বৃহস্পতিবার,১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং,৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ১১:২৭
আদনান খুনে ৫ ছাত্র আটক, ছোরা উদ্ধার আজও আদালতে যাবেন খালেদা জিয়া নাইজেরিয়ায় জোড়া আত্মঘাতী হামলায় নিহত ১২ ফিল্ম ক্লাবের নির্বাচিতদের শুভেচ্ছা জানালেন শাকিব খান শরীয়তপুরে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক গাজীপুরে জোড়া খুনের প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার ৫ বাগেরহাটে ৫’শত পিচ ইয়াবাসহ মাদক বিক্রেতা আটক

বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন হতে আমরাই বাধ্য করেছি : নওয়াজ শরিফ

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:  ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিদের কারণেই বাঙালিরা বাধ্য হয়ে সশস্ত্র যুদ্ধের মধ্য দিয়ে আলাদা স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন করেছিল বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির সদ্য পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।

গতকাল মঙ্গলবার ইসলামাবাদের পাঞ্জাব হাউসে আইনজীবীদের এক সমাবেশে নওয়াজ শরিফ এ মন্তব্য করেন।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয়লাভ করলেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী। আলোচনার নামে বারবার কালক্ষেপণ করা হয় এবং একপর্যায়ে নিরীহ বাঙালিদের ওপর গণহত্যা চালানো হয়। যার পরিণতিতে স্বাধীনতা-সংগ্রামের ডাক দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ৩০ লাখ শহীদ আর দুই লাখ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে স্বাধীন বাংলাদেশ নামে রাষ্ট্রের অভ্যুদয়।

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, রাষ্ট্র তাঁকে যেভাবে একঘরে করে ফেলেছে, তার সঙ্গে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের কাছ থেকে বাংলাদেশের স্বাধীন হওয়ার পটভূমির মিল রয়েছে।

নওয়াজ শরিফ বলেন, ‘বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্ন হতে আমরাই বাধ্য করেছি। শেখ মুজিবুর রহমান বিদ্রোহী ছিলেন না। তবে তাঁকে রাষ্ট্রই বিদ্রোহী বানিয়েছিল।’

১৯৭১ সালের পরিণতির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে নওয়াজ বলেন, রাষ্ট্রের নির্বাচিত জনপ্রিয় এক নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব হস্তান্তর করা থেকে বিরত থাকার কারণেই ভয়াবহ পরিণতি ডেকে এনেছিল।

পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশের বিচ্ছিন্ন হওয়ার ব্যাপারে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তান তৈরির পেছনে বাঙালিরা প্রধান ভূমিকা পালন করেছিল। কিন্তু আমরা তাদের সঙ্গে ভালো আচরণ করিনি এবং তাদের আলাদা করে দিয়েছি।’

দুঃখ প্রকাশ করে নওয়াজ শরিফ আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সৃষ্টি নিয়ে বিচারপতি হামুদুর রহমান কমিশন একটি পর্যালোচনা তৈরি করেছিলেন; কিন্তু আমরা তা পড়েই দেখিনি।’সূএ: এনটিভিনিউজ

আপনার মতামত লিখুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ