শনিবার,২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং,১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: দুপুর ২:০৩
‘আনন্দ শোভাযাত্রা’ শুরু আজ দেশজুড়ে আনন্দ শোভাযাত্রা পার্বতীপুর প্রগতি সংঘের নির্বাচন সম্পন্ন — সভাপতি আনোয়ারুল – সম্পাদক আমজাদ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু আমরা ম্যাচ বাই ম্যাচ যেতে চাই: রুবেল কুষ্টিয়ায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে সুপারভাইজার নিহত বারী সিদ্দিকীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশকে ১০ মিলিয়ন ডলার দিচ্ছে

wb1_23289         মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: সরকারি অর্থের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত ও স্বচ্ছতা বাড়াতে সরকারের প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থা সম্প্রসারন ও উন্নয়নে মঙ্গলবার বিশ্ব ব্যাংকের সাথে ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি অতিরিক্ত আর্থিক চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে সরকার ও বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষে এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন কাজী শফিকুল আজম ও রাজশ্রী পরলকার। বিশ্ব ব্যাংকের বাংলাদেশস্থ প্রতিনিধি ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর রাজশ্রী পরলকার বলেন, বাংলাদেশ সরকারি প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থার ক্ষেত্রে ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে পযার্য়ক্রমে প্রচলিত প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থা থেকে আর্ন্তজাতিক মানে উন্নতি ঘটিয়েছে। বিশ্ব ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, অর্থনীতি, সক্ষমতা ও ব্যবস্থার স্বচ্ছতার ক্ষেত্রে ফলাফল দৃশ্যমান হয়েছে যা অর্থেও যথাযথ মূল্য নিশ্চিত করবে।
বিশ্ব ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, এ অতিরিক্ত অর্থায়ন প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থার সামর্থ আরো জোরদার করতে এবং প্রকিউরমেন্ট সংস্থাগুলোর ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে অবদান রাখবে। এর ফলে দেশে বিনিয়োগ পরিবেশের উন্নতি ঘটবে এবং দারিদ্র্য বিমোচনের গতি ত্বরান্বিত হবে। সরকারি প্রকিউরমেন্ট সংস্কার প্রকল্প দ্বিতীয় ধাপে প্রদেয় এই অতিরিক্ত অর্থায়ন ২০০ টেরাবাইট স্টোরেজ সক্ষমতা সম্পন্ন একটি আধুনিক ডাটা সেন্টার স্থাপন এবং বিদ্যমান কম ক্ষমতাসম্পন্ন ডাটা সেন্টারের পরিবর্তে একটি মিরর সাইট স্থাপনে সহায়ক হবে।
এই অর্থায়ন সরকারি প্রকিউরমেন্ট সংক্রান্ত প্রফেশনাল সার্টিফিকেশন এবং প্রশিক্ষনে সহায়তা দিয়ে যাবে। প্রকল্প সহায়তায় ৮৯ জন সরকারি কর্মকর্তা ব্রিটেন ভিত্তিক চার্টাড ইনষ্টিটিউট অব প্রকিউরমেন্ট সাপ্লাই থেকে সদস্যপদ ও পেশাগত ডিপ্লোমা অর্জন করেছেন এবং ৮৪ জন প্রকিউরমেন্ট বিষয়ে মাস্টার্ড ডিগ্রী অর্জন করেছেন।
প্রকল্প সহায়তায় প্রায় ২,৭০০ জনকে সরকারি প্রকিউরমেন্ট বিষয়ে প্রশিক্ষন দেয়া হয়েছে এবং এতে গুরুত্বপূর্ণ প্রকিউরমেন্ট সংস্থাগুলোর ৮৫ শতাংশের বেশী প্রতিষ্ঠানে অন্তত একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মী নিশ্চিত হয়েছে। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী শফিকুল আজম বলেন, সরকার প্রযুক্তি ভিত্তিক উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। একটিমাত্র জাতীয় ওয়েব পোর্টালের অধীনে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইলেকট্রনিক পদ্ধতির সরকারি প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থা ই-জিপি চালু হওয়ায় সরকারি প্রকিউরমেন্টের ক্ষেত্রে একটি ভাল ভিত্তি তৈরি হয়েছে। এতে আর্থিক লেনদেনের খরচ হ্রাস পেয়েছে এবং টেন্ডার প্রক্রিয়াকরণের সময় ৫১ দিন থেকে হ্রাস পেয়ে ২৯ দিনে দাঁড়িয়েছে।
অতিরিক্ত সচিব বলেন, বাংলাদেশ প্রায় ৫.৮ বিলিয়ন মাকির্ন ডলার মূল্যের ৫৫ হাজারের বেশি সরকারি টেন্ডার অনলাইনে দিয়েছে। ই-জিপি ব্যবস্থার অধীনে ২০১২ সালের পর থেকে ২১ হাজার দরদাতা অংশ নিয়েছে। তিনি বলেন, এই অতিরিক্ত অথার্য়নের মাধ্যমে স্থাপিত অধিক ক্ষমতাসম্পন্ন ডাটা সেন্টার অন্যান্য সরকারি সংস্থাগুলোকেও ই-জিপি প্লাটফর্ম ব্যবহার করার সুযোগ কওে দিবে।
২০১১ সাল থেকে চারটি সংস্থা ইলেকট্রোনিক প্রকিউরমেন্ট ব্যবস্থা এবং অন লাইনে মনিটরিং চালু করেছে। এগুলো হলো পরিবহন, স্থানীয় সরকার, পানি এবং বিদ্যুৎ বিভাগ। এরা দেশের বাষির্ক উন্নয়ন বাজেটের প্রায় অধের্ক ব্যয় করে। এ সেবা এখন দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রায় ২০০ সরকারি প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যেই এ ব্যবস্থায় নিবন্ধিত হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় পরিচালিত প্রকল্পে এখন এই অতিরিক্ত অর্থায়ন সহ সহায়তার পরিমান দাড়িয়েছ ৬৮.১০ মিলিয়ন মাকির্ন ডলার।

আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ