মঙ্গলবার,১৭ই জুলাই, ২০১৮ ইং,২রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৮:০৪
পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারের অভাবে স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত মানুষের দুঃখ দুর্দশা দেখলে প্রধানমন্ত্রীর প্রাণ কাঁদে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শপথ নিলেন পিএসসির নবনিযুক্ত সদস্য নুরজাহান বেগম রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের পাশে থাকবে আইওএম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ৩১ জুলাই কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বীজতলা নষ্ট করায় প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত কৃষক

পুরো বছরের অনিশ্চয়তায় চাষি

7 days ago , বিভাগ : অর্থনীতি,

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:  চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভার দৌলতপুর গ্রামের আম ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম এবার কিনেছিলেন প্রায় সাত লাখ টাকার আমবাগান। আশা ছিল তিন লাখ টাকা লাভ হবে, কিন্তু ৭৫ ভাগ আম বিক্রি করে পেয়েছেন দুই লাখ টাকা, বাকি আম বিক্রি করে পেতে পারেন এক লাখ টাকা। ফলে তিনি পুঁজি বিনিয়োগ থেকে ফেরত পাবেন তিন লাখ টাকা। বাকি চার লাখ টাকা লোকসানের খাতায়। অথচ আগামী ১ সেপ্টেম্বর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান, পুরো বছরের সংসারের খরচ এবং সামনে কোরবানি ঈদ। এত খরচ তিনি কিভাবে বহন করবেন এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় এমন অবস্থা শুধু একজনের নয়, হাজার হাজার আম চাষি, ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকদের একই অবস্থা।

জেলার শিবগঞ্জ, কানসাট, গোমস্তাপুরসহ অন্তত ১৫টি আম বাজারে হিমসাগর আম বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ৬০০ টাকা থেকে ২৬০০ টাকা। ফজলি ৬০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে আম বাজারগুলোতে। গতবার আম্রপালি শুরুতেই দাম ছিল ২৫০০ টাকা মণ, আর এবার বিক্রি হচ্ছে ১২০০-১৭০০ টাকা। গতবার একই সময়ে এসব আমের দর ছিল দিগুণেরও বেশি। সাপাহার আম বাজারের আড়তদার ইমরান হোসেন শুক্রবার বিকেলে জানান, আজ কানসাটে ফজলির দাম ছিল ১০০০-১১০০ টাকা মণ, সাপাহারে তা বিক্রি হয়েছে ৮৫০ থেকে ১০০০ টাকা, এবার আম্রপালি আমের দাম গত বারের চেয়ে সাপাহারেই ১০০০ টাকা মণে কম দামে পাওয়া যাচ্ছে। সাপাহার, সাতক্ষীরা, দিনাজপুর, নাটোরসহ কয়েকটি এলাকায় এবার আমের উৎপাদন ভালো হলেও ক্রেতা ও ব্যাপারী পর্যাপ্ত না আসায় আমের দরে ধস নেমেছে। আর এতে করে পথে বসার উপক্রম হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম চাষি, ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকদের।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে এবার আমের দাম কম হওয়ার কারণ হিসেবে আম চাষি, ব্যবসায়ী ও কৃষি বিভাগ মনে করছে অন্য জেলায় উৎপাদিত আম পাকা শুরু হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জে আম পাকার অন্তত ১৫ দিন আগে।

এবার সাতক্ষীরাসহ কয়েকটি এলাকার অপরিপক্ব আম কার্বাইড দিয়ে পাকিয়ে চালান দিলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেসব আম আটক ও নষ্ট করে। এতে আতঙ্ক ছাড়িয়ে পড়ে।

ফলে চাঁপাইনবাবগঞ্জে এবার আম মৌসুম শুরুর আগ থেকেই অধিক গরমে আম পাকা শুরু হয় প্রকৃতিগতভাবে, কিন্তু তা বাজারে ছাড়া যায়নি। এ ছাড়া গতবারের চেয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাশাপাশি অন্য কয়েকটি জেলায় আম উৎপাদনও হয়েছে অনেক।

সূত্র: কালের কন্ঠ

আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ