার হবিগঞ্জ শহরের নিউ লাইফ কেয়ার হাসপাতালে এমন দুটি মেয়ে শিশুর জন্ম দেন বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের দরিদ্র আব্দুল জলিলের স্ত্রী জোসনা বেগম। জন্মের পরপরই নবজাতক শিশুদ্বয়কে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মোঃ কায়সার রহমানকে দেখানো হয়। তিনি শিশুদের ঢাকা পিজি হাসপাতালে নিয়ে উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দেন। এরই মাঝে নিউ লাইফ কেয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ও পেডিয়াট্রিক সার্জন ডা. এম এ মুমিন রাসেল শিশুদের দেখে যান। তিনিও ঢাকায় নিয়ে অপারেশনের মাধ্যমে শিশুদের পৃথক করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেন। কিন্তু এ কাজটি অত্যন্ত ব্যয় বহুল হওয়ায় দরিদ্র আব্দুল জলিলের পক্ষে তা অসম্ভব হয়ে পড়ে।

আপনার মতামত লিখুন

সিলেট বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ